আল-আমিন মিয়া: তরতাজা সতেজ গাছ, প্রতিটি গাছের আকারও বেশ বড়সড়। অথচ এমন পরিপক্ক গাছ দেখেও ভাল ফলনের আশা করছেন না নরসিংদীর পলাশ উপজেলার চরঞ্চলের আলু চাষীরা।
চাষীরা জানান, এ বছর আলুর ফলন আশানুরূপ হবে না। এতে লাভের চেয়ে লসের পরিমাণ বেশি হবে।  অগ্রহায়ণ মাসের শেষদিকে টানা বৃষ্টির কারণেই এই ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছে চাষীরা। পলাশ উপজেলার চরসিন্দুর চরাঞ্চলে আলুক্ষেত্র ঘুরে এমনটাই জানা যায় চাষীদের সাথে কথা বলে। জানা যায়, পলাশের চরসিন্দুর ও শিবপুরের দুলালপুর ইউনিয়নের প্রায় ৫ শতাধিক পরিবার শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে বিশাল ওই চরে চাষাবাদ করে জিবিকা নির্বাহ করছেন। বর্ষা মৌসুমে ধান ও শীতকালে নানা ধরণের সবজি চাষ করা হয় এই চরে। চরের মাটির উর্বরতা ভাল হওয়ায় এখানে ফলসও অনেক ভাল হয়। শীতকালে এ চরে বেশির ভাগ কৃষক দেশীয় লাল ও ললিতা জাতের আলু চাষাবাদ করেন। এই চরের উৎপাদিত আলু এলাকার চাহিদা মিটিয়ে পাশ^বর্তী জেলা গুলোতেও সরবরাহ করা হয়। গেল বছর আলুর বাম্পার ফলন হলেও ভাল দাম না পাওয়ায় তেমন একটা লাভের মুখ দেখেনি চরের আলু চাষীরা। এবছর লাভের আশায় সময় মতো আলুর বিজ বোপন করে নিয়মিত পরিচর্যা করে চারাগুলো বেশ সতেজ করে গড়ে তুলেন চাষীরা। খুব অল্প সময়ে বিজ থেকে চারা বেড়ে উঠতে থাকে। তাই দেখে গত বছরের ক্ষতি কাটিয়ে এবছর লাভের মুখ দেখবে বলে স্বপ্ন দেখে চাষীরা। কিন্তু সে স্বপ্ন এখন শঙ্কায় রূপ নিয়েছে।  চরসিন্দুর এলাকার কাশেম নামে এক কৃষক এ বছর চরের দুই বিঘা জমিতে ললিতা জাতের আলুর আবাদ করেন। তিনি জমিতে এ পর্যন্ত ৮০ হাজার টাকা খরচ করেছেন। আগামী ২০-২৫ দিন পর তিনি জমির ফসল তুলবেন। তিনি বলেন, আলু গাছগুলো পরিপক্ক হলেও এর থেকে ভাল ফলন পাবো না। ললিতা জাতের আলুর আকার পরিপূর্ণ অবস্থায় অনেক বড় হয়ে থাকে। কয়েকদিন পর  ফলন তুলবো অথচ আলুর আকার এখনো অনেক ছোট। গেল অগ্রহায়ণ মাসের শেষ দিকে টানা কয়েকদিন বৃষ্টির কারণে গাছের গোড়ার মাটি শক্ত হয়ে জমে যাওয়ায় এবার আলুর আকার অনেক ছোট হয়েছে। অপরদিকে মানব নামে আরেক কৃষক জানান, শীতের কুয়াশায় এই চরে আলু গাছের কোন ক্ষতি হয় না। আশা করেছিলাম এ বছর ভাল ফলন পাবো। কিন্তু অসময়ে বৃষ্টি আমাদের সেই আশাকে ভেস্তে গেল।
পলাশ উপজেলা কৃষি অফিসার আমিরুল ইসলাম জানান, এ বছর পলাশ উপজেলায় ৫৬ হেক্টর জমিতে আলুর আবাদ করা হয়েছে। এর মধ্যে চরসিন্দুর ইউনিয়নে ২৭ হেক্টর আলুর আবাদ হয়েছে। এই এলাকার চরাঞ্চলে বেশির ভাগ দেশীয় জাতের আলুর আবাদ করা হয়। এ জাতের আলুর আকার এমনিতেই একটু ছোট হয়। তবে বৃষ্টিতে ওই  অঞ্চলে আলু ক্ষেত্রে কিছুটা ক্ষতি হয়েছে। বর্তমানে শীতের কুয়াশার কারণে আলু গাছে যেন ছত্রাকজনিত রোগে আক্রান্ত করতে না পারে সে ব্যাপারে চাষীদের পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

267 total views, 6 views today