1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : news post : news post
  3. [email protected] : taifur nur : taifur nur
February 23, 2024, 4:43 pm
সর্বশেষ সংবাদ
ট্রাব অ্যাওয়ার্ড পেলেন পরিচালক পলাশ মণি দাস নরসিংদীতে প্রাইভেটকারের ধাক্কায় অজ্ঞাত এক নারী নিহত পাঁচদোনা কেন্দ্রে নকলমুক্ত পরিবেশে এসএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত মনোহরদীতে কাভার্ড ভ্যানের ধাক্কায় মোটর সাইকেল আরোহী নিহত সাস নরসিংদীর বার্ষিক বনভোজন অনুষ্ঠিত হয় গাঁজীপুরের গভীর বনে নক্ষত্রবাড়ী রিসোর্টে ভেজাল খাবার বিক্রেতাদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি দিতে হবে -আসমা সুলতানা নাসরীন বই মেলায় পাওয়া যাচ্ছে নূরুল ইসলাম নূরচানের তিন বই বেলাবতে কৃষি ব্যাংক কর্তৃক গ্রাহকদের সাথে মতবিনিমিয় সভা অনুষ্ঠিত মাধবদীতে ১৩ কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক নবীনগরের সিএনজি ও অটো রিক্সা থেকে প্রকাশ্যে চাঁদাবাজি (জিপি তোলা) বন্ধ ঘোষণা

নরসিংদীতে মেঘনার ভাঙনের কবলে ৭ গ্রাম

প্রতিবেদকের নাম
  • পোস্টের সময় Tuesday, July 21, 2020
  • 452 বার দেখা হয়েছে

গ্রামীণ দর্পণ ডেস্ক: নরসিংদীতে মেঘনা নদীর ভাঙনের কবলে পড়েছে চরাঞ্চলের চার ইউনিয়নের সাতটি গ্রাম। প্রতি বছরই মেঘনার গর্ভে বিলীন হচ্ছে এসব গ্রামের ফসলি জমি, রাস্তাঘাট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কবরস্থানসহ বসত ঘর-বাড়ি। তবে, বছরের পর বছর ধরে চলা এসব ভাঙনে মানুষ ঘর-বাড়ি হারিয়ে নিঃস্ব হলেও ভাঙন রোধে কোনো স্থায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না।
স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, রায়পুরা উপজেলার চরাঞ্চলের আট ইউনিয়নের মধ্যে চারটিই মেঘনা নদীর ভাঙনের কবলে। তার মধ্যে চাঁনপুর, চরমধুয়া, মির্জারচর ও শ্রীনগর ইউনিয়ন বছরের পর বছর ভাঙনের কবলে পড়ে বিলীন হচ্ছে শত শত একর ফসলি জমি, রাস্তাঘাট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বসত ঘর-বাড়ি।
গত কয়েক দিন ধরে অব্যাহত মেঘনা নদীর ভাঙন শুরু হয়েছে চরমধুয়া ইউনিয়নের বীর চরমধুয়া গ্রামে। এতে করে এই গ্রামের প্রায় ২০/২৫টি ঘরবাড়ি বিলীন হয়ে গেছে। ফসলি জমি, মসজিদ, ঈদগাহ ও কবরস্থান ভাঙনে বিলীন হওয়ার উপক্রম হয়েছে। ইতোমধ্যে মেঘনার করাল গ্রাসে সম্পূর্ণ বিলীন হয়ে যাওয়ায় অন্তত শতাধিক পরিবার নিঃস্ব হয়ে পড়েছে। ফলে স্থানীয় গ্রামবাসী আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন।
নদী ভাঙনের ফলে হুমকির মুখে আছে এই গ্রামের ঐতিহ্যবাহী বীর চরমধুয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসা, বীর চরমুধয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টিও। এর আগে মেঘনায় বিলীন হয়েছে গেছে একই ইউনিয়নের দড়িহাটি গ্রামের শতাধিক বাড়িঘর। এছাড়া বিলীন হয়ে যাচ্ছে গ্রামের একটি ঐতিহ্যবাহী কবরস্থান, গাছপালা, রাস্তাঘাট, বহুআবাদি জমিসহ বিভন্ন স্থাপনা। ভাঙনে গ্রামের একমাত্র বড় কবরস্থানের বহুসংখ্যক কবর বিলীন হয়ে গেছে আগেই। গ্রামের মানুষ শত চেষ্টা করেও কবরস্থান রক্ষা করতে পারছে না।
স্থানীয়রা জানান, এ ভাঙন থেকে রক্ষার জন্য এলাকার লোকজন চরমধুয়া ইউনিয়নের পশ্চিম পাশ দিয়ে একটি বেড়িবাঁধ নির্মাণের দাবি জানিয়ে আসছিল। এ প্রেক্ষিতে ২০১৪ সালে সাবেক মন্ত্রী রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজুর উদ্যোগে বীর চরমধুয়া গ্রামে ৯৭ মিটার লম্বা একটি বেড়িবাঁধ নির্মাণ করা হয়। তখন স্থানীয়রা বেড়িবাঁধটি আরো ছয়শ’ মিটার বাড়িয়ে নির্মাণ করার দাবি জানিয়েছিল। কিন্তু সংশ্লিষ্ট দপ্তর এ দাবি আমলে নেয়নি। ফলে প্রতি বছরেই বর্ষা মৌসুমে নদী ভাঙন দেখা দেয়। চলতি বছর মেঘনায় পানি বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গেই বীর চরমধুয়া গ্রামে ভাঙন দেখা দিয়েছে।
এলাকাবাসী জানায়, প্রতি বছর বর্ষার পানি বাড়ার সাথে সাথে তীব্র ভাঙন শুরু হয়। ইতোমধ্যে চরমধূয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী আজিজুল হকের পুরো বাড়িটি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এছাড়াও গত কয়েক দিনে অব্যাহত ভাঙনে আরো ২০টি ঘর নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এভাবে প্রতি বছর নদী ভাঙনের ফলে গত দুই বছরে নদীতে বিলীন হয়ে গেছে ২৫০টিরও বেশি বাড়ি-ঘর।
বীর চরমধূয়া গ্রামের কাজী আজিজুল হকের মেয়ে রোকসান বেগম জানান, এখানে তার জন্মভূমি। মেঘনা করাল গ্রাসে তার পৈত্রিক ভিটা চলে গেছে। পিতা কাজী আজিজুল হক এই ইউনিয়নের চার বারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন। আজ তার শেষ স্মৃতিটুকুও নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেলো। দ্রুত এখানের ভাঙন ঠেকাতে না পারলে পুরো গ্রামটি বিলীন হয়ে যাবে।
ইয়াসমিন বেগম নামের এক বৃদ্ধা কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘এক ঘণ্টা আগেও আমার সব কিছু ছিল। মুহূর্তের মধ্যে ২০-২২ শতাংশ জায়গা আর গরুসহ গোয়ালঘর নদীগর্ভে তলিয়ে গেছে। সবকিছু হারিয়ে আমি এখন নিঃস্ব।’ চরমুধুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম শিকদার জানান, মেঘনা নদীর ভাঙন ঠেকাতে জরুরি ভিত্তিতে বেড়িবাঁধ নির্মাণ করা প্রয়োজন। তা না হলে মানচিত্র থেকে ঐতিহ্যবাহী এ চরমধুয়া গ্রামটি হারিয়ে যাবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো দেখুন