নরসিংদীর নজরপুরে জোড়া খুনের ঘটনায় জড়িত ৪ জন গ্রেফতার ॥ ১ জনের স্বীকারোক্তি

0
7649

তৌহিদুর রহমান: নরসিংদীর চরাঞ্চল নজরপুরে জোড়া খুনের ঘটনায় ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতে ও শুক্রবার তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলো, নজরপুর ইউনিয়নের জামালিয়াকান্দি গ্রামের মৃত অহির উদ্দিনের ছেলে রাশেদ (২৬), মান্নান (৪৮), একই এলাকার নজরুল ইসলামের ছেলে মরম আলি (১৬) ও গফুর মিয়ার ছেলে নজরুল মিয়া (৪২)। এর মধ্যে গ্রেফতারকৃত রাশেদ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। গত বৃহস্পতিবার বিকেলে নরসিংদী সিনিয়র চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শামিমা আক্তারের খাস কামরায় এ জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক আতাউর রহমান জানান, নিহত খলিল একই এলাকার ছালাম নামের এক ছেলে কাছে ১৬ হাজার টাকা পাওনা ছিল। তবে ছালাম দাবী করছিল খলিল ৮ হাজার টাকা পায়। এ নিয়ে সে রাশেদ এর স্মরনাপন্ন হয়। রাশেদ ছালাম কে বলে খলিল খারাপ লোক তাকে কিসের টাকা দিবি, টাকা দেয়া লাগবে না। এ কথা খলিলের কানে গেলে সে লাঠিসোটা ও দা নিয়ে রাশেদ এর বাড়িতে গিয়ে রাশেদকে পিটুনি দেয় ও হাতে কোপ দেয়। এ সময় আশেপাশের লোকজন খলিলকে প্রতিরোধ করে। প্রতিহত হয়ে খলিল হুমকি দেয় যে থাক তুই আবার আসতেছি তোকে শায়েস্তা করব। খলিলের হুমকি পেয়ে রাশেদ ও অন্যান্য আসামীরা লাঠি ও হকিস্টিক নিয়ে প্রতিরোধের উদ্দেশ্যে খলিলের বাড়ির দিকে এগাতে থাকে। পথিমধ্যে খলিল ও তার ভাই অলিউল্লাহকে দা নিয়ে আসতে দেখে তাদের উপর ঝাপিয়ে পড়ে রাশেদরা। লাঠি ও হকিস্টিক দিয়ে মাথায় বাড়ি ও দাড়ালো চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে দুই ভাই কে। রাশেদ জবানবন্দিতে জানায় খলিল বেচে থাকলে তাদের মেরে ফেলবে তাই তাদের দুই ভাই কে হত্যা করা হয়েছে।
নরসিংদী সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সৈয়দুজ্জামান জানান, ছালাম নামের এক ব্যক্তির সাথে নিহত খলিলের টাকার লেনদেন নিয়ে বিরোধের সূত্রে এই হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। আমরা হত্যার সাথে জড়িত ৪ জনকে গ্রেফতার করেছি। এর মধ্যে একজন আদালতে স্বীকারোক্তি দিয়েছে। নিহত খলিলের ক্রিমিনাল ও মাদক মামলার রেকর্ড রয়েছে। ছালামের সাথে তার কিসের টাকা নিয়ে বিরোধ ছিল তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।
উল্লেখ্য, গত ২৬ সেপ্টেম্বর নজরপুর জামালিয়াকান্দী বাড়ির পাশে ধান ক্ষেতে কুপিয়ে হত্যা করা সহোদর দুই ভাই খলিল ও অলিউল্লাহ কে। এ ঘটনায় নিহতের পিতা কবির মিয় বাদী হয় নরসিংদী সদর মডেল থানায় ৬ জনের নাম উল্লেখ করে ও আরও ৪/৫ জনকে অজ্ঞাত আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।

7,704 total views, 3 views today

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here