1. grameendarpan@gmail.com : admi2017 :
মঙ্গলবার, ০৪ অগাস্ট ২০২০, ০২:১০ পূর্বাহ্ন

করোনার ভয়াবহতায় অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত রেখেছেন নরসিংদীর এসপি প্রলয় কুমার জোয়ারদার

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৩০ জুলাই, ২০২০
  • ৪ বার

স্টাফ রিপোর্টার: বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাস মহামারী পরিস্থিতি মোকাবেলায় বাংলাদেশ পুলিশ অগ্রণী সেনার ভূমিকা পালন করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় নরসিংদী জেলা পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার বিপিএম (বার) পিপিএম এর দিক নির্দেশনায় জেলা পুলিশ করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় কাজ করে যাচ্ছে। পুলিশের নিয়মিত কার্যক্রম আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণসহ, সরকারের লকডাউন ঘোষণার পূর্বে সচেতনামূলক লিফলেট বিতরণ, পরবর্তীতে লকডাউন নিশ্চিত করা, করোনার উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুবরণকারী ব্যাক্তির লাশ ধর্মীয়ভাবে দাফন, নিরাপদ সৎকার কাজের সরঞ্জামাদী বিতরণ ও প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য সামগ্রী বিতরণ। একই সাথে চালাচ্ছেন সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিতকরণ ক্যাম্পেইন। নির্ভীক পুলিশ সদস্যরা মাথায় গামছা বেধে কেটেছেন অসহায় কৃষকের জমির পাঁকা ধান। বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিতরন করেছেন ত্রাণ সামগ্রী। এখনো ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত আছে।
হটলাইনে ফোন দিলেই মধ্যবিত্ত ও নি¤œ মধ্যবিত্ত অভূক্ত মানুষের ঘরে পৌঁছে দিচ্ছেন খাদ্য সামগ্রী। রমজান মাসে এতিম, প্রতিবন্ধী, ভাসমান ও ছিন্নমূল অনাহারী মানুষের মধ্যে বিতরণ করেছেন ইফতার সামগ্রী। স্বাস্থ্য সেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে পুলিশের ভ্রাম্যমাণ ফ্রি মেডিকেল টিম চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। ডাক্তারদের সাথে নিয়ে তৈরী ভ্রাম্যমাণ টিম এ্যাম্বুলেন্সসহ গাড়ী বহর স্বাস্থ্য সেবা নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন এলাকা থেকে এলাকায় এবং ফ্রি ঔষধ সরবরাহ করা হচ্ছে। সম্প্রতি মানুষকে ঘরে রাখতে জেলা পুলিশের উদ্যোগে ‘সুলভমূল্যে ঘরের বাজার’ ভ্রাম্যমাণ বাজার ব্যবস্থা চালু করা হয়।
করোনার ছোবল থেকে পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের রক্ষা করতে পুলিশ লাইন্স, নরসিংদী ও পুলিশ সুপার কার্যালয়ে জীবানুনাশক টানেল বসানো হয় এবং পর্যায়ক্রমে জেলার ০৭ টি থানায় জীবানুনাশক টানেল বসানো হয়। করোনা আক্রান্ত হয়ে একাধিক মৃত ব্যক্তির লাশ দাফনে এলাকাবাসী ভয় পেলেও পুলিশ সদস্যরা স্বমহিমায় এসব লাশের দাফন সম্পন্ন করছেন। করোনার দূর্যোগ মোকাবেলায় মানুষকে সেবা প্রদান করে আলোচনায় জেলা পুলিশ নরসিংদী। তাই সাধারণ মানুষের মুখে মুখে এখন জেলা পুলিশের ভূয়সী প্রশংসা। সর্বশেষ লকডাউন নিশ্চিতে জেলা পুলিশের কর্মকান্ড ও ধান ঘরে তোলার সময়ে কৃষকের ধান কেটে দিয়ে আলোচনার সম্মুখ ভাগে চলে আসে এই পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা।
