স্টাফ রিপোর্টার: নরসিংদী জেলার পাঁচটি আসনের মধ্যে সকল আসনেই আওয়ামী লীগ বিএনপি মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার শেষ হয়েছে। মনোনয়ন লাভের অক্লান্ত প্রচেষ্টায় শেষ পর্যায়ে এখন চলছে ব্যাপক গ্রুপিং লবিং। প্রার্থীরা একদিকে তাদের মনোনয়ন নিশ্চিত করার জন্য কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের দ্বারে দ্বারে ধরণা দিচ্ছে, অপরদিকে মাঠ পর্যায়ের উৎসুক নেতা কর্মী-সমর্থক ও সচেতন মানুষ কৌতুহল নিয়ে অপেক্ষা করছে তাদের প্রিয় প্রার্থীদের জন্যে। নরসিংদী জেলার পাঁচটি আসনে দু’দলের কমবেশি ৬৫ জন মনোনয়ন প্রত্যাশী এ বছর সাক্ষাৎকার দিয়েছেন বলে জানা গেছে। সৌখিন রাজনীতিকদের মতে দু’দলে মনোনয়ন প্রত্যার্শীর সংখ্যা অনেক হলেও সবাই যে মনোনয়ন পাওয়ার জন্য মনোনয়ন চেয়েছেন এ কথা বলার সুযোগ নেই। কেউ চেয়েছেন নিজের পরিচিতি জাহির করার জন্য, কেউ চেয়েছেন কোন প্রার্থীর ডামি হিসেবে, কেউ চেয়েছেন দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে নিজের গুরুত্ব বৃদ্ধি করার জন্য, কেউ চেয়েছেন রাজনৈতিক পরিচয়ে সামাজিক অবস্থান শক্ত করার জন্য, আবার অনেকেই চেয়েছেন দলীয় পরিচয়ে বিভিন্ন ব্যবসায়িক ফায়দা হাসিলের জন্য। যে যেই উদ্দেশ্য নিয়ে মনোনয়ন চেয়ে থাকুক প্রায় সকলেই জানে কোন দলের পক্ষ থেকে কে মনোনয়ন পাবে। অভিজ্ঞ নেতাকর্মীদের মতে, একটি আসনে মনোনয়ন পরিবর্তন তথা নতুন প্রার্থী মনোনয়ন দেয়ার ক্ষেত্রেও দলীয় হাইকমান্ড একটি নীতি অনুসরণ করে থাকেন। সাধারনত বড় ধরনের কোন কারণ ছাড়া একজন মন্ত্রী, এমপি বা সাবেক এমপির মনোনয়ন পরিবর্তিত হয় না। এক্ষেত্রে নরসিংদীর ৫ টি আসনের মধ্যে অন্তত তিনটি আসনে কারা মনোনয়ন পাবে এটা প্রায় নিশ্চিত। নরসিংদী-১ সদর আসনে আওয়ামী লীগের এমপি পানি স¤পদ প্রতিমন্ত্রী লেফটেন্যান্ট কর্ণেল অবসরপ্রাপ্ত মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম হিরু মনোনয়ন না পাওয়ার কোন দৃশ্যমান কারণ আছে বলে তার সমর্থকরা মনে করে না।
তাদের বিশ্বাস যে যত মনোনয়ন দাবি করুক, এই আসনে হিরুই পাবেন দলীয় মনোনয়ন। একই ভাবে বিএনপি’র ক্ষেত্রে সমর্থকরা মনে করে যারা যত সংখ্যক মনোনয়নই দাবি করুক না কেন এই আসনে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব এবং নরসিংদী জেলা বিএনপির সভাপতি খায়রুল কবির খোকনই এই মনোনয়ন পাবেন। তার মনোনয়ন প্রাপ্তির ক্ষেত্রে বড় ধরনের দৃশ্যমান কোনো কারণ নেই বলে জানিয়েছে তার সমর্থকরা। ২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর নিকট তার পরাজয় জনগণের ভোটে হয়নি। ভিন্ন কারণে তিনি পরাজিত হয়েছিলেন। অপরদিকে এই আসন পুণরুদ্ধার করতে চার চার বার নির্বাচিত সাবেক সংসদ সদস্য মরহুম সামসুদ্দিন আহমেদ এছাক এর মনোনয়ন প্রত্যাশী জ্যেষ্ঠপুত্র মো. হারুন অর রশীদকে মনোনয়ন দিলে তার পিতার জনপ্রিয়তা কাজে লাগতে পারে বলে এছাক অনুসারী ও বিএনপি মূল ধারার নেতা কর্মীরা মনে করেন।
নরসিংদী-২ পলাশ আসনে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ড. আব্দুল মঈন খান। এই আসনে বিএনপির যতজন প্রার্থীই মনোনয়ন দাবি করুক দলের একজন নীতি নির্ধারক হিসেবে তিনি যে এই আসন থেকে মনোনয়ন পাবেন এতে বিএনপি’র নেতাকর্মীরা নিশ্চিত। তবে এই আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী সংখ্যা কমবেশি পাঁচজন। দলীয় সমর্থকরা এই আসনে সাবেক এমপি ডাক্তার আনোয়ারুল আশরাফ খান দিলীপ মনোনয়ন পাবেন বলে আশা পোষণ করলেও মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে কে পাবেন তা এখনো নিশ্চিত নয়। ২০০৮ সালে এই আসনে মহাজোটের প্রার্থী ছিলেন জাসদের (ইনু) জায়েদুল কবির। কিন্তু আওয়ামী লীগ চতুরতার আশ্রয়ে সাবেক এমপি ডাক্তার দিলিপের ছোট ভাই কামরুল আশরাফ খান পোটনকে স্বতন্ত্র প্রার্থী বানিয়ে এমপি বানিয়ে ফেলে। এই ঘটনা নিয়ে জাসদ প্রার্থী জায়েদুল কবির অনেক অভিযোগ করেও কোন ফল লাভ করতে পারেনি।
