স্টাফ রিপোর্টার: সারা দেশের ন্যায় বাংলাদেশ পাটকল কর্পোরেশন (বিজেএমসি) নিয়ন্ত্রণাধীন শ্রমিকদের বকেয়া মজুরীসহ ৯ দফা দাবীতে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘট শুরু করেছে নরসিংদীর ইউএমসি জুটমিল ও পলাশের ঘোড়াশাল শিল্প এলাকার বাংলাদেশ জুট মিলের শ্রমিকরা। সোমবার ভোর ৬ টা থেকে এ ধর্মঘটের কারণে দুই জুটমিলে উৎপাদন বন্ধ রাখা হয়েছে। বাংলাদেশ জুট মিলের সিবিএ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক স্বাক্ষরিত এক নোটিশের মধ্য দিয়ে এ ধর্মঘট শুরু হয়। নোটিশে সরকার কর্তৃক ঘোষিত জাতীয় মজুরি ও উৎপাদনশীলতা কমিশন-২০১৫ এর রোয়েদাদ বাস্তবায়ন, সকল বকেয়া মজুরি, বেতন প্রদানসহ ৯ দফা দাবী আদায়ের লক্ষ্যে অর্নিদিষ্টকালের জন্য মিলের উৎপাদন বন্ধ রেখে প্রতিদিন বিকাল ৪টা থেকে সন্ধা ৭টা পর্ষন্ত রাজপথ-রেলপথ অবরোধ কর্মসূচী পালন করা হবে বলে জানানো হয়।
এদিকে শ্রমিকদের ১১ সপ্তাহের মজুরিসহ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন তিন মাস যাবৎ বন্ধ থাকায় মিলের প্রায় সাড়ে তিন হাজার শ্রমিক-কর্মচারী ও কর্মকর্তাগণ মানবেতর জীবন যাপন করছেন। এতে শ্রমিকরা ধর্মঘট ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে। এ সময় মিলের প্রধান ফটকের সামনে মিলের সিবিএ সভাপতি ইউসুফ সরদারের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ রাষ্ট্রায়ত্ব পাটকল সিবিএ নন-সিবিএ সম্মিলিত পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম আহবায়ক ও বাংলাদেশ জুটমিলের সিবিএ সাধারণ সম্পাদক আক্তারুজ্জামান, সিবিএ সহ-সভাপতি দেলোয়ার হোসেন, সাহেব আলী, যুগ্ম সম্পাদক হারুন অর রশিদ প্রমূখ। বক্তারা শ্রমিকদের প্রস্তাবিত মজুরি বাস্তবায়ন, শ্রমিক কর্মচারীদের বকেয়া মজুরি, শ্রমিকদের গ্রাচ্যুইটির টাকা ও পাট ক্রয়ের টাকাসহ ৯ দফা দাবী মেনে নেয়ার আহবান জানান।
কান্নাজড়িত কন্ঠে শ্রমিকরা জানান, বাজারের দোকানদাররা আমাদের বাকীতেও কোন দ্রব্য-সামগ্রী দিচ্ছে না। মজুরী না পেয়েও মিলের উৎপাদন অব্যাহত রেখেছি। পরিবার পরিজন নিয়ে কোন মতে সেহরি খেয়ে না খেয়ে রোজা রাখতে হচ্ছে আমাদের।
বাংলাদেশ জুটমিলের মহাব্যবস্থাপক মো. গোলাম রব্বানী মিলের উৎপাদন বন্ধের কথা স্বীকার করে বলেন, এ বিষয়ে বিজেএমসির সাথে কথা বলে সমাধানের পথ বের করার চেষ্টা করছি। এছাড়া দেশের অন্যতম বৃহৎ জুটমিল নরসিংদীর ইউএমসি জুটমিলেও একই দাবীতে ধর্মঘট শুরু হয়েছে। বিকাল থেকে রাজপথ অবরোধ করা হবে জানিয়েছেন শ্রমিক নেতারা।

222 total views, 3 views today