1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : news post : news post
  3. [email protected] : taifur nur : taifur nur
February 23, 2024, 6:16 pm
সর্বশেষ সংবাদ
শ্রীপুরে মহাসড়কের পাশের সাড়ে ৩ হাজার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ট্রাব অ্যাওয়ার্ড পেলেন পরিচালক পলাশ মণি দাস নরসিংদীতে প্রাইভেটকারের ধাক্কায় অজ্ঞাত এক নারী নিহত পাঁচদোনা কেন্দ্রে নকলমুক্ত পরিবেশে এসএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত মনোহরদীতে কাভার্ড ভ্যানের ধাক্কায় মোটর সাইকেল আরোহী নিহত সাস নরসিংদীর বার্ষিক বনভোজন অনুষ্ঠিত হয় গাঁজীপুরের গভীর বনে নক্ষত্রবাড়ী রিসোর্টে ভেজাল খাবার বিক্রেতাদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি দিতে হবে -আসমা সুলতানা নাসরীন বই মেলায় পাওয়া যাচ্ছে নূরুল ইসলাম নূরচানের তিন বই বেলাবতে কৃষি ব্যাংক কর্তৃক গ্রাহকদের সাথে মতবিনিমিয় সভা অনুষ্ঠিত মাধবদীতে ১৩ কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

করোনা ঠেকানোর নামে ‘যুদ্ধাপরাধ’ করছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী

প্রতিবেদকের নাম
  • পোস্টের সময় Thursday, April 30, 2020
  • 412 বার দেখা হয়েছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে বিশেষ ক্ষমতা পেয়েছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। আর সেই ক্ষমতা ব্যবহার করে দেশটির জাতিগত সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে সেনাবাহিনী ‘যুদ্ধাপরাধ’ করছে। মিয়ানমারে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক বিশেষ দূত ইয়াংহি লি মঙ্গলবার সিএনএনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এসব তথ্য দিয়েছেন।
রাখাইনে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ওপর নির্যাতন চালানোর জন্য মিয়ানমার সেনাবাহিনীকে অভিযুক্ত করেছেন লি। রাখাইনের স্বাধীনতাকামী সংগঠন ‘রাখাইন আর্মি’র সঙ্গে দীর্ঘদিন সংঘাত চলছে সেনাবাহিনীর।
লি অভিযোগ করেছেন, রাখাইনে শত শত বাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। বৌদ্ধদের একটি আশ্রমে আক্রমণ করে সেনাবাহিনী। শত শত মানুষকে গ্রেপ্তার ও নির্যাতন করা হয়েছে। অনেককে শিরোশ্ছেদ করা হয়েছে। আমরা তাদের রাখাইনের বাসিন্দা হিসেবে চিহ্নিত করেছি।
এ ঘটনাকে ‘মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধ’ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন লি। এসব ঘটনা আন্তর্জাতিক আইনের গুরুতর লঙ্ঘন।
সেনাবাহিনীর কর্মকাণ্ড বিষয়ে লির অভিযোগের বিষয়ে জানতে মিয়ানমার সরকারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছে সিএনএন।
লি বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর হাতে ‘গুরুত্বপূর্ণ’ রাজনৈতিক ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। গত মার্চে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকজন সামরিক কর্মকর্তা ও সেনা প্রভাবিত মন্ত্রীকে করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কমিটিতে জায়গা দেওয়া হয়। এতে করে সেনাবাহিনীর ক্ষমতা আরও বেড়ে গেছে।
এই অতিরিক্ত ক্ষমতাবলেই মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ‘যুদ্ধাপরাধ’র মতো কর্মকাণ্ড ঘটানোতে দ্বিগুণ উৎসাহ পাচ্ছে বলে মনে করেন লি।
লির মন্তব্যের সঙ্গে মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচের একটি প্রতিবেদনের কথা পুরোপুরি মিলে যায়। হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বলেছে, সেনাবাহিনী ও তাদের সহযোগী অং সাং সু চির বেসামরিক সরকার করোনাভাইরাস সংক্রান্ত কড়াকড়ির সুযোগ নিচ্ছে। এই সুযোগে সেনাবাহিনী আরাকান আর্মিকে নির্মূল করতে মাঠে নেমেছে। তবে এ দুই পক্ষের সংঘর্ষের মাঝে পড়ে বহু বেসামরিক মানুষ যে প্রাণ হারাচ্ছেন, যা তারাই পাত্তাই দিচ্ছে না।
লি অবশ্য স্বীকার করেছেন, আরাকান আর্মির হাতেও নিগ্রহের শিকার হচ্ছেন রাখাইনের অনেক বেসামরিক মানুষ।
প্রসঙ্গত, মিয়ানমারে দেড় শতাধিক মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ছয় জনের।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো দেখুন