নরসিংদী-৩ শিবপুর আ’লীগের প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন একাধিক প্রার্থী। ২০০৮ সালে এই আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী জহিরুল হক মোহনের সাথে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হন যুবলীগ নেতা মো. সিরাজুল ইসলাম মোল্লা। ভোট যুদ্ধে তিনি জহিরুল হক মোহন কে পরাজিত করে এমপি নির্বাচিত হন। পরে তিনি আওয়ামী লীগে যোগদান করেন। নির্বাচনের পর আওয়ামী লীগ তাকে আপন করে নেয়ায় তার সমর্থক নেতাকর্মীদের মধ্যে বদ্ধমূল ধারণা হয়েছে যে, এ বছর সিরাজুল ইসলাম মোল্লাই শিবপুর আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাবেন। এই আসনে বিএনপির প্রার্থী সংখ্যা হচ্ছে ৬ জন। এরমধ্যে রয়েছেন জেলা বিএনপির সাধারণ স¤পাদক আলহাজ্ব তোফাজ্জল হোসেন মাস্টার, বেগম খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া, শিবপুর উপজেলা বিএনপির আহবায়ক আবুল হারিছ রিকাবদার, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাধারণ স¤পাদক আকরামুল হাসান এবং নরসিংদী সদর উপজেলা পরিষদের দু’বার নির্বাচিত চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মনজুর এলাহী। বিএনপি’র একজন কেন্দ্রীয় নেতা জানিয়েছেন, শিবপুর আসনটি হচ্ছে বিএনপি’র বহিস্কৃত সাবেক মহাসচিব আব্দুল মান্নান ভূঁইয়ার আসন। এই আসনে অনেক যোগ্য নেতা রয়েছেন। যারা মনোনয়ন চেয়েছেন তারা সকলেই বিএনপির ত্যাগী নেতা। এ আসনটিতে এ বছর বিশেষ বিবেচনায় একজন জনপ্রিয় প্রার্থী কে মনোনয়ন দেয়া হবে। যিনি অতীতে কয়েক বার নির্বাচিত হয়েছেন। এলাকায় তার ব্যাপক জনপ্রিয়তা রয়েছে। দলের চূড়ান্ত পর্যায় থেকে এই আসনের প্রার্থীর নাম আগেই বলে দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।
নরসিংদী-৪ মনোহরদী-বেলাব আসনে আওয়ামী লীগের একাধিক প্রার্থী থাকলেও এ বছর বর্তমান এমপি এডভোকেট নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন যে মনোনয়ন পাবেন, এতে তার নেতাকর্মী ও সমর্থকরা একেবারে নিশ্চিত। এই আসনে আওয়ামীলীগের অন্যান্য প্রত্যাশীদের মধ্যে রয়েছেন মনোহরদী উপজেলা চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম খান বীরু, ডাক্তার আব্দুর রউফ সরদার, কর্ণেল আব্দুর রউফ, আসলাম সানী, কাজী মাজহারুল ইসলাম, নাজমুল হক, ওসমান গনি, ড. রইছ উদ্দিন আহমেদ ও হেলাল উদ্দিন প্রমুখ। বিএনপির প্রত্যাশীদের মধ্যে রয়েছেন সাবেক এমপি সরদার সাখাওয়াত হোসেন বকুল, বিএনপির মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক স¤পাদক লে. কর্ণেল (অবসরপ্রাপ্ত) জয়নুল আবেদিন, বেলাব উপজেলা চেয়ারম্যান আহসান হাবিব বিপ্লব, ছাত্রদল নেত্রী সেলিনা সুলতানা নিশিতা, জাকির হোসেন প্রমূখ। এ আসনে উল্লেখযোগ্য প্রার্থীর মধ্যে রয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক স¤পাদক লে. কর্ণেল (অব.) জয়নূল আবেদিন এবং সাবেক এমপি সরদার সাখাওয়াত হোসেন বকুল। মনোনয়ন প্রাপ্তির ক্ষেত্রে এই দু’জনের মধ্যেই যে কোন একজন মনোয়ন পাবেন এতে কোন সন্দেহ নেই বলে জানিয়েছেন দলের নেতাকর্মীরা। তবে এক্ষেত্রে সরদার সাখাওয়াত হোসেন