স্টাফ রিপোর্টার: প্রিয় স্কুল মনোহরদী পাইলট হাই স্কুল। মনোহরদী পাইলট হাই স্কুল একটি ঐতিহ্যবাহী বিদ্যায়তন। এর রয়েছে গৌরবময় ইতিহাস। অনেক কীর্তিমান ব্যক্তিত্ব এই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিলেন। সরকারের ঘোষিত ভিশন ২০২১ অর্জনের উদ্দেশ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সরকারের গৃহীত পদক্ষেপের সাথে তাল মিলিয়ে চলছে মনোহরদী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়। এক্ষেত্রে বিদ্যালয়টি কোন অংশে পিছিয়ে নেই। মনোহরদী পাইলট হাই স্কুল প্রাক্তন ছাত্র সমিতির সদস্যরা জানিয়েছেন এটি তাদের প্রিয় স্কুল। স্কুলটির ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে তারা বদ্ধপরিকর।
জানা গেছে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে স্কুলের সকল তথ্য ছাত্র, শিক্ষক ও অভিভাবক কাছে দ্রুত পৌঁছে দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ভর্তি কার্যক্রম থেকে শুরু করে ফলাফল প্রস্তুত করাসহ সকল কাজ অনলাইন সফটওয়ারের মাধ্যমে সম্পন্ন করার পদক্ষেপ হাতে নেওয়া হয়েছে। ভবিষ্যতে ছাত্র ও শিক্ষকদের ডাটাবেজ তৈরি করে সকল তথ্য সংরক্ষণ করার ব্যবস্থা করা সম্ভব হবে। বিদ্যালয়ের আপডেট তথ্য সকলের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য স্কুলের ওয়েবসাইট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

প্রধন শিক্ষক

মনোহরদী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়টি নরসিংদী জেলার মনোহরদী উপজেলা সদরে অবস্থিত একটি ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। ১৯৪৮ সালে প্রতিষ্ঠিত বিদ্যালয়টি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বীকৃতি লাভ করে। মনোহরদী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় এলাকার অনেক শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিবর্গের অবদান রয়েছে। দুই একর জমির উপর স্থাপিত বিদ্যালয়টি সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী গঠিত ম্যানেজিং কমিটির মাধ্যমে পরিচালিত হয়। বিদ্যালয়ে মাধ্যমিক পর্যায়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণি হতে ১০ম শ্রেণী পর্যন্ত পাঠদান করা হয়। বিজ্ঞান, মানবিক, ব্যবসায় শিক্ষা শাখা ছাড়াও ভোকেশনাল শাখার চারটি ট্রেড রয়েছে। স্কুলটিতে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার পাশাপাশি সহ-পাঠ্যক্রমিক কার্যক্রম পরিচালিত হয়। তথ্য প্রযুক্তি শিক্ষায় রয়েছে দুইটি কম্পিউটার ল্যাব, একটি আইসিটি লার্নিং সেন্টার, হাতেকলমে বিজ্ঞান শিক্ষায় সমৃদ্ধ বিজ্ঞানাগার, শ্রেণী পাঠ্য বইয়ের পাশাপাশি অন্যান্য বই পড়ার জন্য একটি সুসজ্জিত লাইব্রেরী। মনোহরদী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠাকাল হতেই এলাকায় শিক্ষা বিস্তারে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। বিদ্যালয়ের অনেক কৃতি শিক্ষার্থী সরকারী-বেসরকারী পর্যায়ে উচ্চ পদে অধিষ্ঠিত হয়েছেন।
বর্তমানে বিদ্যালয়টিতে প্রায় এক হাজার ছয় শত শিক্ষার্থী ও চূয়াল্লিশ জন শিক্ষক-কর্মচারী আছে। বিদ্যালয়য়ের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে পাঠ্যক্রম ও সহপাঠ্যক্রম কর্মসূচির মাধ্যমে ছাত্র-ছাত্রীদের মেধা ও প্রতিভার বিকাশ সাধন এবং শারীরিক ও মানসিক বৃত্তিগুলোর সুষম বর্ধন- যাতে তারা সুযোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে উঠে দেশ ও জাতিকে উপযুক্ত নেতৃত্ব দিতে পারে।
বিদ্যালয়টি ২০১৮ সালে বর্তমান সরকার জাতীয়করণ করেন। এ পর্যন্ত স্কুলটিতে ৭ জন প্রধান শিক্ষক দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বে রয়েছে মো. মুজতবা জুয়েল।
পাঠকদের জ্ঞাতার্থে প্রাক্তন প্রধান শিক্ষকদের নাম ও সময়কাল উল্লেখ করা হলো। ১। হাফিজ উদ্দিন আহম্মদ, বি.এ.বি.এল. ০১-০১-১৯৪৮ খ্রি. হতে ৩১-১২-১৯৬৪ খ্রি.
২। বাবু সুরেন্দ্র চন্দ্র বর্মন, বি.এ.বি-এড. ০১-০১-১৯৬৫ খ্রি. হতে ৩১-০৩-১৯৭০ খ্রি.
৩। মোঃ সিরাজুল ইসলাম তালুকদার, এম.এ.বি-এড. ০১-০৪-১৯৭০ খ্রি. হতে ৩১-০৩-১৯৯৩ খ্রি.
৪। বাবু উৎপল চন্দ্র নাগ, বি.এস-সি.বি-এড. ০১-০৪-১৯৯৩ খ্রি. হতে ২৪-০৮-১৯৯৩ খ্রি.
৫। আ. ফ. ম. রুহুল আমিন, বি.এ. (অনার্স). এম.এ.বিএড. ২৫-০৮-১৯৯৩ খ্রি. হতে ২৮-০২-২০০৫ খ্রি.
৬। গোলাম রব্বানী, বি.এস-সি.বি-এড. ০১-০৩-২০০৫ খ্রি. হতে ১৬-০৩-২০০৫ খ্রি.
৭। মোঃ মুজতবা জুয়েল, এম.এ. (শিক্ষা), ১৭-০৩-২০০৫ খ্রি. হতে চলমান।
স্কুলটির বর্তমান আয়তন : ২.১৩ একর, অবকাঠামো ও অন্যান্য সুবিধার মধ্যে রয়েছে- ১) প্রশাসনিক ভবন ২) একাডেমিক ভবন (দ্বিতল ও ত্রিতল) ৩) বিজ্ঞান ভবন ৪) ফল, ফুল ও কাঠের গাছের সমারোহ খেলাধুলার মাঠ ৫) পর্যাপ্ত পুস্তকসহ লাইব্রেরী ৬) শ্রেণী কক্ষে সিসি ক্যামেরা ও মাইক্রোফোনের ব্যবস্থা ৭) গবেষণাগার ০৪টি (পর্দথবিজ্ঞান, গণিত, রসায়ন, জীববিজ্ঞান) ৮) ছাত্রী কমনরুম। ৯) কম্পিউটার ল্যাব। ১০) আইসিটি লার্নিং সেন্টার ১১) ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধা।

