স্টাফ রিপোর্টার: নরসিংদীর বেলাব উপজেলার পোড়াদিয়া গ্রামের মো. আলী নেওয়াজ এ মাসের ৩ তারিখে জ¦রে অসুস্থ হয়ে নরসিংদী সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়। ভর্তি হবার পর জ¦র আরো বেড়ে গেলে হাসপাতালের পাশে থাকা জনৈক এ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভার আলী নেওয়াজের স্ত্রী জোছনা বেগমকে বুঝিয়ে বলে তার স্বামীকে নিয়ে উত্তরা চলে যেতে।
এ সময় এ্যাম্বুলেন্স চালক জোছনা বেগমকে বলেন মাত্র ১৫ হাজার টাকায় আপনার স্বামী সুস্থ হয়ে যাবে। জোছনা বেগম কিছু বুঝে উঠার আগেই এ্যাম্বুলেন্স চালক ঢাকার উত্তরা সেন্ট্রাল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনোস্টিক সেন্টারে আলী নেওয়াজকে নিয়ে ভর্তি করে। ভর্তির ৩ ঘন্টা পর জোছনা বেগমের কাছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ৫২ হাজার টাকা দাবী করে। আলী নেওয়াজকে লাইফ সাপোর্টে পাঠিয়ে দেয়। জোছনা বেগম হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে এতো টাকা দিতে পারবে না বলে জানায়। তিনি বলেন আমার স্বামী নরসিংদীর একটি কারখানায় সিকিউরিটি গার্ড হিসেবে চাকুরী করেন আমরা গরীব মানুষ। আমার কাছে এতো টাকা নেই। এতে করে হাসপাতালোর লোকজন রেগে যায় জোছনা বেগমের উপর। তারা বলে টাকা কিভাবে আদায় করতে হয় তা আমাদের জানা আছে। এ কথা শুনে জোছনা বেগম তার ঢাকার এক আত্মীয়কে বিষয়টি অবহিত করলে তিনি এসে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বললে তারা তার সাথে খারাপ ব্যবহার করে পুলিশে দেয়ার হুমকি দেয়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায় আমরা পুলিশ ম্যানেজ করে কাজ করি। এর ভাগ উপরেও যায়। তাই কেউ আমাদের কিছু করতে পারবে না। এসব কথা বলে জোছনা বেগম ও তার আত্মীয়কে অপমান করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। জোছনা বেগম অনেক কষ্টকরে জ¦রে অসুস্থ রোগীকে ৮০ হাজার টাকার বিণিময়ে তাদের কবল থেকে নিয়ে আসে।
পরবর্তীতে অসহায় জোছনা বেগম কোন উপায় না পেয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ও সচিব বরাবরে উপরোক্ত প্রতারণার বিষয় উল্লেখ করে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

581 total views, 3 views today