স্টাফ রিপোর্টার: নরসিংদীতে সেপটিক ট্যাংকির বিষাক্ত গ্যাসে ৩ শ্রমিক মারা গেছে। সোমবার দুপুরে শহরের ভেলানগরে ব্যাংক কলোনী এলাকায় নির্মাণাধীন একটি বাড়ির সেপটিক ট্যাংকের বিষাক্ত গ্যাসে রমিজ উদ্দিন (২৬), সিরাজুল ইসলাম (৩২), রাকিব (২২) মৃত্যুবরণ করে। বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত অপর অসুস্থ শ্রমিক কামাল উদ্দিন (৪০) কে নরসিংদী জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাৎক্ষণিক ভাবে নিহতের বাড়ির ঠিকানা পাওয়া যায়নি।
জানা যায়, নির্মাণাধীন বাড়ির মাটির নীচে সেপটিক ট্যাংকির ভিতরে ঢালাই কাজে ব্যবহৃত কাঠ খুলে আনতে গিয়ে প্রথমে একজন শ্রমিক ভিতরে প্রবেশ করার পর তার কোন সাড়া শব্দ না পেয়ে ২য় জন প্রবেশ করে। তারও কোন শব্দ না পেয়ে ৩য় জন তাদের উদ্ধারে গিয়ে ফিরে না আসায় ৪র্থ শ্রমিক কামাল উদ্দিন ট্যাংকের ভিতর প্রবেশ করে। কিন্তু বিষাক্ত গ্যাসের বিষক্রিয়া সহ্য করতে না পেরে দ্রুত বেরিয়ে আসে। বেরিয়ে আসার পর কামাল উদ্দিনের ডাকচিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেয়। পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের লোকজন ঘটনাস্থলে ছুটে এসে দীর্ঘক্ষণ চেষ্টা চালিয়ে ট্যাংকি ভেঙ্গে নিহতদের উদ্ধার করে দ্রুত হাসপাতালে পাঠায়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নরসিংদীর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সুষমা সুলতানা ও নেজারত ডেপুটি কালেক্টর মো. মাসুদুল হক। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সুষমা সুলতানা জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাড়ির মালিকদের সচেতনতা ও সতকর্তার আহবান জানান। এছাড়াও তিনি দুর্ঘটনা রোধে করণীয় বিষয়ক দিক নির্দেশনা দেন।
নরসিংদী জেলা হাসপাতালের আরএমও ডা. এনএম মিজানুর রহমান জানান, ৩জন শ্রমিককে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়েছিল। তারা অত্যাধিক বিষক্রিয়ায় মৃত্যুবরণ করেন। আহত কামাল উদ্দিন চিকিৎসাধীন রয়েছে।
নরসিংদী মডেল থানার ওসি সৈয়দুজ্জামান বলেন, সেপটিক ট্যাংক বানানোর পর সেন্টারিংয়ের বাঁশ, কাঠ এসব খোলার জন্য এক শ্রমিক ভেতরে নামেন। অনেকক্ষণ সে উঠে না আসায় আরও দুজন সেখানে নামে। অক্সিজেনের অভাবে তাদের মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
নরসিংদী ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম ভূঁইয়া জানান, দুপুরে ফোন পেয়ে তারা সেখানে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করেন। তিনি বলেন, সেপটিক ট্যাংকের নির্মাণ শেষে সেখানে থাকা বাঁশের খুঁটি এবং অন্যান্য নির্মাণ উপকরণ খুলে আনতে শ্রমিকরা নেমেছিল। আমরা সেখানে গিয়ে উপরে এবং নিচে দুদিক থেকে স্ল্যাব কেটে বাতাস ঢোকানোর ব্যবস্থা করি। পরে ভেতরে নেমে তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠাই। তবে তারা ভেতরেই মারা গেছে।

318 total views, 3 views today