1. grameendarpan@gmail.com : admi2017 :
শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭:২৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
শিবপুরে স্বামী-স্ত্রীর দ্বন্দে স্ত্রীসহ ৩ জনকে হত্যা আগামী নির্বাচন হবে জিহাদ ও মানুষের অধিকার আদায়ের নির্বাচন –ইঞ্জিনিয়ার শফিকুল ইসলাম তালুকদার পলাশে যত্রতত্র এলপিজি গ্যাস ব্যবসা রোধে ডিলারশিপদের অঙ্গিকার মাধবদী থানা পুলিশের হস্তক্ষেপে বাল্যবিবাহ বন্ধ ভূমি জটিলতা নিরোসনে বদ্ধপরিকর নরসিংদী জেলা প্রশাসন এমপির বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবাদে নরসিংদীতে সংবাদ সম্মেলন মাধবদী থানা পুলিশের হস্তক্ষেপে বাল্যবিবাহ বন্ধ শিবপুরে রাস্তা নির্মাণের দাবী মনোহরদীতে শত্রুর বিষে মরল ১৫ হাজার তেলাপিয়া ঘোড়াঘাট এর ইউএনও’র উপর অনাকাঙ্খিত হামলার ঘটনায় নরসিংদী জেলা প্রশাসনের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে
শিরোনাম :
শিবপুরে স্বামী-স্ত্রীর দ্বন্দে স্ত্রীসহ ৩ জনকে হত্যা আগামী নির্বাচন হবে জিহাদ ও মানুষের অধিকার আদায়ের নির্বাচন –ইঞ্জিনিয়ার শফিকুল ইসলাম তালুকদার পলাশে যত্রতত্র এলপিজি গ্যাস ব্যবসা রোধে ডিলারশিপদের অঙ্গিকার মাধবদী থানা পুলিশের হস্তক্ষেপে বাল্যবিবাহ বন্ধ ভূমি জটিলতা নিরোসনে বদ্ধপরিকর নরসিংদী জেলা প্রশাসন এমপির বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবাদে নরসিংদীতে সংবাদ সম্মেলন মাধবদী থানা পুলিশের হস্তক্ষেপে বাল্যবিবাহ বন্ধ শিবপুরে রাস্তা নির্মাণের দাবী মনোহরদীতে শত্রুর বিষে মরল ১৫ হাজার তেলাপিয়া ঘোড়াঘাট এর ইউএনও’র উপর অনাকাঙ্খিত হামলার ঘটনায় নরসিংদী জেলা প্রশাসনের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে

পলাশে অস্তিত্ব সংকটে হাজারও তাঁত শিল্প দাদন ব্যবসায়ীদের ঋণের চাপে দিশেহারা তাঁতিরা

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২০
  • ৪৯ বার

আল-আমিন মিয়া,পলাশ প্রতিনিধিঃ নরসিংদীর পলাশ উপজেলার ডাঙ্গা ইউনিয়নে অস্তিত্ব সংকটে পড়ে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে হাজারও তাঁত শিল্প । আর্থিক সংকট, কাঁচামালের অভাব ও প্রয়োজনীয় পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে বিলুপ্তির পথে চলে এসেছে এ অঞ্চলের তাঁত শিল্প। এছাড়া সুতার দাম বৃদ্ধি ও কারিগরের অভাবে তাঁত শিল্পের ভবিষ্যৎ নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে এখানকার তাঁতিদের মাঝে। একদিকে উৎপাদন খরচের চেয়ে বাজার মূল্য কম হওয়ায় কাপড় তৈরি করে পোষাতে পারছেন না অধিকাংশ তাঁতিরা। অন্যদিকে মহাজনদের চরা সুদের টাকা পরিশোধের তাগাদায় মরার ওপর খাঁড়ার ঘাঁ হয়ে দাড়িয়েছে এখানকার তাঁতিদের মাঝে। তার মধ্যেই দেশে করোনা সংকট নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে কাপড় তৈরির কাজ বন্ধ থাকায় মানবেতর জীবন-যাপন করছে এখানকার তাঁতিরা। এরমধ্যে দাদন ব্যবসায়ীদের চরা সুদের টাকা পরিশোধ করার চাপে দিশেহারা তাঁতিরা। সরকারি কোনো ঋণ না পেয়ে দাদন ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চরা সুদে ঋণ নিয়ে নিঃস্ব হয়ে গেছে অনেকেই। কেউ বা আবার বাঁচার তাগিদে বাপ-দাদার এই পেশাকে জড়িয়ে ধরে কষ্টে দিন-যাপন করে যাচ্ছেন। উপজেলার ডাঙ্গা ইউনিয়নের কেন্দুয়াব, তালতলা, জয়নগর, হাসানাটাসহ কয়েক গ্রাম জুড়ে রয়েছে হাজারও তাঁতপল্লী।

