আল-আমিন মিয়া, পলাশ প্রতিনিধি: সামর্থবান মুসলমানরা, তাদের সামর্থ অনুসারে মহান আল্লাহতায়ালার সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য পশু কোরবানি দিয়ে থাকেন।
আসন্ন পবিত্র ঈদ-উল-আযহাকে সামনে রেখে পশু কোরবানি এবং কুরবানিকৃত পশুর গোশত কাটার সারঞ্জামাদি তৈরি নিয়ে সারাদেশের ন্যায় ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন নরসিংদীর পলাশ উপজেলার প্রায় তিনশতাধিক কামার দোকানের শিল্পীরা। কামার দোকানগুলোতে হাতুড়ি লোহার টুং টাং শব্দ বলে দেয় কামার শিল্পীদের ব্যস্ততা কত বেশি কোরবানি ঈদকে ঘিরে। দিন রাত সমান তালে পরিশ্রম করে হাসুয়া, ছুরি, চাপাচি, দা, বটি, ভুজলী, কুড়াল তৈরি করার পাশাপাশি পুরাতন সারঞ্জামাদি শানদিতে ব্যস্ত এই শিল্পীরা। ঈদ যত ঘনিয়ে আসছে ততই যেন বৃদ্ধি পাচ্ছে কামার শিল্পীদের ব্যস্ততা। কামার শিল্পীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সাড়া বছর কাজের ব্যস্ততা তেমন না থাকলেও কোরবানির ঈদ এলেই দোকানে কাজের ব্যস্ততার পাশাপাশি ক্রেতাদের ভীড়ও বেড়ে যায় বহু গুণ। পলাশ উপজেলার নতুন বাজার এলাকার কামার শিল্পী হরিদাস জানান, এবার কয়লার দাম একটু বেশি হওয়ায় তারা কাজ বুঝে টাকাও একটু বেশি নিচ্ছেন। তার দোকানে ছোট বড় ছুড়ি, চাপাতিশান দেওয়ার জন্য পঞ্চাশ টাকা থেকে শুরু করে কাজের গুণগত মান অনুসারে ১শ টাকা পর্যন্ত নেওয়া হয়। দা বানানো হয় ৬শত টাকা থেকে শুরু করে ৭শত টাকা পর্যন্ত। ভালো লোহা বা ইস্পাতের মান অনুসারে ছুরি বানোর জন্য নেওয়া হয় ৬শত টাকা থেকে শুরু করে হাজার টাকা পর্যন্ত। ছোট চাকু বানানো ১শত থেকে দেড়শ টাকার মধ্যে। চাপাতি এবং বটি তৈরির জন্য নেওয়া হয় ৫শত থেকে এক হাজার টাকা। উপজেলার ঘোড়াশাল বাজার এলাকার কামার শিল্পী সুবল দাস জানান, ঈদ উপলক্ষ ছাড়া দিনে তিন থেকে চারশ টাকাও কাজ করতে কষ্ট হয়। কিন্তু পশু কোরবানি ঈদ আসলেই প্রায় প্রতিদিনই দুই হাজার টাকা থেকে শুরু করে তিন হাজার টাকাও কাজ করা যায়। তিনি আরো জানান, বর্তমান সময়ে বিভিন্ন কোম্পানির তৈরির স্টিল জাতীয় জিনিসের ভীড়ে আমাদের লোহার তৈরি জিনিসের কদর কমে যাচ্ছে।

420 total views, 6 views today