গ্রামীণ দর্পণ ডেস্ক: দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, বীর বিক্রম বলেছেন, বন্যার পানি নামার পর কৃষক ও খামারিদের ঘুরে দাঁড়াতে গ্রামীণ কর্মসংস্থান প্রকল্পের আওতায় ক্ষতিগ্রস্তদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থাসহ সব ধরণের সহযোগিতা করবে সরকার। মন্ত্রী আজ দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে উত্তরাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে একথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, রাস্তাঘাট ও বেড়িবাঁধ মেরামত ও নির্মাণে পদক্ষেপ নিতে হবে। বিশেষ করে কৃষকদের কৃষিবীজ ও সার বিতরণ, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খামারিদের পাশে দাঁড়ানো সরকারের এখন প্রধান কর্তব্য। তিনি সংশ্লিষ্ট সকলকে এ বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানান। যেসব বেড়িবাঁধ এখনো ঝুঁকির মধ্যে আছে সেগুলো দ্রুত মেরামতের জন্য তিনি সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ জানান।
মায়া চৌধুরী বলেন, এবছর হাওরে অকাল বন্যা, ঘূর্ণিঝড় মোরা, পাহাড় ধস ও উত্তরাঞ্চলে আগাম বন্যার মতো চারটি বড় দুর্যোগ সরকার সাফল্যের সাথে মোকাবিলা করছে। সরকারের পূর্ব প্রস্তুতি, দুর্যোগকালে তাৎক্ষণিক ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ, উদ্ধার ও পুনর্বাসন কার্যক্রমের কারনে প্রত্যেকটি দুর্যোগের ক্ষয়ক্ষতি সহনীয় পর্যায়ে রাখা সম্ভব হয়েছে।
তিনি বলেন, উত্তরাঞ্চলের বন্যার পানি নেমে আসায় মধ্যাঞ্চল ও নি¤œাঞ্চলে পানি বাড়তে পারে। সরকার এসব জেলার প্রশাসনকে সার্বিক প্রস্তুতি রাখার নির্দেশ দিয়েছে। ইতোমধ্যে এসব এলাকায় আগাম খাদ্যশস্য ও অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট জেলাসমূহের জেলা প্রশাসকদের অতি দ্রুত জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা করে বন্যার পূর্ণাঙ্গ প্রস্তুতি গ্রহণের নির্দেশ দেন।
চারটি বড় দুর্যোগে ত্রাণ সহায়তা প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, হাওর অঞ্চলের ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মধ্যে বিতরণের জন্য, ৩৬ হাজার ৮৪০ মেট্রিক টন চাল, ৫৯ কোটি ২৫ লাখ নগদ টাকা, গৃহ নির্মাণের জন্য ৩০০ বান্ডিল ঢেউটিন ও ৯ লাখ টাকা, কর্মসংস্থানের জন্য ইজিপিপি প্রকল্প থেকে ৮২ কোটি ৭ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। আগাম বন্যায় ফসল হানির কারণে হাওর অঞ্চলের জেলাসমূহে প্রায় ৩ লাখ ৮০ হাজার পরিবারকে ভিজিএফ দেয়া হয়েছে যা আগামী ২০১৮ সালের এপ্রিল  পর্যন্ত চলমান থাকবে।
মন্ত্রী জানান, তিনি বিভিন্ন জেলার বন্যা প্লাবিত প্রত্যন্ত এলাকা সফর করেছেন। মানুষের দুঃখ-দুর্দশার কথা শুনেছেন, দেখেছেন। ত্রাণ কার্যক্রম সরেজমিন তদারকি করেছেন। বন্যা প্লাবিত এসব জেলার  জন্য ১২ হাজার মেট্রিক টন চাল, ৩ কোটি ৭৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা, ৫০ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার, ৩ হাজার বান্ডিল ঢেউটিন ও ৯০ লাখ টাকা দেয়া হয়েছে। প্রত্যেক জেলায় পানি বিশুদ্ধকরণ মোবাইল গাড়ি পাঠানো হয়েছে। সার্বিক পরিস্থিতি মোকাবিলায় কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।
দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ সচিব মো. শাহ্ কামাল এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. রিয়াজ আহমেদ এসময় উপস্থিত ছিলেন। সূত্র: পিআইডি

395 total views, 6 views today