নরসিংদীতে পহেলা বৈশাখের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন

0
35

স্টাফ রিপোর্টার: আজ পহেলা বৈশাখ। বাংলা ১৪২৬ বঙ্গাব্দ। হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালীদের এক মহা-উৎসব পহেলা বৈশাখ। আবহমান বাংলার হাজার বছরের কৃষ্টি, সংস্কৃতি আর ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতায় নরসিংদীতে পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে জেলাজুড়ে নানা আয়োজনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে জেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন। এ আয়োজনের মধ্যে রয়েছে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বিভিন্ন সংগঠনের অংশগ্রহণে বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রা, সংগীত পরিবেশনা, আলোচনা সভা, ৩ দিনব্যাপী গ্রামীণ খেলা, বাউল সংগীত পরিবেশনসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক পরিবেশনা। এদিকে বৈশাখী মেলা’য় মাটির তৈরি হাড়িসহ বিভিন্ন উপকরণ সমেত পসরা বসাতে কুমার বাড়িগুলোতেও চলছে বিভিন্ন রং-বেরংঙের আকর্ষণীয় কাঁরুকাজ। পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে নরসিংদী জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে জোড়দার নিরাপত্তা ব্যবস্থা। বঙ্গাব্দ ১৪২৫’র বিদায় এবং বিভিন্ন সাজে সজ্জিত হয়ে নব-বর্ষকে স্বাগত জানাতে ব্যস্ত সময় পার করছেন স্থানীয় ভাষ্কর্য শিল্পী ও চারুকলা-কৌশলীরাও।
এছাড়া প্রতি বছরের ন্যায় এবারও নরসিংদী শহরের ঐতিহ্যবাহি আরশীনগর বটমূলে সামসুদ্দীন আহমেদ এছাক সংগীত একাডেমীর উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হবে সপ্তাহব্যাপী বৈশাখী মেলা ও প্রতিযোগিতাসহ লোক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এতে অংশ নেবে জেলার স্বনামধন্য সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো। প্রস্তুতি নিচ্ছে তমাল তলা বন্ধু মহল সংগঠনটিও।
ভারতবর্ষে মুঘল সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা শেষে সম্রাটরা হিজরী পঞ্জিকা অনুসারে কৃষি পণ্যের খাজনা আদায় করতেন। হিজরি সন চাঁদের উপর নির্ভরশীল হওয়ায় কৃষি ফসলাদি উত্তোলনের সময়ের মিল হত না। এতে অসময়ে কৃষকদেরকে খাজনা পরিশোধ করতে বাধ্য করা হত। খাজনা আদায়ে সুষ্ঠুতা প্রণয়নের লক্ষ্যে মুঘল সম্রাট আকবর বাংলা সনের প্রবর্তন করেন। তিনি প্রাচীন বর্ষপঞ্জিতে সংস্কারের আদেশ দেন। সম্রাট আকবরের আদেশ মতে তৎকালীন বাংলার বিখ্যাত জ্যোতির্বিজ্ঞানী ও চিন্তাবিদ ফতেহউল¬াহ সিরাজি সৌর সন এবং আরবি হিজরী সনের উপর ভিত্তি করে নতুন বাংলা সনের নিয়ম বিনির্মাণ করেন। ১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দের ১০ই মার্চ বা ১১ই মার্চ থেকে বাংলা সন গণনা শুরু হয়। তবে এই গণনা পদ্ধতি কার্যকর করা হয় আকবরের সিংহাসন আরোহণের সময় (৫ই নভেম্বর, ১৫৫৬) থেকে। প্রথমে এই সনের নাম ছিল ফসলি সন, পরে “বঙ্গাব্দ” বা বাংলা বর্ষ নামে পরিচিত হয়।
