নির্যাতিত নারীর পাশে মহিলা সহায়তা কেন্দ্র ॥ জিনাত আরা আহমেদ ॥

0
17

খুলনার মহেশ্বর পাশার জেসমিনের হাতের কাজ দেখে প্রশংসা না করে পারলাম না। জিজ্ঞেস করলাম কীভাবে শিখলে? হাতের কাজ এত সুন্দর হয়! বলল, মহিলা সহায়তা কেন্দ্রে শিখেছি । কিভাবে এই সহায়তা কেন্দ্রের খোঁজ পেয়েছে জানতে চাইলে বলল- বিয়ের পর শাশুড়ী-ননদের গঞ্জনা এবং এক পর্যায়ে স্বামীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে জেসমিন খুলনার মহিলা বিষয়ক অফিসে যায় সমস্যার বিষয়ে জানাতে। ওরা ওকে মহিলা সহায়তা কেন্দ্রের সাথে যোগাযোগ করিয়ে দেয়। সেখানে প্রায় চারমাস অবস্থানকালে জেসমিন হাতের কাজে পারদর্শী হয়ে ওঠে। এর মধ্যে মহিলা সহায়তা কেন্দ্র জেসমিনের স্বামী, শাশুড়ী এবং বাবা-মায়ের সাথে যোগাযোগ করে ওদের আসতে বলে। কেন্দ্রের আইনজীবীর সহায়তায় আলোচনা এবং আইনি আপস মীমাংসার মাধ্যমে কিছুদিন পর জেসমিনের স্বামী ওকে ফিরিয়ে নিয়ে যায়। বর্তমানে আলাদা সংসারে স্বামীর উপার্জন এবং জেসমিন হাতের কাজ করে যে টাকা আয় করে তাতে সুখেই দিন কাটছে ওদের।

জেসমিনের মতো এমন নির্যাতিত নারীর সংখ্যা এদেশে কম নয়। এসব অসহায়, দুঃস্থ, আশ্রয়হীন ও নির্যাতিত মহিলাদের সাহায্যের জন্য সরকারের অসংখ্য কর্মসূচি রয়েছে। এসবের মধ্যে প্রধানত আইনগত সহায়তা ও আশ্রয় প্রদানের লক্ষ্যে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীনে আছে মহিলা সহায়তা কর্মসূচি নামে বিশেষ কার্যক্রম। মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের আওতায় বিভাগীয় পর্যায়ে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ সেল এবং নির্যাতিত নারীদের সাময়িক অবস্থানের জন্য যেখানে আবাসন কেন্দ্রের মাধ্যমে অসহায়, দুঃস্থ, আশ্রয়, নিরাপত্তাহীন এবং নির্যাতিত মহিলাদের আইনগত সহায়তা এবং আশ্রয় সহায়তা দেওয়া হয়ে থাকে। সম্পূর্ণ বিনা খরচে এসব মহিলাদের আইনগত সহায়তা এবং আশ্রয়কেন্দ্রে থাকার ব্যবস্থা করা হয়।
উল্লেখ্য, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়ে ১৯৮৬ সালে নির্যাতিত নারীদের আইনগত পরামর্শ ও সহায়তা প্রদানের লক্ষ্যে ১৫ জন আইন কর্মকর্তার সমন্বয়ে চারটি পদ নিয়ে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ সেলের কার্যক্রম শুরু হয়। এ কার্যক্রমকে আরো শক্তিশালী ও বেগবান করতে মহিলা সহায়তা কর্মসূচি প্রকল্প নামে একটি উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। এ প্রকল্পের আওতায় ছয়টি বিভাগীয় শহরে ছয়টি সহায়তা কেন্দ্র স্থাপন করা হয়। নির্যাতনের শিকার নারীরা নারী নির্যাতন প্রতিরোধ সেলের মাধ্যমে কাউন্সেলিং, বিরোধ নিষ্পত্তি, দেনমোহর, স্ত্রীর ভরণপোষণ, খোরপোশ ও সন্তানের ভরণপোষণ আদায়ে সহযোগিতা পেয়ে থাকে। তাছাড়া নির্যাতিত ও আশ্রয়হীন নারীরা বিনা খরচে ছয় মাস পর্যন্ত বারো বছরের নিচে সর্বোচ্চ দুই সন্তানসহ আশ্রয় পেতে পারেন।

