নরসিংদীতে বর্ণাঢ্য আয়োজনে বর্ষবরণ, বাংলা নববর্ষ বাঙালি সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের একটি বহমান প্রাচীন ধারা -সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন

0
669

স্টাফ রিপোর্টার: সুন্দরের আগমনে সকল পুরাতন গ্লানি আর ঝরা-জীর্ণতা ভুলে শুরু হয়েছে মঙ্গল শোভাযাত্রা। ‘মানুষ ভজলে সোনার মানুষ হবি’ প্রতিপাদ্য ও মর্মবাণী ধারণ করে শনিবার পহেলা বৈশাখের দিন সকাল ৯টায় নরসিংদী জেলা প্রশাসনের আয়োজনে নরসিংদী মোসলেহ উদ্দিন ভূইয়া স্টেডিয়াম থেকে জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন এর নেতৃত্বে বাংলা নববর্ষের বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রা বের হয়।


শোভাযাত্রাটি জেলা শহরের প্রধান সড়ক দিয়ে নরসিংদী সরকারি কলেজ হয়ে শিল্পকলা একাডেমীতে গিয়ে শেষ হয়। এবারের মঙ্গলশোভাযাত্রায় আবহমান বাংলার ইতিহাস-ঐতিহ্যের সঙ্গে মিল রেখে হাতি, মাছ, ময়ূর, মাছ, পুতুল, পেঁচাসহ ঘোরার গাড়ি, মহিষের গাড়ি নিয়ে বাহাড়ি সাজে সজ্জিত হয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীসহ সর্বস্তরের সাধারণ মানুষ শোভাযাত্রায় অংশগ্রহণ করেন।
শোভাযাত্রা শেষে শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গণে পলাশ তলায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন। এ সময় পুলিশ সুপার সাইফুল্লা আল মামনু, নরসিংদী স্থানীয় সরকার শাখার উপ-পরিচালক ড. এটিএম মাহবুবুল করিম, নরসিংদী সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাম্মদ আলী, প্রফেসর গোলাম মোস্তাফা মিয়া, প্রফেসর ফরিদ উদ্দীন মুরাদ, প্রফেসর কালাম মাহমুদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আব্দুল আউয়াল, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. সাইফুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সুষমা সুলতানা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাসিবুল আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শফিকুর রহমান প্রমূখ।
উদ্বোধনি অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন বলেন, বাংলা নববর্ষ বাঙালি সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের একটি বহমান প্রাচীন ধারা। বাংলা নববর্ষ এবং বাঙালির প্রাণের উৎসব আয়োজন যেন এক সুত্রে গাঁথা। পুরাতনকে পিছনে ফেলে নিজ ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি বক্ষে ধারণ করে নতুন বর্ষকে বরণ করতে উদগ্রীব সারা বিশ্বের বাঙালি প্রাণ। তাই বাঙালির সর্বজনীন, অসাম্প্রদায়িক মহোৎসব কিভাবে এবং কেন এলো তা আমাদের জানতে হবে। তিনি বলেন, ‘মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা, অগ্নিস্নানে শুচি হোক ধরা’ পুরনো ব্যর্থতাকে বিদায় জানিয়ে নতুনের প্রত্যাশায় আজ বাঙালির সর্বজনীন প্রাণের উৎসব বাংলা নতুন বছর-পহেলা বৈশাখ। নতুন বছরের উৎসবের সঙ্গে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর শিল্প ও সংস্কৃতির নিবিড় যোগাযোগ। গ্রামে মানুষ ভোরে ঘুম থেকে ওঠে, নতুন জামা-কাপড় পরে এবং আত্মীয় স্বজন ও বন্ধু-বান্ধবের বাড়িতে বেড়াতে যায়। বাড়িঘর পরিষ্কার করা হয় এবং মোটামুটি সুন্দর করে সাজানো হয়। বিশেষ খাবারের ব্যবস্থাও থাকে। গ্রামের পাশাপাশি শহরেও সমান জনপ্রিয় পহেলা বৈশাখ। সর্বজনীন উৎসব পহেলা বৈশাখ মানুষের সংকীর্ণতা দূর করে, হৃদয় বড় করে। পহেলা বৈশাখের অসাম্প্রদায়িক মিলনমেলার মধ্যদিয়েই বাঙালি একদিনের জন্য নয়, তিনশো পঁয়ষট্টি দিন ধরেই আদর্শ বাঙালি হয়ে উঠতে পারে। আজকের দিনে এই হউক আমাদের প্রত্যাশা সর্বজনীন পহেলা বৈশাখে মানুষের মাঝে সব ভেদাভেদ দূর হয়ে যাক।
বর্ষবরণ উৎসব ১৪২৫, ১৪ এপ্রিল সকাল ৯টায় মঙ্গল শোভাযাত্রা শুরু হয়ে নরসিংদী মোসলেহ্ উদ্দিন ভুঁইয়া স্টেডিয়াম থেকে সরকারি কলেজ হয়ে শিল্পকলা একাডেমি নতুন প্রাঙ্গণে এসে শেষ হয়। সকাল ১১টায় বাঁধনহারার পরিবেশনায় গাজীর পট ও বাউল সঙ্গীত এবং বিকেলে শিশু একাডেমির পরিবেশনা অনুষ্ঠিত হয়। ১৫ এপ্রিল রোববার স্থানীয় শিল্পীদের পরিবেশনায় ব্যান্ড দল, মুক্তধারার পরিবেশনা, লালনগীতির পরিবেশনা, সাথে ছিল দিনব্যাপি বিয়াম জিলা স্কুলের মাঠে গ্রামীণ খেলাধূলা, সাপখেলা, লাঠি খেলা, মোড়গ লড়াই, চড়কী, নাগড়দোলা ইত্যাদি। সব মিলিয়ে এবারের বর্ষবরণে ব্যতিক্রমী নতুনত্বের ছোঁয়া লেগেছে। এছাড়াও জেলার সকল উপজেলায় উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে উৎসব মূখর পরিবেশে বর্ষবরণ করা হয়েছে।

818 total views, 6 views today

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here