নরসিংদীতে জেলা প্রশাসকের অনন্য উদ্যোগে উন্নয়ন মেলায় জব কর্নারের স্টলে আবেদন করে কর্মসংস্থানের সুযোগ হলো ৩ শতাধিক বেকারের

0
20

স্টাফ রিপোার্টার: জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন এর নিজস্ব স্বীয় চিন্তা প্রসূত এই জব কর্নারের মূল লক্ষ্য ছিলো শিল্পাঞ্চল খ্যাত নরসিংদী জেলায় বেকারত্বের হার কমানো। বৃহস্পতিবার জেলা প্রশাসন আয়োজিত ৪র্থ জাতীয় উন্নয়ন মেলায় স্থাপিত “জব কর্নার” এর মাধ্যমে চাকুরি প্রাপ্তদের মাঝে আনুষ্ঠানিক নিয়োগপত্র বিতরণ করা হয়েছে। ২০১৮ সালে উন্নয়ন মেলার সমাপনী দিনেই জেলা প্রশাসক নরসিংদী চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সহযোগিতায় ১২জন চাকুরী প্রত্যাশীকে বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানের নিয়োগপত্র হস্তান্তর করেন।
উন্নয়ন মেলায় প্রাণ আরএফএল গ্রুপ, রিজেন্ট ফেব্রিক্স, মমিন টেক্স, আবেদ টেক্স, ড্রিম হলিডে পার্ক, স্যামসাং, আল আমিন ফেব্রিক্স, নদী বাংলা গ্রুপ, আরহাম পেপার মিলস, সোনালী গ্রুপ, অঞ্জনস, রকেট মোবাইল ব্যাংকিং, এম.এম.কে ডাইং, ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড, পাকিজা গ্রুপ, আর টেক্স ও তিতিল ফার্নিচারসহ অন্যান্য শিল্প প্রতিষ্ঠানের পক্ষে সিভি গ্রহণ করা হয়। মেলায় ১ হাজার সাতশত বেকার যুব-যুবতী সিভি জমা দেন।
ইতোমধ্যে সংগৃহীত কাগজপত্রের মধ্য থেকে যোগ্যতা অনুযায়ী যাচাই-বাচাই করে ২৯৩ জন বেকার যুবক-যুবতীদেরকে নিয়োগ প্রদান করে শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো। এ সকল বেকার যুবক-যুবতীদেরকে অনাড়ম্বরপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নিয়োগপত্র তুলে দেন নরসিংদীর জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন।
বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় নরসিংদীর জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে আরো ২৬জনকে প্রাণ আরএফএল গ্রুপ, আবেদ টেক্সটাইল ও পাকিজা গ্রুপে বেকার যুবক-যুবতীদেরকে চাকুরীর নিয়োগপত্র প্রদান করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নরসিংদীর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট তানবীর মোহাম্মদ আজিম, নরসিংদী সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর গোলাম মোস্তাফা মিয়া, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মোতালিব পাঠান, এনডিসি মো. শাহ আলম মিয়া প্রমূখ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে যুবসমাজকেই মূল চালিকাশক্তি হিসেবে কাজ করতে হবে। ভাষা আন্দোলন, মহান মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সমাজ তথা দেশ গঠনে এ তরুণ সমাজ সর্বদা অগ্রগামী ছিল। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু যুবসমাজসহ সকলকে নিয়ে দেশ গঠনের জন্য নেমে পড়েন। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যাকান্ডের পর যুবসমাজ দিকহারা হয়েছিল। ফলে দেশ অনেক পিছিয়ে পড়ে। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে যুবসমাজ আবার আশার আলো দেখতে শুরু করেছে। তিনি বলেন, আমি অভিভাবকদের কাছ থেকে শিক্ষিত সন্তানের চাকরি না হওয়ার আকুতি জেনেছি। শিক্ষিত ছেলে-মেয়েরা যাতে বেকার না থাকে, সে প্রত্যাশা সবারই থাকে। আমি উন্নয়ন মেলার মাধ্যমে বেকারদের চাকরির সুযোগ করে দিয়েছি। এ জন্য আমাকে নরসিংদীর শিল্প প্রতিষ্ঠান মালিক, এনসিসিসিআই নেতৃবৃন্দ সহযোগিতা করেছে। যার ফলে ইতোমধ্যে তিনশতাধিক বেকারের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। বিভিন্ন শিল্প প্িরতষ্ঠানের সহযোগিতায় ৩শতাধিক পরিবারের মুখে হাসি ফুটিয়েছে। নরসিংদীর অন্যান্য বৃহৎ শিল্প প্রতিষ্ঠানসমূহও এই উদ্যোগের সাথে শীঘ্রই শামিল হবে এবং পর্যায়ক্রমে শুধু উন্নয়ন মেলা নয় বিভিন্ন জাতীয় দিবসে জব কর্নারের স্টল স্থাপন করা হবে। পাশাপাশি নরসিংদী জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে একটি অ্যাপস তৈরি করা হচ্ছে। এই অ্যাপসের মাধ্যমে চাকুরী প্রত্যাশিরা ঘরে বসে অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করতে পারবে। পর্যায়ক্রমে প্রতি দুই মাস অন্তর অন্তর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বেকারদের কাজের সুযোগ সৃষ্টি করা হবে। নরসিংদীসহ দেশের অন্যান্য জেলা থেকে প্রাপ্ত যোগ্য প্রার্থীদের জীবন বৃত্তান্ত নির্দিষ্ট উপায়ে যাচাই-বাচাইপূর্বক তাদের নিয়োগ প্রদান করা হয়েছে। আমরা এই ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে চাই।
উল্লেখ্য যে, ইতোমধ্যেই এই উদ্যোগটি সমগ্র দেশের জেলা প্রশাসনে সমাদৃত হয়েছে এবং এইউদ্যোগ গ্রহণে কক্সবাজার এবং যশোর জেলা প্রশাসনকে উদ্বুদ্ধ করেছে এবং তারা সেই লক্ষ্যে কাজ শুরু করেছে।

65 total views, 3 views today

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here