জেলা পর্যায়ের শিশু-কিশোর প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা সম্পন্ন

0
141

গ্রামীণ দর্পণ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অগ্রাধিকারে শিশুদের তথ্যপ্রযুক্তি শিক্ষায় আগ্রহী করতে সারাদেশে ৬৪ জেলায় ১৮০টি শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাবে জেলা পর্যায়ের প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা সম্পন্ন হয়েছে।
দু’দিনব্যাপী এই প্রতিযোগিতায় ৬৪ জেলা হতে প্রাথমিকভাবে ৫ হাজার ৪০০ জন এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। স্ক্র‍্যাচ ও পাইথন দুই বিভাগে এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। স্ক্র‍্যাচ প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতায় ২ হাজার ৭০০ জন এবং পাইথনে ২ হাজার ৭০০ জন অংশগ্রহণ করে। স্ক্র‍্যাচ প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতায় প্রতি তিনজন শিক্ষার্থী একটি টিম হিসেবে এবং পাইথনে প্রত্যেক শিক্ষার্থী এককভাবে অংশগ্রহণ করে।
সারাদেশে ১৮০টি শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাবে পাইথন ও স্ক্র্যাচের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় গত ১২ মে থেকে ৩০ মে পর্যন্ত। এর পূর্বে গত ১৬ ও ১৭ই এপ্রিল বাংলাদেশ কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে প্রশিক্ষকদের জন্য দু’দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। সেখানে ৩৬০ জন আইসিটি শিক্ষক এবং শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাবের কো-অর্ডিনেটররা প্রশিক্ষণে অংশ নেন। শিক্ষার্থীদের ল্যাব প্রশিক্ষণ শেষে ২ জুন এবং ৩ জুন জেলা পর্যায়ে স্ক্র‍্যাচ ও পাইথন প্রতিযোগিতা সম্পন্ন হয়। জেলাভিত্তিক প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের নিয়ে পরে ঢাকায় দু’দিনব্যাপী ‘পাইথনভিত্তিক জাতীয় ক্যাম্প’ এবং দু’দিনের ‘স্ক্র্যাচভিত্তিক জাতীয় ক্যাম্প’ আয়োজন করা হবে।
এই জাতীয় প্রতিযোগিতায় প্রাপ্ত প্রকল্পগুলোর মধ্যে থেকে সেরা প্রকল্পগুলোকে সমাপনী এবং পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে উপস্থাপন করা হবে।
সম্প্রতি ঢাকায় অনুষ্ঠিত বিজনেস প্রসেস আউটসোর্সিং (বিপিও) সামিটে প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় প্রাথমিক স্তর থেকেই দেশের শিক্ষার্থীদের আইসিটি প্রশিক্ষণের ঘোষণা দেন। এরপর দেশব্যাপী এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।
‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে তথ্যপ্রযুক্তিতে দক্ষ আগামীর জাতি গড়ার লক্ষ্যে, শিশুকিশোরদের প্রোগ্রামিংয়ে অনুপ্রেরিত করার জন্যই এই প্রতিযোগিতা। বেসিস (বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অভ্ সফটওয়্যার আন্ড ইনফরমেশন সার্ভিস) এর ইনস্টিটিউট অভ্ টেকনোলোজি এন্ড ম্যানেজমেন্ট (বিআইটিএম) এর সহায়তায় প্রথম শুরু করেছিলাম ২০১৭ সালে, তখনই ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় ৯৮টি স্কুলে তিন মাসব্যাপী প্রশিক্ষণ দিয়েছিলাম স্ক্র‍্যাচসহ বিভিন্ন বিষয়ে’, বলেছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।
সিআরআই’র সহকারী সমন্বয়ক তন্ময় আহমেদ জানান, প্রথমবারের মতো এবারই এই প্রতিযোগিতায় তৃতীয়-পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য ‘স্ক্র্যাচ’ এবং ষষ্ঠ-দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য ‘পাইথন’ রাখা হয়েছে। সাধারণত প্রতি বছর হাই স্কুল প্রোগ্রামিং কন্টেস্টে ‘সি’ ও ‘সি++’ ভিত্তিক কিছু কুইজ এবং কিছু প্রবলেম সমাধান করার জন্য দেওয়া হয়ে থাকে। সূত্র: পিআইডি

342 total views, 5 views today

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here