স্টাফ রিপোর্টার: বাঙালির জীবনে পহেলা বৈশাখ আসে অন্যরকম স্বপ্ন আর অমিত সম্ভাবনার ফুলঝুড়ি নিয়ে। জরা ও জীর্ণ, দীনতা ও নীচতাকে পদতলে পিষ্ট করে সুন্দরের পথে অবিরাম হাঁটার ও শুদ্ধ সংস্কৃতি চর্চার অঙ্গীকারের দিন বৈশাখ। কয়েশ’ বছর ধরে জীবনের নানা অনুষঙ্গকে ধারণ করে এ দিনটি বাঙালিরা উৎসাহ উদ্দীপনা নিয়ে উদযাপন করে আসছে। নতুন দিনের কেতন ওড়ানো পহেলা বৈশাখের গুরুত্বপূর্ণ আয়োজন হালখাতা ও বৈশাখী মেলা।
প্রতি বছরের ন্যায় এবারো নরসিংদী শহরের ঐতিহ্যবাহী আরশীনগর বটমূলে নরসিংদীর সামসুদ্দীন আহমেদ এছাক সংগীত একাডেমীর আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়েছে সাতদিন ব্যাপি বৈশাখী মেলা ও প্রতিযোগিতামূলক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
ষোড়শ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে আকবর বাদশার দরবার থেকে বাংলা সনের উদ্ভবের পরপরই বৈশাখের প্রথম দিনকে উদযাপন করে আসছে কৃষক ও মেহনতি মানুষেরা। বৈশাখ উদযাপনের অনুষঙ্গ হিসেবে পরবর্তীতে যুক্ত হয়েছিলো বৈশাখী মেলা। দল-মত-বর্ণ নির্বিশেষে পহেলা বৈশাখ উদযাপনে সর্বজনীন উৎসবের যে রূপ আমরা দেখতে পাই, বৈশাখী মেলা সেই রূপকে ব্যপ্ত ও পরিপূর্ণভাবে প্রকাশ করে। শুরুর দিক থেকেই বৈশাখী মেলা ছিলো বৈশাখ উদযাপনের প্রধান মাধ্যম। সেই ঐতিহ্য লালন করেই সামসুদ্দীন আহমেদ এছাক সংগীত একাডেমী প্রতিবছর বর্ণাঢ্য আয়োজনে বৈশাখী মেলা ও প্রতিযোগিতামূলক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করে থাকে।
পহেলা বৈশাখ ১৪ এপ্রিল থেকে ২০ এপ্রিল পর্যন্ত ৭ দিন ব্যাপি আরশীনগরে বৈশাখী মেলায় নরসিংদী জেলাবাসী মেতে উঠেছে উৎসব আর আনন্দে। আবহমান বাংলার হাজার বছরের কৃষ্টি, সংস্কিৃতি ও ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতায় বরণ করা হয়েছে নতুন বছর ১৪২৫ কে। জেলা শহরের স্বনামধন্য সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো প্রতিযোগিতামূলক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছে। এছাড়া সাতদিনব্যাপি বৈশাখী মেলায় বসেছে বিভিন্ন ধরণের দেশীয় পণ্য’র স্টল। মেলার প্রতিটি স্টলেই শতভাগ বাঙালিয়ানার ছাপ চোখে পড়েছে। প্রতিটি স্টলে বসেই কারিগররা নিজেরাই অত্যন্ত নিখুঁতভাবে তৈরি করেছেন বিভিন্ন ধরণের পণ্য। গ্রামীণ জনপদের নানা তৈজসপত্র আর কুটির শিল্পের নানা ঐতিহ্যবাহী উপকরণ নিয়ে সাজানো ছিল আরশীনগরের বৈশাখী মেলা। বিক্রেতারা ঐতিহ্যবাহী হরেক রকমের পাটপণ্যের পাশাপাশি কাঠের পুতুল, মাটির টেপা পুতুল, বাঁশ ও বেতের তৈরী নানা উপকরণের পসরা সাজিয়ে বসেছিলেন মেলায়। এছাড়ও মেলায় ছিল পুতুল নাচ, নাগরদোলা, মন্ডা-মিঠাই-খাজাসহ মুখরোচক সব খাবারের আয়োজনও। অন্দরসাজের উপকরণের মধ্যে ছিল সিরামিকসের শো-পিস, কারপেট, পাপোশ, ওয়াল র‌্যাক, সিকা, কাগজের ফুল ও পুতুল, শোলার তৈরী পাখি, মাটির ঘড়া, সরাচিত্র, লক্ষ্মীর ঝাঁপি, টেপা পুতুল, হরেকরকম থালা ও ঘটিসহ নানা পণ্য।
বর্ষবরণ উপলক্ষে সাতদিন ব্যাপি বৈশাখী মেলা ও প্রতিযোগিতামূলক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী দিনে প্রধান অতিথি ছিলেন নরসিংদী সদর আসনের এমপি, পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী লে: কর্ণেল (অব:) মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম (বীর প্রতিক), প্রধান আলোচক ছিলেন বিশিষ্ট লেখক ও শিক্ষানুরাগী সরকার আবুল কালাম, বিশেষ অতিথি ছিলেন নরসিংদী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আ: মতিন ভূইয়া, নরসিংদীর পৌর মেয়র কামরুজ্জামান কামরুল, নরসিংদী সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাম্মদ আলী ও গোলাম মোস্তাফা মিয়া, নরসিংদী সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান কবির আহমেদ। সভাপতিত্ব করেন সামসুদ্দীন আহমেদ এছাক সংগীত একাডেমী ও নরসিংদী সংবাদপত্র পরিষদ (এনএসপি)’র সভাপতি মো. হারুন-অর-রশিদ। যৌথভাবে মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন নরসিংদী সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাম্মদ আলী ও গোলাম মোস্তাফা মিয়া
