এম আর ওয়াসিম কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি: বাংলাদেশের জন্য ক্রিকেট সার্বজনীন খেলা হলেও ক্রিকেট এখন জুয়া খেলায় রুপ নিয়েছে সর্বত্র। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগ (আইপিএল) ক্রিকেট খেলায় কিশোরগঞ্জের ভৈরবে জমজমাট ভাবে চলছে আইপিএল জুয়া। বিত্তশালী থেকে শুরু করে রিক্সা চালক, চা দোকানীসহ বিভিন্ন পেশাজীবি বর্তমানে আসক্ত এই আইপিএল জুয়ায়। এমন কি স্কুল কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীরাও মেতে উঠছে এ জুয়া খেলায়। জুয়া আসক্তরা প্রতিদিনের রোজগার ও আগাম মাসিক বেতনের টাকা নিমিষে উড়িয়ে দিচ্ছে। অনেকে আবার নিজের অটো-বাইক ও গৃহকাজের প্রয়োজনীয় জিনিস দিয়ে ধরছে বাজি। আইপিএল বাজি এখন ভৈরবে মহামারী আকারে সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছে। যত দিন যাচ্ছে জুয়ার মাঠ তত বেশি গরম হচ্ছে। ম্যাচ শুরু হওয়ার আগেই আইপিএল জুয়াড়িরা কে কার সঙ্গে বাজি ধরবে এনিয়ে দালালও নিয়োগ করতে শুরু করেছে। এজন্য দালালরা কমিশন পেয়ে থাকেন বিজয়ীদের কাছ থেকে। অনেক জুয়াড়ি নিজের কাছে রাখা গচ্ছিত টাকা হেরে চড়া সুদে বিভিন্ন লোকের কাছ থেকে টাকা ধার নিয়ে ধরছেন বাজি। ফলে আইপিএলের জুয়ার বাজারে সুদি ব্যবসায়ীদের ব্যবসা এখন জমজমাট। তাছাড়া অনেক শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা সন্তানদেরকে আইপিএল জুয়া থেকে বিরত রাখতে না পেরে নিজ গৃহের ডিসলাইন সংযোগ বিছিন্ন করে দিয়েছেন। তার পরও কোন ক্রমেই বন্ধ করা যাচ্ছেনা আইপিএল জুয়া। এছাড়া ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগ আইপিএলের জুয়ায় বাজি ধরে লাখ লাখ টাকা হেরে সর্বস্বান্ত হয়ে দেনার দায়ে অনেকেই বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। আবার অনেক যুবক বাজি ধরে হয়েছেন লাখ লাখ টাকার মালিক। প্রতিদিন ম্যাচ শুরু হওয়ার আগেই জুয়াড়িরা লাখ লাখ টাকার বাজি ধরছেন। আইপিএলের আসর শুরু হওয়ার পর থেকেই এটি এখন মহামারী আকার ধারণ করেছে। প্রতিদিন ম্যাচ শুরু হওয়ার পর থেকে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ও পৌরসভার প্রায় গ্রামেই তরুন সমাজ ও স্বীকৃত জুয়াড়িরা এই বাজি ধরছেন লক্ষ লক্ষ টাকা। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশী জমজমাট হচ্ছে কমলপুরের গাছতলাঘাট,আমলাপাড়ার(পাকিস্তান মোড়),ভৈরব বাজারের টিন পট্টি, নিউ মার্কেট কয়েকটি দোকান, চন্ডিবের, পুলতাকান্দা, মাছ বাজারসহ কিছু মাছ ব্যবসার ঘর,কালিপুর দ.পাড়া মাদ্রাসা রোড, কালিপুর হাইস্কুল মোড়সহ উত্তর পাড়া এলাকায়।
গত কয়েক দিনে আইপিএলের জুয়ায় সর্বস্বান্ত হয়ে অনেকেই এখন পথে বসেছেন। শুধু ম্যাচই নয় প্রতিটি বলে বলে ধরা হচ্ছে বাজি। এই ছক্কা হবে, এই চার হবে। এই আউট হবে, এসব নিয়েও জুয়াবাজিতে সরগরম বাজির মাঠ। খেলা শুরুর পর থেকে ভৈরবের বিভিন্ন এলাকায় বাজি ধরা হয়েছে কয়েক লাখ টাকা।
শহরের কালীপুর এলাকার কাপড় ব্যবসায়ী আইপিএল জুয়াড়ি গত আইপিএল এ ১৫ লাখ টাকা হেরে এলাকা ছেড়েছেন। এমনকি তার কাপড়ের দোকানও বিক্রি করেছেন এই খেলার ঋণ পরিশোধ করতে। এমন দাবি মেঘনা ফেরীঘাটের মাছ বাজার এলাকার একজন মাছ ব্যবসায়ী ১৭ লাখ টাকা হেরে ব্যবসা বন্ধ করে এখন পথে পথে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এছাড়াও এই আইপিএল জুয়ায় রিক্সচালক, চা-দোকানী, মুদি ব্যবসায়ী, দিনমজুর কিস্তি ঋনের সুদের চাপে দেনার দায়ে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। আইপিএল জুয়ায় টাকা হেরে অনেক যুবক মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে। এর ফলে সমাজে নানা অপরাধ মূলক কর্মকান্ড বেড়েই চলছে। ভোক্তভোগী পরিবারসহ স্থানীয় এলাকাবাসি ও সচেতন মহল অবিলম্বে এই আইপিএল জুয়া বন্ধের জন্য বর্তমান সরকার, স্থানীয় প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টদের নিকট জোড় দাবী জানিয়েছেন।

668 total views, 3 views today