শিবপুর প্রতিনিধি: নরসিংদীর শিবপুর উপজেলার তেলিয়া ঝাউয়াকান্দি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আলতাফ হোসেন ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শাহিনুর রহমান শাহীনের বিরুদ্ধে ব্যাপক লুটপাট, দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। ফলে বিদ্যালয়টি ধংসের দ্বারপ্রান্তে। এমতাবস্থায় বিদ্যালয়টি রক্ষার জন্য তেলয়িা গ্রামের মো. বেলায়েত হোসেন নামে এক ব্যক্তি শিবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শীলু রায়ের বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন। এরই প্রেক্ষিতে এসব অভিযোগ তদন্ত করার জন্য এসিল্যান্ড সুফল চন্দ্র গোলদারকে আহবায়ক করে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করে দেন ইউএনও শীলু রায়। তদন্ত কমিটি সরজমিনে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করেছে। তদন্তে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির আর্থিক দুর্নীতি, অনিয়ম ও ক্ষমতার অব্যবহারের প্রমাণ পাওয়া গেছে। নি¤েœ অনিয়মের চিত্র তুলে ধরা হলো:
০১। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, ঢাকার ২৭.০৯.২০১৬খ্রি. তারিখের পত্র নং ৫১৪৩ অনুযায়ী তেলিয়া ঝাউয়াকান্দি উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির অনুমোদন দেয়া হয়। নতুন কমিটি অনুমোদন পাওয়ার ৩০ (ত্রিশ) দিনের মধ্যে ১ম সভা করে বোর্ডকে অবহিত করার নির্দেশনা থাকলেও প্রধান শিক্ষক বর্তমান কমিটির ১ম সভার কার্যবিবরণী প্রদর্শন করতে পারেন নি। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এবং সভাপতি ম্যানেজিং কমিটির ১ম সভা না করে বিধি বহির্ভূতভাবে বিদ্যালয় পরিচালনা করছেন মর্মে প্রতীয়মান হয়।
০২। গত ০৫/০৬/২০১৬খ্রি. তারিখের সভার কার্যবিবরণী মোতাবেক এবং তৎকালীন প্রধান শিক্ষক মো. সোলায়মান মোল্লা কর্তৃক বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা এবং দাতা সদস্যদের পক্ষে কোন লিখিত ডকুমেন্ট প্রদর্শন করতে পারেন নি।
০৩। ২০১৫ সালের জেএসসি পরীক্ষায় একজন অভিভাবক সদস্যের মেয়ে অকৃতকার্য হলেও পরবতর্তীতে তাকে বিদ্যালয়ে পূণরায় ভর্তি না করে হাজিরা খাতায় নাম দেখিয়ে বিধি বহির্ভূত ভাবে অভিভাবক সদস্য পদে ভোটার করা হয়। যা প্রবিধান পরিপন্থী ও উক্ত ব্যক্তির অভিভাবক সদস্য পদটি সম্পূর্ণ অবৈধ বলে গণ্য হয়।
০৪। গত ০৮.০৪.২০১৭খ্রি. তারিখে সিসি ক্যামেরা বাস্তবায়ন কমিটির সভার কার্যবিবরণী পর্যালোচনা করে দেখা যায়, উক্ত কমিটির আহবায়ক ও ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো. ছাদত আলী ম্যানেজিং কমিটির সভাপতিকে বিদ্যালয়ের সাধারণ তহবিল হতে ২০০,০০০/- (দুই লক্ষ) টাকা পরিশোধ করার অনুরোধ জানালেও তিনি কোন টাকা পরিশোধ করেননি মর্মে স্বীকারোক্তি প্রদান করেন। কিন্তু তদন্তকালে সিসি ক্যামেরা বাবদ কম্পিউটার বাজার নামক একটি প্রতিষ্ঠানের ২ লক্ষ ১ হাজার ৮শত ৫০ টাকা একটি ভাউচার পরিলক্ষিত হয়, যাতে টাকা গ্রহণকারীর কোন স্বাক্ষর নেই। যা ব্যাপক আর্থিক অনিয়মের সামিল।
০৫। তদন্তকালে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বিদ্যালয়ের ইউনিফর্ম তৈরী করার জন্য মোট ৭০০ (সাতশত) শিক্ষার্থীর মধ্যে প্রত্যেক ছাত্রর থেকে ৭০০ (সাতশত) টাকা এবং প্রত্যেক ছাত্রীর থেকে ১০০০/- (একহাজার) টাকা (কম-বেশী) আদায় করেন। কিন্তু এ বিষয়ে কোন কমিটি গঠন কিংবা কোন সভার কার্যবিবরণী দেখাতে পারেন নি।
০৬। জেএসসি পরীক্ষার্থীদের ফরম পূরণের জন্য বোর্ড কর্তৃক ২৫০/- (দুইশত পঞ্চাশ) টাকা নির্ধারিত থাকলেও ২০১৮ সালের জেএসসি পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে বিদ্যালয়ের রশিদের মাধ্যমে প্রধান শিক্ষক ৬০০/- (ছয়শত) টাকা করে আদায় করেন।
