1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : news post : news post
  3. [email protected] : taifur nur : taifur nur
April 12, 2024, 10:26 am

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে পুলিশের করা মামলায় নরসিংদীর ৩ সাংবাদিক গ্রেফতার

প্রতিবেদকের নাম
  • পোস্টের সময় Friday, May 1, 2020
  • 381 বার দেখা হয়েছে

গ্রামীণ দর্পণ ডেস্ক: নরসিংদীতে পুলিশের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের একটি মামলায় স্থানীয় তিন সাংবাদিককে গ্রেফতার করা হয়েছে। নরসিংদী শহর, মাধবদী ও মনোহরদীতে পুলিশের তিনটি পৃথক অভিযানে নিজ নিজ বাড়ি থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) রাতে পলাশের ঘোড়াশাল ফাঁড়ির ইনচার্জ জহিরুল আলম বাদী হয়ে পলাশ থানায় ওই তিন সাংবাদিককে আসামি করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেন। পরে তাদেরকে শুক্রবার (১ মে) সকালে তরিঘড়ি করে জামিন আবেদনের সুযোগ না দিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজেতে প্রেরণ করে। অভিযোগ একটি প্রতিবেদনে ওই পুলিশ কর্মকর্তার সঙ্গে কথা না বলেই তার বরাত দিয়ে বক্তব্য প্রকাশ করা ও তা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করার অভিযোগে মামলাটি করা হয়।
গ্রেফতারকৃত তিন সাংবাদিক হলেন, স্থানীয় দৈনিক গ্রামীণ দর্পণের বার্তা সম্পাদক (দায়িত্ব থেকে অব্যাহতিপ্রাপ্ত) রমজান আলী প্রামাণিক (৪৫), একই পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার শান্ত বণিক (৩৫) (প্রকৃতপক্ষে প্রশাসনিক ব্যবস্থাপক হিসেবে কর্মরত) ও অনলাইন পোর্টাল নরসিংদী প্রতিদিনের প্রকাশক ও সম্পাদক খন্দকার শাহিন (৩২)। রমজান আলী প্রামাণিকের বাড়ি নরসিংদী শহরে, শান্ত বণিকের বাড়ি মনোহরদীতে আর খন্দকার শাহিনের বাড়ি মাধবদীতে।
মামলার বিবরণে বলা হয়, দৈনিক গ্রামীণ দর্পণ পত্রিকার অনলাইন সংস্করণে ‘ঘোড়াশালে চুরির অপবাদে যুবককে পিটিয়ে হত্যা পুলিশের’ এবং নরসিংদী প্রতিদিন নামের একটি অনলাইনে ‘ঘোড়াশাল ফাঁড়িতে নেওয়ার পর মৃত্যু, অভিযোগ পিটিয়ে হত্যা করেছে পুলিশ’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। প্রতিবেদন দুটোতে ঘোড়াশাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ জহিরুল আলমের বরাত দিয়ে একটি বক্তব্য প্রকাশিত হয়। অথচ জহিরুল আলমের দাবি, তিনি এমন কোনও বক্তব্য দেননি। মুঠোফোনে বা সরাসরি ওই সাংবাদিকদের সঙ্গে তার কোনও যোগাযোগও হয়নি। তার বরাত দিয়ে এমন মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন বক্তব্য প্রকাশিত হওয়ায় তার ওপর জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ক্ষুব্ধ হন। তাই নিজের সম্মান বাঁচাতে ওই তিন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে তিনি মামলাটি করেন।
পুলিশের বক্তব্য, গত ২৯ এপ্রিল বিকালে নরসিংদীর পলাশের ঘোড়াশালে পুলিশের হেফাজত থেকে ফিরে যাওয়ার পর হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মান্নান (৪০) নামের এক অটোরিকশা চালকের মৃত্যু হয়। নিহতের স্বজনদের অভিযোগ, চলমান লকডাউনের সময় সিএনজি নিয়ে সড়কে বের হওয়ায় মান্নানকে চুরির অপবাদ দিয়ে ঘোড়াশাল ফাঁড়ির পুলিশ পিটিয়ে হত্যা করেছে। এতে ক্ষুব্ধ ও উত্তেজিত হয়ে নিহতের স্বজন ও স্থানীয় অটোরিকশা চালকরা সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন।
এ ঘটনায় পুলিশের বক্তব্য ছিল, মান্নান হার্টের রোগী ছিলেন, তাকে সড়কে আটকের পর ছেড়ে দেওয়া হয়। পরে তিনি সিএনজি চালিত অটোরিকশা নিয়ে গাজীপুরের কালীগঞ্জের দক্ষিণ খলাপাড়া এলাকায় গিয়ে অসুস্থ হন। পরে সন্ধ্যার দিকে তিনি মারা যান।
মামলায় উল্লেখ করা হয়, ঘোড়াশাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ জহিরুল আলমের সঙ্গে কথা না বলে ভুল বক্তব্য প্রকাশ ও প্রচার করায় তিনি বাদী হয়ে তিন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেছেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পলাশ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হুমায়ুন কবির

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো দেখুন