স্টাফ রিপোর্টার: আবহমান বাংলার হাজার বছরের কৃষ্টি, সংস্কৃতি আর ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতায় নরসিংদীতে পহেলা বৈশাখ বাংলা বর্ষবরণ উপলক্ষে উৎসবমূখর পরিবেশের মধ্য দিয়ে ৩দিনব্যাপি সময় পাড় করেছে নরসিংদীবাসী। রোববার সকাল ৯টায় বর্ষবরণের প্রারম্ভিকক্ষণে জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন এর নেতৃত্বে বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রার মধ্য দিয়ে নববর্ষের সূচনা করা হয়েছে। নরসিংদীর মোসলেহ উদ্দিন ভূঁইয়া স্টেডিয়াম থেকে শুরু হয়ে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রাটি জেলা শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে জেলা শিল্পকলা একাডেমীর নতুন ভবন মিলনায়তনে এসে শেষ হয়। এবারের মঙ্গলশোভাযাত্রায় আবহমান বাংলার ইতিহাস-ঐতিহ্যের সঙ্গে মিল রেখে হাতি, মাছ, ময়ূর, মাছ, পুতুল, পেঁচাসহ বাহারি সাজে সজ্জিত হয়ে সরকারী-বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারী, নরসিংদী মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, বিভিন্ন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক, অভিভাবক, বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ অসাম্প্রদায়িক চেতনায় উদ্বুদ্ধ জেলার বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার সকল বয়সী মানুষ অংশগ্রহণ করেন। বর্ষবরণ উপলক্ষে জেলা শিল্পকলা একাডেমী নতুন ভবন মিলনায়তনে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের সংগঠন “বাঁধনহারা” বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে অংশ নেয়। এছাড়া জেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন উদ্যোগে “বাংলা নববর্ষ ও বঙ্গবন্ধু” শীর্ষক কুইজ প্রতিযোগিতাসহ দিনব্যাপী নববর্ষের সংগীত, ৩ দিনব্যাপী গ্রামীণ মেলা, বাউল সংগীত, মনোজ্ঞ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
শোভাযাত্রা শেষে শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গণে পলাশ তলায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সুপার মিরাজ উদ্দিন আহমেদ, নরসিংদী স্থানীয় সরকার শাখার উপ-পরিচালক ড. এটিএম মাহবুবুল করিম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ আব্দুল আউয়াল, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) সুষমা সুলতানা প্রমূখ।
উদ্বোধনি অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন বলেন, বাংলা নববর্ষ বাঙালি সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের একটি বহমান প্রাচীন ধারা। বাংলা নববর্ষ এবং বাঙালির প্রাণের উৎসব আয়োজন যেন এক সুত্রে গাঁথা। পুরাতনকে পিছনে ফেলে নিজ ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি বক্ষে ধারণ করে নতুন বর্ষকে বরণ করতে উদগ্রীব সারা বিশ্বের বাঙালি প্রাণ। তাই বাঙালির সর্বজনীন, অসা¤প্রদায়িক মহোৎসব কিভাবে এবং কেন এলো তা আমাদের জানতে হবে। তিনি বলেন, ‘মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা, অগ্নিস্নানে শুচি হোক ধরা’ পুরনো ব্যর্থতাকে বিদায় জানিয়ে নতুনের প্রত্যাশায় আজ বাঙালির সর্বজনীন প্রাণের উৎসব বাংলা নতুন বছর-পহেলা বৈশাখ। নতুন বছরের উৎসবের সঙ্গে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর শিল্প ও সংস্কৃতির নিবিড় যোগাযোগ। গ্রামে মানুষ ভোরে ঘুম থেকে ওঠে, নতুন জামা-কাপড় পরে এবং আত্মীয় স্বজন ও বন্ধু-বান্ধবের বাড়িতে বেড়াতে যায়। বাড়িঘর পরিষ্কার করা হয় এবং মোটামুটি সুন্দর করে সাজানো হয়। বিশেষ খাবারের ব্যবস্থাও থাকে। গ্রামের পাশাপাশি শহরেও সমান জনপ্রিয় পহেলা বৈশাখ। সর্বজনীন উৎসব পহেলা বৈশাখ মানুষের সংকীর্ণতা দূর করে, হৃদয় বড় করে। পহেলা বৈশাখের অসা¤প্রদায়িক মিলনমেলার মধ্যদিয়েই বাঙালি একদিনের জন্য নয়, তিনশো পঁয়ষট্টি দিন ধরেই আদর্শ বাঙালি হয়ে উঠতে পারে। আজকের দিনে এই হউক আমাদের প্রত্যাশা সর্বজনীন পহেলা বৈশাখে মানুষের মাঝে সব ভেদাভেদ দূর হয়ে যাক।

407 total views, 8 views today