স্টাফ রিপোর্টার: নরসিংদীতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মিথ্যা মামলা দায়ের করায় নাসিমা বেগম (৩০) নামে এক বাদীকে ৭ বছরের কারাদ- দিয়েছেন আদালত। সোমবার বিকেলে নরসিংদী জজ আদালতের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. জুয়েল রানা এ আদেশ দেন।
বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আদালতের স্পেশাল পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) রীনা দেবনাথ ও আইনজীবী খন্দকার হালিম। দ-প্রাপ্ত নাসিমা বেগম জেলার বেলাব উপজেলার চর আমলাব এলাকার মো. সাফিউদ্দিনের মেয়ে ও একই এলাকার ইমান আলীর স্ত্রী।
আদালত সূত্রে জানা গেছে, নাসিমা বেগমের সঙ্গে তাঁরই চাচাতো ভাই একই এলাকার মৃত সামসুদ্দীনের ছেলে মো. কাজল মিয়ার জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল। এরই জের ধরে ২০১২ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর কাজলের বড় বোন বিধবা ফিরুজা বেগমকে নাসিমা বেগমসহ তার লোকজন মারধোর করেন। এ ঘটনায় কাজল মিয়া বাদী হয়ে নাসিমা বেগমকে প্রধান আসামি করে ৭ জনের বিরুদ্ধে পরদিন বেলাব থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় পরবর্তীতে নাসিমার ভাই অন্তর মিয়ার ৩ বছরের সাজা হয়। এ মামলার জের ধরে নাসিমা বেগম তার চাচাতো ভাই কাজল মিয়া ও রতন মিয়ার নামে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ তুলে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। আদালত বেলাব থানার ওসিকে ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।
পরে ওসির নির্দেশে থানার তৎকালীন উপপরিদর্শক জিএম আশরাফ সরেজমিনে তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পাননি। পাশাপাশি মামলার বাদী তার দায়ের করা মামলার স্বপক্ষে আদালতে কোনো স্বাক্ষী উপস্থাপন করতে না পারায় আদালত ২০১৮ সালে মামলাটি খারিজ করে দেন। এ ঘটনায় কাজল মিয়া বাদী হয়ে তাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ তুলে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতে ১৭ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় আদালত দীর্ঘ তদন্ত ও স্বাক্ষ্য গ্রহণ করে সোমবার বিকেলে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগে অভিযুক্ত নাসিমা বেগমকে ৭ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ২০ হাজার টাকা অর্থদ- দেন।
মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবী খন্দকার হালিম বলেন, এই মামলায় আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা হয়েছে। কেউ কারো বিরুদ্ধে অসৎ উদ্দেশ্য নিয়ে হয়রানির জন্য মিথ্যা মামলা দায়ের করলে উল্টো তার সাজা হয়। আজকে আদালত অভিযুক্ত নাসিমা বেগমের ৭ বছরের সশ্রম কারাদ- ও ২০ হাজার টাকা আর্থিক দ-ের আদেশ দিয়েছেন। মামলার বাদী কাজল মিয়া এক বছর আগে মৃত্যুবরণ করেছেন। বেঁচে থাকলে হয়ত অনেক খুশি হতেন।

122 total views, 3 views today