নারী নির্যাতন প্রতিরোধ সেলে নিয়োজিত ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ পরিদর্শক, আইনজীবী এবং সমাজকল্যাণ কর্মকর্তা দ্বারা নির্যাতিত নারীদের অভিযোগের ভিত্তিতে আইনগত পরামর্শ দেওয়া হয়। তাছাড়া পারিবারিক সম্পর্ক পুনঃস্থাপন, যৌতুকের কারণে সৃষ্ট পারিবারিক সমস্যা নিরসন, স্ত্রী-সন্তানের আইনগত অধিকার প্রতিষ্ঠা এবং বিবাহ বিচ্ছেদ কিংবা তালাকপ্রাপ্ত নারীদের মোহরানা ও খোরপোশ আদায় ইত্যাদি বিষয়ে অভিযোগকারীর লিখিত আবেদনের ভিত্তিতে আপস নিষ্পত্তি করা হয়। এক্ষত্রে বাদী ও বিবাদী উভয় পক্ষের উপস্থিতিতে পারস্পরিক আলোচনা ও মতবিনিময়ের মাধ্যমে সেল বিষয়গুলো আপস নিষ্পত্তি করে থাকে। নারী নির্যাতন প্রতিরোধে সেলের যেসব অভিযোগ নিষ্পত্তি করা সম্ভব হয় না তা বিনা খরচে এ কার্যালয়ের আইনজীবীর মাধ্যমে নির্যাতিতের পক্ষে আদালতে মামলা পরিচালনা ও নিষ্পত্তির ব্যবস্থা করা হয়। এসবের পাশাপাশি দৈনন্দিন পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত বিভিন্ন নারী নির্যাতনমূলক অপরাধের তথ্য সংগ্রহ ও ফলোআপ করা হয়।

মহিলা সহায়তা কেন্দ্রে বিনা খরচে নির্যাতিত নারীদের আশ্রয়ের জন্যও সুব্যবস্থা রয়েছে। আশ্রিত নারী ও শিশুদের বিনামূল্যে খাদ্য, বস্ত্র, চিকিৎসা, প্রাথমিক শিক্ষা দেওয়া হয়। অসহায় ও দুঃস্থ মহিলারা যাতে স্বাবলম্বী হতে পারে সেজন্য আশ্রয়কেন্দ্রের ট্রেড প্রশিক্ষকের মাধ্যমে সেলাই, কাটিং, এমব্রয়ডারি, উল বুনন ইত্যাদি বিষয়ে বাধ্যতামূলক প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। এখান থেকে লব্ধজ্ঞান কাজে লাগিয়ে পরবর্তীতে নারীরা আত্মকর্মসংস্থানে নিয়োজিত হতে পারবেন।

সবক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণের সুযোগ সৃষ্টি এবং নারীর প্রতি বৈষম্য দূর করার জন্য নারীর ক্ষমতায়নে সরকার বহুমুখী উদ্যোগ নিয়েছে। প্রকৃতপক্ষে ক্ষমতায়ন হলো নারীর রক্ষাকবচ। এতে করে একজন স্বাবলম্বী নারীর সিদ্ধান্ত নেয়ার সক্ষমতা তৈরি হয়। তাই নির্যাতনের শিকার অসহায় নারীর পাশে দাঁড়িয়েছে সরকার। দুঃস্থ নারীকে বিচার পেতে সাহায্য করাই শুধু নয় বরং নিরাপদ আশ্রয়ে প্রশিক্ষণপ্রাপ্তির মাধ্যমে স্বাবলম্বী হতে পারবেন একজন অসহায় নারী। তাই নির্যাতিত মহিলা ও তাদের অভিভাবকদের যেকোনো সহায়তা দিতে ঢাকা, খুলনা, বরিশাল, রাজশাহী, চট্টগ্রাম ও সিলেটের মহিলা সহায়তা কেন্দ্র রয়েছে সার্বিকভাবে সচেষ্ট।

নারীরা যখন অধিকার আদায়ের ব্যাপারে সচেতন হবে তখন আশেপাশের মানুষগুলো অন্তত নড়েচড়ে বসবে। কোনো কিছু চাপিয়ে দিতেও তারা ভাববে। এখন সময় এসেছে নারীদের নিজেদের অধিকার বুঝে নেয়ার। আমাদের পিতৃতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় নারীরা যদিও কর্তৃত্বের সুযোগ থেকে পিছিয়ে আছে তথাপি এগণ্ডি থেকে নারীদের নিজে থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। নারীর প্রতি সংহিসতা রোধে নারীদেরকেই কার্যকরী ভূমিকা রাখতে হবে। পরিবারে বোঝা না হয়ে নিজেকে শিক্ষিত ও স্বাবলম্বী করতে হবে। (পিআইডি প্রবন্ধ)

51 total views, 3 views today

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here