৭। বিদ্যালয়ের অন্যান্য শিক্ষকদের সাথে আলোচনা করে জানা যায়, শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে অডিট আসার পরে শিক্ষকদের বিভিন্ন ভয়-ভীতি দেখিয়ে প্রধান শিক্ষক এবং সভাপতি প্রত্যেক শিক্ষকদের থেকে টাকা আদায় করেন, যা বিধি বহির্ভূত।
৮। গত ৩০.০৪.২০১৮ খ্রি. তারিখের ম্যানেজিং কমিটির সভার কার্যবিবরণী মোতাবেক বিদ্যালয়ের দুটি কক্ষ নির্মাণের জন্য কোন কমিটি/ উপ কমিটি গঠন না করে প্রায় ৩,৯৩,৮৭৫/- (তিন লক্ষ তিরান্নবই হাজার আটশত পঁচাত্তর) টাকা খরচ করা হয়। কিন্তু বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এ সক্রান্ত কোন ভাইচার উপস্থাপন করতে পারেন নি। কোন প্রকার কমিটি/ কোটেশন/ টেন্ডার ছাড়া উল্লেখিত টাকার কাজ করা নিময় বহির্ভূত। এতে বিদ্যালয়ের সভাপতি এবং প্রধান শিক্ষক আইনের প্রতি অবমাননার বিষয়টি প্রতীয়মান হয়।
৯। গত ৩০.০৪.২০১৮খ্রি. তারিখের ম্যানেজিং কমিটির সভার কার্যবিবরনীতে আরও দেখা যায়, বিদ্যালয়ের দুইটি তালগাছ কেটে মোট ১১,০০০/-(এগার হাজার) টাকায় বিক্রি করা হয়। তালগাছ কাটার জন্য ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষের কোন অনুমোদন গ্রহণ করেননি যা সরকারী নিয়ম বহির্ভূত। এতে বিদ্যালয়ের সভাপতি এবং প্রধান শিক্ষকের আইনের প্রতি অবমাননার বিষয়টি প্রতীয়মান হয়।
১০। দাতা সদস্য গঠনের লক্ষে বিভিন্ন জনের কাছ থেকে সর্বমোট ৫,০০,০০০/-(পাঁচ লক্ষ টাকা) আদায় করে সোনালী ব্যাংক লিমিটেড, শিবপুর শাখায় জমা রাখা হয়। কিন্তু উক্ত টাকা জমা করার পরের দিন থেকে অর্থাৎ ০৫.০৪.২০১৮ খ্রি. ০৮.০৪.২০১৮খ্রি. ০৯.০৪.২০১৮খ্রি.১৭.০৪.২০১৮ খ্রি. তারিখে ব্যাংক হতে মোট ৪,৯২,০০০/-(চার লক্ষ বিরান্নবই হাজার টাকা) উত্তোলন করা হয়। এই টাকা কোথায় কিভাবে করা হয়েছে তার কোন ব্যাখ্যা, সভার কার্যবিবরনী কিংবা কাগজপত্রাদি পাওয়া যায়নি।
১১। ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনের জন্য চুড়ান্ত ভোটার তালিকা পর্যবেক্ষনে দেখা যায় বিদ্যালয়ের বেশ কয়েকজন ছাত্র ছাত্রীর নাম হাজিরা খাতায় থাকা সত্ত্বেও চুড়ান্ত ভোটার তালিকায় তাদের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। অর্থাৎ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি গঠনের লক্ষে প্রণীত ভোটার তালিকাটি বিধিসম্মত নয় এবং তা উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে তৈরী বলে প্রতীয়মান হয়।
উপরে উল্লেখিত বিষয়গুলোতে প্রতীয়মান হয় বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এবং ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সম্পূর্ণ অবৈধভাবে ক্ষমতার অপব্যবহার করে ম্যানেজিং কমিটি গঠনের লক্ষে পুণরায় কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। উক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক এবং ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির বিরুদ্ধে অবৈধভাবে বিদ্যালয়ের কার্যক্রম পরিচালনাসহ বিভিন্ন আর্থিক অনিয়ম প্রমাণিত হওয়ায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ এবং বর্তমান ম্যানেজিং কমিটি বাতিল করে এডহক কমিটি গঠন করার জন্য ইউএনও মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান বরাবর তদন্ত প্রতিবেদন পাঠিয়েছেন বলে জানান।
এদিকে এলাকাবাসী বিদ্যালয়টি ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য দুর্নীতিবাজ প্রধান শিক্ষক আলতাফ হোসন ও সভাপতি শাহিনুর রহমান শাহীনকে আইনের আওতায় এনে দ্রুত শাস্তি এবং এই প্রতিষ্ঠান থেকে বিতারিত করার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

310 total views, 6 views today