সরকার আদম আলী: গত শনিবার রাতে মাধবদীর আব্দুল্লাহ বাজার এলাকায় গুপ্তঘাতকদের হাতে নিহত রাহাত সরকার হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার ৩ দিন পর গত সোমবার রাত আড়াইটায় নিহত রাহাতের বড় বোন ফারহানা সুমা বাদী হয়ে ৪ জনকে নামে এবং বেনামে আরো ৫ জনকে আসামী করে মাধবদী থানায় এই মামলা দায়ের করেছে। প্রাপ্ত তথ্য মতে মামলায় প্রধান আসামী করা হয়েছে কেন্দ্রীয় ছাত্র লীগের সাবেক সহ-সভাপতি ও নরসিংদী সরকারি কলেজের সাবেক জিএস এসএম কাইয়ুমকে। অন্যান্য আসামীরা হচ্ছে, রাজন, সজল ও লাক মিয়া। এছাড়া বেনামে আরো ৫ জনকে আসামী করা হয়েছে। ছাত্রলীগ নেতা এসএম কাইয়ুমকে আসামী করার কারণে মামলাটি একটি রাজনৈতিক মামলায় পরিণত হয়েছে। হত্যাকাণ্ডের পূর্বে নিহত রাহাত সরকার নিজেকে ছাত্রলীগ কর্মী দাবী করে অপর একজন ছাত্রলীগ নেতার ছবি সংবলিত পোস্টারে যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী হিসেবে প্রচারণা চালায়। এই প্রচারণায় প্রচুর সংখ্যক পোস্টার ও ফেস্টুন ছেপে সারা শহরে সেটে দেয়। জেলা যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠানে নিহত রাহাত সরকার কয়েকদিন ব্যস্ত সময় কাটিয়েছে বলে দাবী করেছে তার পরিবারের লোকজন। যুবলীগের সম্মেলনের দিন  নরসিংদীর মোসলেহ উদ্দিন ভূইয়া স্টেডিয়ামে গিয়ে তার আত্মীয়-স্বজন রাহাত হত্যাকা-ের ব্যাপারে উচ্চস্বরে এসএম কাইয়ূমের বিরুদ্ধে অভিযোগ পেশ করে। এরপরই এসএম কাইয়ূমকে আসামী করার গুঞ্জন উঠে। গত সোমবার রাতে মামলা দায়েরের মাধ্যমে এই গুঞ্জন সত্যে পরিণত হয়।
উল্লেখ্য যে, ঠান্ডা মাথার খুনী হিসেবে পরিচিত নরসিংদীর কুখ্যাত সন্ত্রাসী রাহাত সরকারের বিরুদ্ধে নরসিংদী থানাসহ বিভিন্ন স্থানে ১০/১২টি খুন, ডাকাতি, রাহাজানী, অস্ত্রবাজী, চাঁদাবাজী এবং ধর্ষণের মামলা ও অভিযোগ রয়েছে। গত শনিবার রাতে গুপ্ত ঘাতকরা তাকে মাধবদী থানার গণেরগাও আব্দুল্লাহ বাজারের নিকট গুলি করে হত্যা করে লাশ ফেলে রেখে চলে যায়। ঘটনাক্রমে এলাকার লোকজন বিষয়টি পুলিশকে জানালে, পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতালে প্রেরণ করে এবং ঘটনাস্থল থেকে ৮টি গুলির খোসা উদ্ধার করে। পরদিন রবিবার বেলা ১১টায় লোকমুখে খবর পেয়ে তার আত্মীয়-স্বজন হাসপাতাল মর্গে গিয়ে রাহাত সরকারের লাশ সনাক্ত করে।

240 total views, 6 views today