কৃষি বিজ্ঞানীদের গবেষণা আরো বাড়াতে হবে -কৃষিমন্ত্রী

0
82

গ্রামীণ দর্পণ ডেস্ক: কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী দেশীয় ফলজ উদ্ভিদের জাত সুরক্ষার পাশাপাশি বিদেশি উন্নত ফল চাষের ক্ষেত্রে খাপ খাওয়ানোর উপায় খুঁজে বের করতে আরো গবেষণা বাড়ানোর জন্য কৃষিবিজ্ঞানীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
শুক্রবার সকালে রাজধানীর কৃষিবিদ ইন্সটিটিউশন বাংলাদেশ মিলনায়তনে ফলদ বৃক্ষরোপন পক্ষ (২২ জুন- ৬ জুলাই) এবং জাতীয় ফল প্রদর্শনী ২০১৮ এর (২২-২৪ জুন) উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতাকালে কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী এই আহ্বান জানান। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক প্রধান অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন।
আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী বলেন, দেশীয় ফলের জাতের সুরক্ষার পাশাপাশি আমাদেরকে বিদেশি উন্নত ফলের উৎপাদন বা চাষের ক্ষেত্রে খাপ খাওয়ানোর উপায় খুঁজে বের করতে হবে। এ ছাড়া মে থেকে মধ্য আগস্ট পর্যন্ত সময়কালে দেশে প্রায় যে ৬০ ভাগ ফল পাওয়া যায় তার সময়সীমা যাতে বাড়ানো যায়, সেজন্য কৃষি বিজ্ঞানীদের আরো গবেষণা বাড়াতে হবে।
‘অপ্রতিরোধ্য দেশের অগ্রযাত্রা, ফলের পুষ্টি দেবে নতুন মাত্রা’ প্রতিপাদ্যে ২২ জুন থেকে ৬ জুলাই দেশব্যাপী শুরু হয়েছে ফলদ বৃক্ষ রোপণ পক্ষ ও জাতীয় ফল প্রদর্শনী-২০১৮।
এ উপলক্ষে কৃষি মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে জাতীয় পর্যায়ে রাজধানীর ফার্মগেটে অবস্থিত আ কা মু গিয়াস উদ্দীন মিলকী অডিটোরিয়াম চত্বরে ২২ থেকে ২৪ জুন তিন দিনব্যাপী জাতীয় ফল মেলার আয়োজন করা হয়েছে।
শুক্রবার ফল মেলা উপলক্ষে সকাল সাড়ে ৯টায় জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজা থেকে আ কা মু গিয়াস উদ্দীন মিলকী অডিটোরিয়াম চত্বর পর্যন্ত এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। সকাল ১০টায় প্রধান অতিথি হিসেবে ফলদ বৃক্ষ রোপণ পক্ষ ও জাতীয় ফল প্রদর্শনী-২০১৮’র উদ্বোধন করেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী। পরে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ মিলনায়তনে ‘মানবসম্পদ উন্নয়ন পুষ্টিসমৃদ্ধ ফলের অবদান’ শীর্ষক এক সেমিনারের আয়োজন করা হয়।
মতিয়া চৌধুরী বলেন, প্রতিকূল আবহাওয়া বা দুর্যোগপ্রবণ এলাকায় ফলদ গাছ কিভাবে বাঁচিয়ে রাখা যায় ও ফলদ বৃক্ষের বিস্তার ঘটাতে আমাদের কৃষি বিজ্ঞানীদের আরো গবেষণা বাড়িয়ে এর উপায় খুঁজে বের করতে হবে। এটা করা সম্ভব হলে পুষ্টি চাহিদা পূরণ করা সম্ভব হবে। এক্ষেত্রে আমাদের কৃষি বিজ্ঞানী, সম্প্রসারণ কর্মকর্তারা নিরলসভাবে কাজ করবেন বলে তিনি দৃঢ় আশা ব্যক্ত করেন।
মতিয়া চৌধুরী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কাঁঠালকে জাতীয় ফল হিসেবে ঘোষণা করেছিলেন উল্লেখ করে বলেন, এটি খুব সুস্বাদু ও এর পুষ্টিগুণ অপরিসীম। এক সময় গাজীপুরে প্রচুর পরিমাণে কাঠাল ও তাল গাছ দেখা যেত, কিন্তু অপরিকল্পিত নগরায়নের কারণে তা দিন দিন কমে আসছে।
তিনি বলেন, তাই কলমের মাধ্যমে কাঁঠাল গাছ করার বিষয়ে সংশ্লিষ্টরা কাছ করছে। এটা করা সম্ভব হলে জাতীয় ফল কাঁঠালের উৎপাদন বা সম্প্রসারণ বাড়ানো সম্ভব হবে।
সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. কামাল উদ্দিন আহাম্মদ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কৃষিবিদ মোহাম্মদ মহসীন। সভাপতিত্ব করেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ। সূত্র: কালের কণ্ঠ অনলাইন

102 total views, 3 views today

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here