গ্রামীণ দর্পণ ডেস্ক, ১০ মার্চ ২০১৭ : ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত জঙ্গি নেতা মুফতি হান্নান ও তার সহযোগিদেরকে মুক্ত করার চেষ্টায় প্রিজনভ্যানে হামলার অভিযোগে নরসিংদী থেকে আটক মিনহাজুল ইসলামকে আটক করা হয় স্থানীয় একটি মাদ্রাসা থেকে। ১৯ বছর বয়সি ওই তরুণ শেকেরচরের বাবুরহাটের কওমি মাদ্রাসা জামিয়া ইমদাদিয়া আরাবিয়ায় পড়তেন।
নরসিংদী জেলা পুলিশের সহযোগিতায় গাজীপুরের টঙ্গী থানা পুলিশ মঙ্গলবার রাতে মিনহাজুলকে গ্রেফতার করে। তিনি ওই মাদ্রাসার কামেল শ্রেণির ছাত্র।
মাদরাসার প্রিন্সিপাল আশরাফ আলী জানান, মিনহাজুল ইসলামের বাড়ি নরসিংদীর মনোহরদী উপজেলার কাঁচিকাটা গ্রামে। তার ছাত্র যে জঙ্গি সম্পৃক্ততায় জড়িত, তা জানা ছিল না বলে দাবি করেন তিনি। গত সোমবার বিকালে একটি মামলায় হাজিরা শেষে ঢাকা থেকে গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে ফেরার পথে মুফতি হান্নানকে বহনকারী প্রিজন ভ্যানে হামলা হয় টঙ্গীর কলেজ গেইট এলাকায়। হামলার পর পর আটক হন মোস্তফা কামাল ইমান নামে একজন। তিনি হামলাকারীদের একজন বলে জানিয়েছে পুলিশ। তার ব্যাগ তল্লাশি করে তাজা হ্যান্ডগ্রেনেড, চারটি ককটেল, দুটি পেট্রল বোমা, দুটি চাপাতি ও কিছু বিস্ফোরক দ্রব্য উদ্ধার হয়।
পরদিন আদালতে তোলার পর মোস্তফা কামালকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে দেন বিচারক। আর জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে তার সহযোগি হিসেবে মিনহাজুলের নাম বলেন তিনি।
পুলিশ জানায়, হামলার পরপর মিনহাজুল তার মাদ্রাসায় ফিরে যান। বিষয়টি নিয়ে তিনি কাউকে কিছু বলেন নি। রাতে মাদ্রাসায় পুলিশ আসার পর মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ ও সহপাঠীরা মিনহাজের জঙ্গি সম্পৃক্ততার কথা জানতে পারে।
নরসিংদীর পুলিশ সুপার আমেনা বেগম বিপিএম জানান, মোস্তফা কামাল ইমানের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী মিনহাজুলকে নরসিংদীর জামিয়া ইমদাদিয়া আরাবিয়া মাদরাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর তাকে টঙ্গী পাঠানো হয়। মিনহাজুলকে আটকের সময় তার কাছ থেকে অভিনব একটি বিদেশি অস্ত্র ও ১৫টি গুলি পাওয়া যায়। টঙ্গী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানিয়েছেন, এই ধরণের অস্ত্র তিনি কোনোদিন দেখেনি। এটি যে অস্ত্র সেটিই বোঝা কঠিন। সূত্র: ইন্টারনেট

207 total views, 3 views today