ইসলাম ধর্মের মহিমা ও আদর্শ প্রচার করেছেন বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম

0
210

॥ মো. আসাদুজ্জামান ॥

আমাদের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম, তাঁর ইসলামি গান ও সুরের মধ্য দিয়ে ইসলাম ধর্মের মহিমা, আদর্শ প্রচার করে গেছেন। তাঁর রচিত ইসলামী গান গুলোতে পাওয়া যায় গভীর ভাব-ভক্তি, রাসুলের প্রতি প্রেম-ভালোবাসা, আল্লাহর অশেষ দয়ার গুণগান ও সমাজ চেতনার প্রকাশ। আমাদের প্রিয় নবী হযরত মোহাম্মদ (সা:) এর জন্মগ্রহণ বা আবির্ভাব মূলক বেশ কিছু গান তিনি লিখেছেন।
যেমন:
১। তোরা দেখে যা আমিনা মায়ের কোলে, মধু পূর্নিমারই সেথা চাঁদ দোলে, যেন ঊষার কোলে রাঙা রবি দোলে ॥
২। ত্রিভুবনে প্রিয় মোহাম্মদ এলোরে দুনিয়ায়, আয়রে সাগর আকাশ বাতাস দেখবি যদি আয় ॥
৩। নূরের দরিয়া সিনান করিয়া, কে এলো মক্কায় মা আমিনার কোলে ॥
ইসলামী সংগীতে কাজী নজরুল লিখেছেন হযরত মোহাম্মদ (সা:) এর লোকান্তর প্রাপ্তি মূলক বেশ কিছু গান যেমন:
১। বহে শোকের পাথার আজি সাহারায়, নবীজী নাই উঠলো মাতম দুনিয়ায় ॥
২। আঁখি প্রদীপ এই ধরনী, গেলো নিভে ঘিরিলো তিমির, দীনের রবি মোদের নবী চায় বিদায়, সইলোনারে বেহেশ্তী দান দুনিয়ার ॥
৩। সেই রবিউল আউয়াল চাঁদ এসেছে ফিরে, ভেসে আকুল অস্ত্রু নীরে।
আজ মদিনার গোলাপ বাগে বাতাস বহে ধীওে, ভেসে আকুল অস্ত্রু নীরে ॥
৪। যেওনা যেওনা মদিনার দুলাল, হয়নি যাবার বেলা, সংসার পাথারে আজো, দুলে পাপের ভেলা ॥
হযরত মোহাম্মদ (সা:) এর আবির্ভাব ও তিরোভাব মূলক গান ছাড়াও আরো অনেক গান কাজী নজরুল ইসলাম লিখেছেন যে গুলোর মধ্যে নবীর জীবন, আদর্শ এবং মহিমা প্রকাশ পেয়েছে।
যেমন:
১। এ কোন মধুর শারাব দিলে আল্ আরাবী সাকী, নেশায় হলাম দেওয়ানা যে, রঙ্গিন হলো আঁখি ॥
২। নাম মোহাম্মদ বোল রে মন, নাম আহাম্মদ বোল, যে নাম নিয়ে চাঁদ সে তারা, আসমানে খায় দোল ॥
৩। তৌহিদের ই মূর্শিদ আমার মোহাম্মদের নাম, ঐ নাম জপলেই বুঝতে পারি, খোদায়-এ কলাম ॥
৪। রসুল নামের ফুল এনেছিরে আয় গাঁধবি মালা কে, এই মালা নিয়ে রাখবি বেঁধে আল্লাহ্ তালাকে ॥
হযরত মোহাম্মদ (সা:) এর স্মৃতি বিজড়িত স্থান-সমুহ যেমন: তাঁর জন্মভূমি, কর্মস্থল, সমাধি ইত্যাদি বিষয়ের উপর কাজী নজরুল ইসলামের অনেক গান আছে। এ ধরণের আরো কয়েকটি গানের উদাহরণ:
১। দূর আরবের স্বপন দেখি বাংলাদেশের কুটির হতে, বেহুশ হয়ে চলছি যেন, কেঁদে কেঁদে কাবার পথে ॥
২। সুদুর মক্কা-মদিনার পথে আমি রাহি মোছাফির, বিরাজে রওজা মোবারক যথা, মোর প্রিয় নবীজীর ॥
৩। আমি যদি আরব হতাম মদিনারই পথ, এই পথে মোর চলে যেতেন, নূরনবী হযরত ॥
নামাজ, রোজা, হজ্ব, জাকাত, আজান, মোনাজাত, কবর, ইত্যাদি বিষয়ের উপর কাজী নজরুল বহু গান রচনা করেন। এই ধরণের কয়েকটি গানের উদাহরণ:
১। হে নামাজী আমার ঘরে নামাজ পড়ো আজ, পেতে দিলাম তোমার চরণতলে, হৃদয় জায়নামাজ ॥
২। সকাল হলো শোনরে আজান, উঠরে শয্যা ছাড়ি, মসজিদে চল দ্বীনের কাজে, ভোল দুনিয়াদারী ॥
৩। দূর আজানের মধুর ধ্বনি, বাজে-বাজে মসজিদেরই মিনারে, একি খুশির অধির তরঙ্গ, উঠলো জেগে প্রাণের কিনারে ॥
৪। মসজিদেরই পাশে আমার কবর দিও ভাই, যেন গোরে থেকেও মোয়াজ্বিনের আজান শুনতে পাই ॥
৫। দে জাকাত, দে জাকাত, তোরা দেরে জাকাত, তোর দিল খুলবে পরে, ওরে আগে খুলুক হাত ॥
৬। ওরে ও দরিয়ার মাঝি, মোরে নিয়ে যারে মদিনায়, তুমি মূর্শিদ হয়ে পথে দেখাও ভাই, আমি যে পথ চিনিনা ॥
৭। খোদা এই গরীবের শোন মোনাজাত, দিও তৃষ্ণা পেলে ঠান্ডা পানি, ক্ষুধা পেলে লবণ-ভাত ॥
পবিত্র রমজান ও ঈদ উৎসব নিয়ে কাজী নজরুল ইসলাম লিখেছেন:
১। ও মন রমজানের ঐ রোজার শেষে এলো খুশীর ঈদ, তুই আপনাকে আজ বিলিয়ে দে, শোন আসমানী তাকীদ॥
২। নাই হলো মা বসন ভূষণ, এই ঈদে আমার, আছে আল্লাহ্ আমার মাথার মুকুট, রসুল গলার হার ॥
দশ বছর বয়সে নজরুল গ্রামের মক্তব থেকে নি¤œ প্রাথমিক পরীক্ষা পাশ করেই সংসারের চাপে মক্তবেই এক বৎসর শিক্ষকতা করেন। এই সময় অর্থপার্জনের জন্য শিক্ষকতা ছাড়াও আশেপাশের গ্রামে মোল্লাগিরি এবং হাজী পাহ্লোয়ানের মাজার শরীফের খাদেমগিরি ও মসজিদের ইমামতিও করতেন। তাঁর কন্ঠস্বর সুমধুর থাকায় তিনি আজান দিতেন। নজরুলের ইসলামী গানের বেলায় লক্ষণীয় বৈশিষ্ট্য হচ্ছে কথা ও সুরের সরলতা, তাই জনপ্রিয়তাও লাভ করেছেন অসামান্য। -লেখক: কন্ঠ শিল্পী ও গীতিকার, বাংলাদেশ বেতার ও বাংলাদেশ টেলিভিশন, সংগীত প্রশিক্ষক, বাংলাদেশ শিশু একাডেমী, নরসিংদী।

211 total views, 1 views today

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here