আকবরের সময়কাল থেকেই পহেলা বৈশাখ উদ্যাপন শুরু হয়। তখন প্রত্যেককে বাংলা চৈত্র মাসের শেষ দিনের মধ্যে সকল খাজনা, মাশুল ও শুল্ক পরিশোধ করতে বাধ্য থাকত। এর পর দিন অর্থাৎ পহেলা বৈশাখে ভূমির মালিকরা নিজ নিজ অঞ্চলের অধিবাসীদেরকে মিষ্টান্ন দ্বারা আপ্যায়ন করতেন।
এ উপলক্ষে বিভিন্ন উৎসবের আয়োজন করা হত। এই উৎসবটি একটি সামাজিক অনুষ্ঠানে পরিণত হয় যার রূপ পরিবর্তন হয়ে বর্তমানে এই পর্যায়ে এসেছে। তখনকার সময় এই দিনের প্রধান ঘটনা ছিল একটি হালখাতা তৈরি করা। হালখাতা বলতে একটি নতুন হিসাব বই বোঝানো হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে হালখাতা হল বাংলা সনের প্রথম দিনে দোকানপাটের হিসাব আনুষ্ঠানিকভাবে হালনাগাদ করার প্রক্রিয়া। গ্রাম, শহর বা বাণিজ্যিক এলাকা, সকল স্থানেই পুরনো বছরের হিসাব বই বন্ধ করে নতুন হিসাব বই খোলা হয়। হালখাতার দিনে দোকানদাররা তাদের ক্রেতাদের মিষ্টান্ন দিয়ে আপ্যায়ন করে থাকে। এই প্রথাটি এখনও অনেকাংশে প্রচলিত আছে, বিশেষত স্বর্ণের দোকানে।
হালখাতা বঙ্গাব্দ বা বাংলা সনের প্রথম দিনে দোকানপাটের হিসাব আনুষ্ঠানিকভাবে হালনাগাদ করার প্রক্রিয়া। বছরের প্রথম দিনে ব্যবসায়ীরা তাদের দেনা-পাওনার হিসাব সমন্বয় করে এদিন হিসাবের নতুন খাতা খোলেন। এজন্য খদ্দেরদের বিনীতভাবে পাওনা শোধ করার কথা স্মরণ করিয়ে দেওয়া হয়; শুভ হালখাতা কার্ড’-এর মাধ্যমে ঐ বিশেষ দিনে দোকানে আসার নিমন্ত্রণ জানানো হয়। এই উপলক্ষে নববর্ষের দিন ব্যবসায়ীরা তাদের খদ্দেরদের মিস্টিমুখ করান। খদ্দেররাও তাদের সামর্থ অনুযায়ী পুরোনো দেনা শোধ করে দেন। আগেকার দিনে ব্যবসায়ীরা একটি মাত্র মোটা খাতায় তাদের যাবতীয় হিসাব লিখে রাখতেন। এই খাতাটি বৈশাখের প্রথম দিনে নতুন করে হালনাগাদ করা হতো। হিসাবের খাতা হাল নাগাদ করা থেকে “হালখাতা”-র উদ্ভব। বাংলাদেশ ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় ছোট বড় মাঝারি যেকোনো দোকানেই এটি পালন করা হয়ে থাকে।
মূলত পহেলা বৈশাখের সকালে সনাতন ধর্মাবলম্বী দোকানী ও ব্যবসায়ীরা সিদ্ধিদাতা গণেশ ও বিত্তের দেবী লক্ষ্মীর পূজা করে থাকেন এই কামনায় যে, তাদের সারা বছর যেন ব্যবসা ভাল যায়। দেবতার পূজার্চনার পর তার পায়ে ছোঁয়ানো সিন্দুরে স্বস্তিকা চিহ্ন অঙ্কিত ও চন্দন চর্চিত খাতায় নতুন বছরের হিসেব নিকেশ আরম্ভ করা হয়। এই দিন ক্রেতাদের আনন্দদানের জন্য মিষ্টান্ন, ঠাণ্ডা পানীয় প্রভৃতির ব্যবস্থা করে থাকেন ব্যবসায়ীরা। অনেক ব্যবসায়ী অক্ষয় তৃতীয়ারদিনেও হালখাতা বা শুভ মহরৎ অনুষ্ঠান করে থাকেন ।
এক ক্রান্তি থেকে আরেক ক্রান্তিতে সংক্রান্তি। বাংলা সনের সমাপনী মাস চৈত্রের এ শেষ দিনটি সনাতন বাঙালির লৌকিক আচারের ‘চৈত্র সংক্রান্তি’। হিন্দু সম্প্রদায় বাংলা মাসের শেষ দিনে শাস্ত্র ও লোকাচার অনুসারে স্নান, দান, ব্রত, উপবাস ক্রিয়াকর্মে কাটান।

84 total views, 6 views today

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here