রাত-দিন মেশিনের খট খট শব্দে মুখরিত হয়ে থাকা পুরো গ্রাম চুপচাপ নিঃশব্দে রূপ নিয়েছে। যেখানে প্রায় ২৪ ঘন্টাই ব্যস্ততার মধ্যে সময় পার করতো এখানকার তাঁতিরা। কথা বলার কোনো ফুরসতও যেনো ছিল না তাদের। সেখানে করোনা সংকটে পড়ে কাজ-কর্ম বন্ধ হয়ে থাকায় মানবেতর জীবন-যাপন করছে তারা। এরমধ্যে আবার দাদন ব্যবসায়ীদের ঋণের টাকা পরিশোধ করার চাপ, হুমকি-ধামকির মধ্যেই সময় কাটছে প্রতিনিয়ত। যেনো এসব বিষয়ে দেখার কেউ নেই। সোমবার সকালে সরেজমিনে গিয়ে তাঁত পল্লীগুলো ঘুরে দেখা যায়, রাত-দিন মেশিনের খট খট শব্দে মুখরিত হয়ে থাকা পুরো গ্রাম এখন চুপচাপ নিঃশব্দে রূপ নিয়েছে। অথচ ঈদকে সামনে রেখে এখানকার হাজারও তাঁতিরা প্রায় ২৪ ঘন্টাই ব্যস্ততার মধ্যে সময় পার করতো। ঈদ উপলক্ষে কাপড় তৈরি করে যে আয় হতো। তা থেকেই বছর শেষে মহাজন (দাদন) ব্যবসায়ীদের চড়া সুদের টাকাসহ ঋণ পরিশোধ করা হতো। এ সময় কথা হয় রাজিব মিয়া নামে এক তাঁতির সাথে। তিনি জানান, সুদখোর দাদন ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চড়া সুদে ঋণ নিয়ে কোনো রকমে টিকে রয়েছেন তাঁত শিল্পে। এক হাজার টাকায় প্রতি মাসে ১০০ টাকা করে সুদ দিতে হচ্ছে মহাজনদের । তিনি জানান, সুতার দাম বৃদ্ধি, সব সময় চাদরের চাহিদা না থাকা ও অর্থাভাবে এ পেশা থেকে অনেকেই ছিটকে পড়েছেন। যে কয়জন এ পেশায় রয়েছে তা রেওয়াজ পড়ে কষ্টের মাঝে বাপ-দাদার পেশাকে আঁকড়ে বেঁচে আছে। তারমধ্যে দেশে আবার করোনা সংকট দেখা দেওয়ায় কাপড় তৈরির কাজ-কর্ম বন্ধ। এতে করে খেয়ে না খেয়ে মানবেতর জীবন পার করছে এখানকার তাঁতিরা। আবার দাদন ব্যবসায়ীদের চড়া সুদের টাকা পরিশোধ করার জন্যও প্রতিনিয়ত মহাজনদের হুমকি-ধামকির মধ্যে রয়েছেন তারা। তিনি এ প্রতিবেককে আরও জানান, বছর শেষে ঈদকে উপলক্ষে করে তাঁত পল্লীর তাঁতিরা যে আয় করেন। তা থেকে চরা সুদ সহ মহাজন (দাদন) ব্যবসায়ীদের ঋণের টাকা পরিশোধ করে দায় মুক্ত হয়। কিন্তু বর্তমানে দেশে করোনা সংকট থাকায় দাদন ব্যবসায়ীদের টাকা পরিশোধ নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। যেকারণে এখানকার তাঁত শিল্প অনেকটা বিলুপ্তির পথে চলে গেছে। এ অবস্থায় সরকারী সহযোগীতা চান সংশ্লিষ্ট তাঁতিরা। এ ব্যাপারে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে ডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাবের উল হাই জানান, ইতিমধ্যে তাঁত পল্লীর কর্মহীন ২০ জন তাঁতিদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে প্রতিটি তাঁতির মাঝে এসব খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হবে। আর কোনো দাদন ব্যবসায়ী যদি বর্তমান সংকট মুহুর্তে ঋণের টাকা পরিশোধ করার জন্য তাঁতিদেরকে চাপ দেয়। তবে অভিযোগ পেলে প্রশাসনকে সাথে নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..