নেদারল্যান্ডসের রানি ম্যাক্সিমা’র তথ্য-প্রযুক্তি খাতে পারস্পরিক সহযোগিতা অব্যাহত রাখার প্রত্যয়
নেদারল্যান্ডসের রানি ম্যাক্সিমা’র তথ্য-প্রযুক্তি খাতে পারস্পরিক সহযোগিতা অব্যাহত রাখার প্রত্যয়

তথ্যবিবরণী, ঢাকা: বাংলাদেশ সফররত নেদারল্যান্ডসের রানি ম্যাক্সিমা এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্মেদ পলকের মধ্যে এক বৈঠক আজ সোনারগাঁও হোটেলে অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় তাঁরা দুই দেশের পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয় বিশেষ করে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতের সর্বশেষ উন্নয়ন ও অগ্রগতি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন।
প্রতিমন্ত্রী জানান, বাংলাদেশ গত ১০ বছরে তথ্য ও যোগাযোগ খাতসহ সামাজিক সূচকের সকল খাতে অভাবনীয় উন্নতি সাধন করেছে। তৃণমূল পর্যন্ত প্রযুক্তি সেবা পৌঁছে দিতে ৫ হাজারের অধিক ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার স্থাপন করা হয়েছে। বর্তমানে ৯০ মিলিয়নের অধিক ইন্টারনেট ব্যবহারকারী-সহ বৈদ্যুতিক সংযোগ, স্বাস্থ্য ও বিভিন্ন প্রকার সেবার ব্যাপক প্রসার ও উন্নয়ন ঘটেছে। এছাড়াও নারী ক্ষমতায়ন, ব্যাংকিং-সহ বিভিন্ন খাতে প্রভূত উন্নতি সাধিত হয়েছে। সরকার বর্তমানে এ সকল খাতে গুণগত মান উন্নয়নে পদক্ষেপ গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করেছে।
প্রতিমন্ত্রী আরো জানান, এরই ধারাবাহিকতায় তরুণ উদ্যোক্তাদের পরিচর্যা, আর্থিক ও কারিগরি সহযোগিতার জন্য ‘আইডিয়া’ (ওহহড়াধঃরড়হ উবংরমহ ঊহঃৎবঢ়ৎবহবঁৎ অপধফবসু) প্রকল্প, মহিলাদের জন্য ঝযব চড়বিৎ প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে। ই-কমার্স ও ই-সেবা প্রসারের লক্ষ্যে জাতীয় পরিচয় পত্রের তথ্য ব্যবহার করে পরিচিতি যাচাই করার সুবিধা আইসিটি বিভাগ হতে করা হচ্ছে বলে তিনি রানিকে অবহিত করেন। তিনি বলেন, সাইবার নিরাপত্তা বিধানের জন্য সরকার ডিজিটাল নিরাপত্তা এজেন্সি স্থাপন করেছে। ইতোমধ্যে সরকার সমন্বিত ডিজিটাল পেমেন্ট প্লাটফর্মের কাজ হাতে নিয়েছে যার মাধ্যমে গার্মেন্টস কর্মীদের ব্যাংকিং সুবিধা প্রদানের জন্য আর এম জি ওয়ালেট সেবা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। ৪র্থ শিল্প বিপ্লবকে সামনে রেখে তরুণদের মাঝে নতুন প্রযুক্তি যেমন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (অও), বিগ ডেটা, ব্লকচেইন ইত্যাদি বিষয়ে প্রশিক্ষণ কার্যক্রম গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করেছে।
নেদারল্যান্ডসের রানি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিগত ১০ বছরে বাংলাদেশের বিভিন্ন খাতের উন্নয়নে ভূয়সী প্রশংসা করেন। সরকারের এ সকল উদ্যোগকে সফল করার জন্য তিনি কেন্দ্রীয়ভাবে নতুন ব্যবসা আইনগত অনুমোদনের একক প্রতিষ্ঠান (ঝরহমষব ডরহফড়ি ভড়ৎ অঢ়ঢ়ৎড়াধষ ড়ভ ইঁংরহবংং) চালু করার সুপারিশ করেন। এ উদ্যোগের জন্য নেদারল্যান্ডস সরকারের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় কারিগরি সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস দেন। তিনি বাংলাদেশের ব্যাংকিং সুবিধা তৃণমূল পর্যায়ে সম্প্রসারণের জন্য মোবাইল ব্যাংকিংয়ের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। সরকার কর্তৃক ইন্টার-অপারেবল পেমেন্ট প্লাটফর্ম (ওহঃবৎড়ঢ়বৎধনষব চধুসবহঃ চষধঃভড়ৎস)-এর বাস্তবায়ন ত্বরান্বিত করার প্রয়োজন মর্মে অভিমত ব্যক্ত করেন। সবশেষে উভয় দেশ তথ্য-প্রযুক্তি খাতে পারস্পরিক সহযোগিতা অব্যাহত রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।
বৈঠকে আইসিটি বিভাগের সচিব এন এম জিয়াউল আলম, নেদারল্যান্ডস ও আইসিটি বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

169 total views, 8 views today