বকুলের সম্ভাবনা বেশি বলে জানিয়েছেন তার সমর্থকরা। সরদার সাখাওয়াত হোসেন বকুল ছিলেন সংস্কারবাদী নেতা মান্নান ভূঁইয়ার অনুসারী। সে কারণে তাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছিল। কিন্তু দলের প্রতি তার একাগ্রতার কারণে বিএনপি’র হাইকমান্ড তার বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করে নেয়। সরদার বকুলের সমর্থকরা জানিয়েছে মনোহরদী-বেলাব আসনটি পেতে হলে এই মুহূর্তে সর্দার বকুলের কোন বিকল্প নেই। তারা বলেন শুধু ভোট যুদ্ধ নয়, আওয়ামী লীগের সাথে জিততে হলে আরো অনেক পারিপার্শ্বিক যুদ্ধ আছে সে যুদ্ধে টিকে থাকতে হবে। এক্ষেত্রে সরদার বকুল এখন সবচাইতে উপযুক্ত ভোটযোদ্ধা। এই বিচারে দলের হাইকমান্ড সরদার সাখাওয়াত হোসেন বকুলকে মনোনয়ন দিবে এটা প্রায় নিশ্চিত।
নরসিংদী তথা দেশের সবচেয়ে বড় আসন হচ্ছে নরসিংদী-৫ রায়পুরা আসন। এই আসনে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের বহু সংখ্যক প্রার্থী রয়েছে। আওয়ামী লীগের বর্তমান এমপি হচ্ছেন সাবেক মন্ত্রী রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু। তার সাথে মনোনয়ন চেয়েছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এডভোকেট রিয়াজুল কবির কাওসার, আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ স¤পাদক মো. হারুন-অর-রশিদ, কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক স¤পাদক এডভোকেট শামসুল হক, ব্যারিস্টার তৌফিকুল ইসলাম, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সালাউদ্দিন আহমেদ বাচ্চু প্রমূখ। এই আসনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী কে হবেন তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা হিসেবে অনেকেই আশা করছেন যে এ বছর মনোনয়ন তারা পাবেন। তাদের সমর্থকরাও জানিয়েছে রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু অসুস্থতার কারণে শারীরিক যোগ্যতা হারিয়েছেন। তাছাড়া তার বিরুদ্ধে বড় ধরণের দৃশ্যমান অনেক অভিযোগ রয়েছে। যার কারণে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব তাকে মনোনয়ন নাও দিতে পারেন। পক্ষান্তরে রাজু সমর্থকরা জানিয়েছে, শেষ বয়সে আওয়ামী লীগ তাকে মনোনয়ন না দিয়ে সম্মানহানি ঘটাবেন না। শেষ পর্যন্ত মনোনয়ন রাজু ই পেয়ে যাবেন। এই আসনে বিএনপি প্রার্থীর সংখ্যা অনেক। এই আসনে বিএনপি প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন রায়পুরা থানা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট নেসার আহমেদ, বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নেতা ইঞ্জিনিয়ার আশরাফুল ইসলাম বকুল, নরসিংদী জেলা যুবদলের সভাপতি মহসিন হোসাইন বিদ্যুৎ, যুবদল নেতা ফজলুল রহমান প্রমূখ। এই আসনে বিএনপির মনোনয়ন কে পাবে তা বলা মুশকিল। অনেকের ধারণা ছিল এবছর এই আসনে সাবেক এমপি আব্দুল আলী মৃধাকে মনোনয়ন দেয়া হবে। কিন্তু দলের হাইকমান্ড মান্নান ভূঁইয়ার আমলের সদস্যপদ স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার না করায় তিনি মনোনয়ন দাবি করতে পারেননি। যার ফলে এ বছর রায়পুরা আসনটি পুণরুদ্ধার করা বিনিয়োগে কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিএনপির হাজার হাজার নেতাকর্মীর ধারণা রায়পুরা আসনে যোগ্য নেতা হিসেবে সাবেক এমপি আব্দুল আলী মৃধা এখনো রায়পুরাবাসীর মনে জাগরুক রয়েছেন। বড় ধরনের কোনো গণজোয়ার সৃষ্টি না হলে আব্দুল আলী মৃধা ছাড়া রায়পুরা আসন পুণরুদ্ধার কঠিন হয়ে পড়বে।

908 total views, 4 views today