পহেলা বৈশাখ দুপুরে সুর লাহোরী শিল্পী গোষ্ঠির সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। বিকেলে আলোচনা সভায় সভাপতি ছিলেন শিক্ষানুরাগী উপেন্দ্র চন্দ্র রায়, আলোচক ছিলেন নরসিংদী জজকোর্টের আইনজীবী এড. শহিদুল্লাহ সিকদার, সাতমোড়া আনন্দ আশ্রমের সাধারণ সম্পাদক জয়দেব বর্মণ। বৈশাখের ২য় দিন রজনীগন্ধা সাংস্কৃতিক শিল্পী সংগঠন ও অনুকূল ফাউন্ডেশন, স্টাইল মিডিয়া সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন। বিকেলে আলোচনা সভায় সভাপতি ছিলেন নরসিংদী বালিকা বিদ্যানিকেতনের সাবেক প্রধান শিক্ষক জ্যোতিরাম দাস, আলোচক ছিলেন ঘোড়াদিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সহ: প্রধান শিক্ষক আ: মতিন ভূঞা, নরসিংদী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক সিনিয়র সহ: শিক্ষক কেশব চন্দ্র দাস। বৈশাখের ৩য় দিন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন নজরুল একাডেমি, বিকেলে আলোচনা সভায় সভাপতি ছিলেন ব্রাহ্মন্দী মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আলতাফ হোসেন নাজির, আলোচক ছিলেন, আলোকবালী এ এম সি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. জয়নাল আবেদীন, চরদিঘলদী ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুহাম্মদ কামরুল ইসলাম। বৈশাখের ৪র্থ দিন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন স্বরঋতু সংগীত নিকেতন ও সতীর্থ সংগীত একাডেমি। বিকেলে আলোচনা সভায় সভাপতি ছিলেন নরসিংদী কমার্স কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর অহি ভূষণ চক্রবর্তী, আলোচক ছিলেন বিশিষ্ট নাট্যকার মো. জালাল উদ্দিনন আহমেদ, ব্রাহ্মন্দী কে. কে.এম সর: উচ্চ বিদ্যালয়ের সহ: শিক্ষক আকরাম হোসেন। বৈশাখের ৫ম দিন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন আমরা ক’জন সুরেশ্বরী। বিকেলে আলোচনা সভায় সভাপতি ছিলেন শিবপুর পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নূর উদ্দিন মোহাম্মদ আলমগীর, আলোচক ছিলেন নরসিংদী প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাখন চন্দ্র দাস ও নরসিংদী সংবাদপত্র পরিষদ (এনএসপি)’র সাধারণ সম্পাদক মু. নাছিবুর রহমান খান। বৈশাখের ৬ষ্ঠ দিন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন ব্যান্ড চাতক। বিকেলে আলোচনা সভায় সভাপতি ছিলেন সাটিরপাড়া কে. কে. স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো. নূর হোসেন ভূঞা, আলোচক ছিলেন দৈনিক গ্রামীণ দর্পণের প্রকাশক-সম্পাদক ও নরসিংদী সংবাদপত্র পরিষদ (এনএসপি)’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক কাজী আনোয়ার কামাল, ঘোড়াদিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সহ: শিক্ষক মাহবুব আলম।
বৈশাখের ৭ম দিন বিকেলে সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন আব্দুল কাদির মোল্লা সিটি কলেজের অধ্যক্ষ ড. মশিউর রহমান মৃধা, বিশেষ অতিথি ছিলেন নরসিংদী সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর সুর্য্যকান্ত দাস, রায়পুরা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. মিজানুর রহমান চৌধুরী, নরসিংদী জজকোর্টের এড. কে.এম. শাহনূর শাহ বাবু, প্রধান আলোচক ছিলেন শিক্ষানুরাগী অধ্যাপিকা নূরজাহান বেগম, সভাপতিত্ব করেন সাবেক সংসদ সদস্য ও প্রতিভা শিল্পী গোষ্ঠির সভাপতি রোকেয়া আহমেদ লাকী।
উল্লেখ্য, নরসিংদী সদর আসনের চারবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ছিলেন সামসুদ্দীন আহমেদ এছাক। তিনি প্রতিষ্ঠিত করেছেন সামসুদ্দীন আহমেদ এছাক সংগীত একাডেমি। এছাক সংগীত একাডেমির উদ্যোগে প্রতি বছর সপ্তাহব্যাপি বৈশাখী মেলা, আলোচনা সভা ও প্রতিযোগিতামূলক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। একাডেমী প্রতিষ্ঠার আগে থেকে এছাক এমপির জীবদ্দশায় ও তার প্রয়াণের পরও প্রায় দেড়যুগ ধরে নিয়মিতভাবে ঐতিহ্যবাহি বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়ে থাকে। অসাম্প্রদায়িক চেতনায় উদ্বুদ্ধ সকল শ্রেণি-পেশার সব বয়সি মানুষের মনের গভীরে দারুণভাবে রেখাপাত করে আরশীনগরের বর্ষবরণ।

582 total views, 6 views today