1. grameendarpan@gmail.com : admi2017 :
রবিবার, ১২ জুলাই ২০২০, ০৩:৩১ অপরাহ্ন

প্রেসক্লাব সাধারন সম্পাদক মাজহারুল পারভেজ এর ফেসবুক লাইভ এ উদ্বুদ্ধ হয়ে ৫টি অক্সিজেন সেপারেটর দেয়ার ঘোষণা দিলেন তারেক আহমেদ

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২৬ জুন, ২০২০
  • ৩৩ বার

বিশেষ প্রতিনিধি: চিকিৎসকদের লাইভ আলোচনা দেখে ৫টি অক্সিজেন সেপারেটর দেয়ার ঘোষণা দিলেন তারেক আহমেদ।
করোনা আক্রান্ত রোগীদের জন্য স্বল্প মূল্যে চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে অক্সিজেন সেপারেটরের প্রয়োজনীয়তার কথা গুরত্বের সাথে তুলে ধরলেন তিন চিকিৎসক।
নরসিংদী প্রেস ক্লাবের সাধারন সম্পাদক মো: মাজহারুল পারভেজ এর আয়োজনে ও সঞ্চালনায় ফেইসবুক লাইভ আলোচনায় অংশ গ্রহণ করেন বিএমএ’র নরসিংদীর সভাপতি ডা: মোজাম্মেল হক কমল, ঢাকা মেডিকেল কলেজের সার্জারী বিভাগের এসোসিয়েট প্রফেসর ডা: সুবিনয় কৃষ্ণ পাল ও ঢাকা মহনগর জেনালে হাসপাতালের রেসিডেন্ট ফিজিসিয়ান ডা: মো: আশরাফুল হাসান মানিক, প্রথম আলোর নরসিংদী প্রতিনিধি প্রণব কুমার দেবনাথ এবং অনলাইনে যুক্ত ছিলেন বিশিষ্ট চিকিৎসক গোলাম দস্তগীর।

ডা: সুবিনয় কৃষ্ণ পাল এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, আমার জানামতে নরসিংদীর সরকারী বেসরকারী কোন হাসপাতালেই হাইফ্লো অক্সিজেন ব্যবস্থা নাই। নরসিংদী জেলা হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেন সাপ্লাইয়ের যে চিন্তাভাবনা চলছে তা যত দ্রুত করা যায় ততই মঙ্গল। কিন্তু যতক্ষণ করা না যায় ততক্ষণ এর বিকল্প ব্যবস্থাও রয়েছে। বাতাশ থেকে অক্সিজেন সংগ্রহ করে রোগীর শরীরে দেয়া যায়। এটা জীবনকে রক্ষা করে। ৫ লিটারের ৫ থেকে ১০ অক্সিজেন সেপারেটর নরসিংদীর জন্য এ মূহর্তে খুব বেশী প্রয়োজন। সেখানে অক্সিজেন সিলিন্ডার ও লাগবে না এবং সেন্ট্রাল অক্সিজেনেরও প্রয়োজন নেই। ঢাকায় অনেকে বাসা বাড়িতেও এ সেপারেটর ব্যবহার করা হচ্ছে। এই সেপারেটরের দাম সর্বসাকুল্যে লক্ষাধিক টাকা হতে পারে বলে জানান চিকিৎসকরা।
জীবন বাঁচাতে অক্সিজেন সেপারেটরের প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করে দ্রুত সংযোজন করার বিষয়ে চিকিৎসকগণ একমতও প্রকাশ করেন। প্রায় প্রতিদিনই জেলার হাসপাতালগুলোতে শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে তাদেরকে ঢাকায় পাঠাতে হয় এবং অনেক সময় ঢাকা নিতে নিতেই রোগী মারা যাচ্ছে। এ অবস্থায় স্বল্প ব্যয়ে এই সেপারেটর মেশিন খুবই কার্যকর এমন আলোচনা চলা কালে নরসিংদী সরকারী কলেজের সাবেক ভিপি তারেক আহমেদ ৫টি সেপারেটর মেশিন প্রদান করার কথা লিখিতভাবে জানান।
এ সময় বিএমএ’র নরসিংদীর সভাপতি ডা: মোজাম্মেল হক কমল তারেক আহমদের মহতি উদ্যেগকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, এ মেশিন কিভাবে গ্রহণ ও হাসপাতালগুলোতে সংযোজন করা হবে এ ব্যাপরে সিভিল সার্জনসহ জেলার উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে আলোচনা করে দ্রুত কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
কমল আরো বলেন, করোনাকালীন সময়ে রোগীদের সেবা দেয়ার জন্য জেলা সদরে অবস্থিত প্রাইম ও হলিক্রিসেন্ট হাসপাতাল দুটি চিকিৎসা সেবা দিতে প্রস্তুত ছিল। কিন্তু সরকারী নীতিমালা না থাকায় তা ব্যবহার করা যাচ্ছেনা। ডা: কমলের এ বক্তব্যের প্রেক্ষিতে ডা: আশ্রাফুল হাছান মানিক দ্বিমত পোষণ করে বলেন, অবশ্যই সরকারী নীতিমালা আছে। যদি নীতিমালা না-ই থাকত তাহলে ঢাকার আনোয়ার খান মডেল ও ইমপাল্স হাসপাতাল এ সেবার আওতায় আসল কেমন করে?
ডা: গোলাম দস্তগীর মহতি উদ্যেগের জন্য তারেক আহমেদকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে লিখেন এভাবে নরসিংদীবাসী এগিয়ে আসলে জেলার সকল সমস্যা সহজভাবে উত্তোরন করা সম্ভব হতো।
তবে এ বিষয়টি রাতেই শিল্প মন্ত্রী এড. নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন ও সিভিল সার্জন ডা: মোহাম্মদ ইব্রাহীম টিটনকে অবহিত করা হয়েছে বলে জানা গেছে।
উল্লেখ, সাইফুল ইসলাম নামে এক ফেসবুক ইউজার তার কমেন্টে লিখেন, মাজহারুল পারভেজ আমার দেখা একজন সৃজনশীল সাংগঠনিক শৈল্পিক মানুষ, বিচক্ষণ সাংবাদিক নেতা, গণমাধ্যম কর্মীদের শেষ আশ্রয়স্থল। যে মানুষটা সবসময় সংবাদ-সংবাদকর্মী ও প্রিয় নরসিংদীকে নিয়ে ভাবেন। যিনি নরসিংদী জেলা প্রেসক্লাবের পাশাপাশি বিভিন্ন উপজেলা সকল সাংবাদিকদের সুসংগঠিত ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ উপহার দিতে ঐকান্তিক চেষ্টা করে যাচ্ছেন। যে মানুষটা বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে সকল সাংবাদিকদের খোঁজ খবর নিয়ে পাশে থাকার সদিচ্ছা এবং সহোযোগিতায় হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন, নরসিংদীর বাতিঘর এর স্বপ্নদ্রষ্টা, জেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল পারভেজ ভাই এর জন্য শুভকামনা অফুরান।
ভালো থাকুক প্রিয় মানুষগুলো।ভালো থাকুক বাংলাদেশ। জয় হোক মানবজাতির।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..