রমজানে মাসের সময়ে ব্যবসায়ীরা যাতে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য বাড়িয়ে না দেয় সে লক্ষ্যে বাজার গুলোতে মনিটরিং সহ সাড়াশি অভিযান চালানো হয়। মত বিনিময়ের মাধ্যমে ব্যবসায়ীদেরও সতর্ক করা হয়েছে। ভাইরাসের সংক্রমণ সকলকে ঘরে অবস্থানের জন্য কঠোর নির্দেশনা প্রদান করা হয়। এর বাহিরেও যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা, এতিম, পথ শিশু, রিক্সাচালক, ভিক্ষুক, দুঃস্থ ও প্রতিবন্ধীদের মাঝে জেলার ৬ টি উপজেলার ৭ টি থানায় ইফতার সামগ্রী বিতরন করা হয়। লকডাউন নিশ্চিতে জীবনবাজী রেখে দিবানিশি বিরামহীন কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন জেলা পুলিশ নরসিংদী। করোনার কবল থেকে মানুষকে সুস্থ রাখতে শহরে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরন ও মাইকিং করা হচ্ছে। জোরদার করা হয়েছে পুলিশি টহল। নরসিংদী জেলার সাথে অন্যান্য জেলা থেকে প্রবেশ ও প্রস্থান রোধে সড়ক, মহাসড়ক ও শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে পুলিশের চেকপোস্ট বসানো হয়েছে।
সরকারের ঘোষনা অনুসারে লকডাউনের পর বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপটে গণপরিবহনে যাত্রী সেবা তদারকি অব্যাহত রেখেছে নরসিংদী জেলা পুলিশ। সমস্যায় পড়া মানুষকে সহায়তার জন্যে স্ব শরীরে উপস্থিত হচ্ছেন জেলা পুলিশের কর্নধার পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার বিপিএম (বার) পিপিএম।
পুলিশ সুপার নরসিংদী প্রলয় কুমার জোয়ারদার বিপিএম (বার) পিপিএম বলেন, পুলিশের প্রধান কাজ হলো জনগণের জানমালের নিরাপত্তা ও আইন শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ রাখা। এই দুটি কাজের পাশাপাশি এখন আমরা কোভিড-১৯ মোকাবেলায় দিন রাত কাজ করে চলেছি। লকডাউন নিশ্চিত ও মানুষকে ঘরে রাখতে পুলিশি টহল বাড়ানো হয়েছে। ঝুঁকিপূর্ণ জেলা থেকে মানুষের প্রবেশ ও প্রস্থান রোধে সীমান্তবর্তী এলাকায় ৭২ টি চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। এ পর্যন্ত ১০ (দশ) হাজারেরও বেশী পরিবারের মধ্যে পুলিশের পক্ষ থেকে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করা হয়েছে। মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে চিকিৎসকদের নিয়ে ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল টিম করা হয়েছে। করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃতদের দাফন কাফন করছে পুলিশ সদস্যরা। বাজার নিয়ন্ত্রণসহ গুজব রোধে সকল ধরনের কাজ করছে জেলা পুলিশ। জনগণ যাতে ঘরের বাইরে না যেতে হয় সেজন্য ভ্রাম্যমাণ সুলভ মূল্য ঘরের বাজার ব্যবস্থা চালু করেছি। এক কথায় বলতে গেলে কোভিড-১৯ মোকাবেলায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মোতাবেক অবস্থার প্রেক্ষিতে সকল কর্মকান্ডে পুলিশ সক্রিয় ভূমিকা রাখছে। পুলিশ তো সব সময়ই মাঠ পর্যায়ে অনেক কাজ করে থাকে। সরকারের ঘোষনা অনুসারে লকডাউনের পর বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপটে গণপরিবহনে যাত্রী সেবা তদারকি অব্যাহত রেখেছি। করোনাকালে আমাদের উল্লেখিত কাজসমূহ অব্যাহত থাকবে শেষ পর্যন্ত।
জেলা পুলিশ নরসিংদীর মিডিয়া সমন্বয়কারী ও জেলা গোয়েন্দা শাখা নরসিংদীর পুলিশ পরিদর্শক (নিঃ) রুপণ কুমার সরকার পিপিএম জানিয়েছেন, নরসিংদী জেলা পুলিশের সুপার হিরো আমাদের পুলিশ সুপার নরসিংদী প্রলয় কুমার জোয়ারদার বিপিএম (বার) পিপিএম স্যার। স্যারের সুদক্ষ দিক নির্দেশনায় নরসিংদী জেলার ৬ টি উপজেলার ৭ টি থানার সকল পুলিশ সদস্যরা করোনা সংকট মোকাবেলায় ও লকডাউন নিশ্চিতে দিবানিশি কাজ করে যাচ্ছে। অসহায়দের খাদ্য সহায়তা থেকে শুরু করে হ্যান্ডস্যানিটাইজার, মাস্ক বিতরনসহ সকল ধরনের কাজ করা হচ্ছে। এছারাও আসন্ন ঈদুল আযহা উপলক্ষে কোরবানির পশুর হাটে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ সেবা নিশ্চিত থাকে তার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..