সভাপতি
সাধারণ সম্পাদক

আজ মনোহরদী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় প্রাক্তন ছাত্র সমিতির বার্ষিক বনভোজন

স্টাফ রিপোর্টার: আজ ৯ ফেব্রুয়ারি শনিবার মনোহরদী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় প্রাক্তন ছাত্র সমিতির বার্ষিক বনভোজন-২০১৯। প্রতি বছরের ন্যায় এবছরও এই বনভোনজন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। দেশের বিভিন্ন স্থানে কর্মরত প্রাক্তন ছাত্র, শিক্ষক ও তাদের পারিবারের সদস্যবৃন্দ এই বনভোজনে অংশগ্রহন করছেন। নারায়নগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ উপজেলার পূর্বাচল আবাসিক এলাকায় অবস্থিত পন্ড গার্ডেনে এই বনভোজন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
সমিতির বর্তমান সভাপতি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত ড. সচিব রাখাল চন্দ্র বর্মণ ও সাধারন সম্পাদক বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের কর্মকর্তা এ. কে. এম. মোতাকাব্বের জাহাঙ্গীর চেঙ্গিস জানিয়েছেন প্রতি বছর আমরা মনোহরদী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় প্রাক্তন ছাত্র-শিক্ষক ও তাদের পরিবারের সদস্যদের নিয়ে এই বনভোজনের আয়োজন করে থাকি। এছাড়াও সমিতির পক্ষ থেকে বার্ষিক সাধারন সভা, মিলন মেলা ও ইফতার মাহফিল আয়োজন করার মধ্য দিয়ে পুরাতন নতুন ছাত্রদের এক মিলন মেলায় পরিণত হয়। এছাড়াও সমিতির উদ্যোগে বিভিন্ন কল্যানমূলক কাজের উদ্যোগ নেয়া হয়।
উল্লেখ্য মনোহরদী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্রদের মধ্যে সম্প্রীতি ও বন্ধুত্বপূর্ণ ভাব গড়ে তোলার লক্ষ্যে এই সমিতি গঠন করা হয়।
প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এম. এ. আসাদ ভুইয়া জানিয়েছেন মনোহরদী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় এর অতীত ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও প্রসার করা, বিদ্যালয়কে একটি আধুনিক শিক্ষায়তন ও শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপীঠ হিসেবে গড়ে তুলতে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে সহযোগিতা করা, বিদ্যালয়ের চলমান বিভিন্ন কার্যক্রমে সহযোগিতা দান, বিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্রদেরকে উৎসাহ প্রদান, শিক্ষাবৃত্তি প্রদান, বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা ইত্যাদি বিবিধ কার্যক্রম বাস্তবায়নের উদ্দেশ্যে মনোহরদী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় প্রাক্তন ছাত্র সমিতি গঠন করা হয়েছে।
২০০২ সালে মনোহরদী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় প্রাক্তন ছাত্র সমিতি গঠন করা হয়। গঠনকালীন আহবায়ক কমিটিতে ছিলেন- আহবায়ক ফয়েজ আহমেদ ফয়েজ, সদস্য সচিব এম এ আসাদ ভূঞা, মো. ঘাবিবুর রহমান পন্ডি, মো. ইকবাল হোসেন মনির, মরহুম আ ব ম ফজলুল হক, আব্দুল মজিদ আফ্রাদ ও মো. আব্দুল খালেক ভূইয়া।
সমিতির উদ্যোগে ২০০২ মনোহরদী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় এর ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে সুবণৃ জয়ন্তী উৎসবের আয়োজন করা হয়েছিল। সে উপলক্ষে সুবর্ণ জয়ন্তী স্মারকগ্রন্থ নামে একটি স্মারক গ্রন্থ প্রকাশ করা হয়েছিল। যে স্মারক গ্রন্থে স্কুলের প্রাক্তন ছাত্ররা তাদের সোনালী অতীত ও স্কুল নিয়ে সম্মৃদ্ধ লেখা লিখেছেন।

প্রাক্তন ছাত্র আব্দুল খালেক ভূইয়া

প্রাক্তন ছাত্র আব্দুল খালেক ভূইয়ার অভিব্যক্তি

মনোহরদী পাইলট হাই স্কুল প্রাক্তন ছাত্র সমিতির প্রতিষ্ঠাতা সদস্য, বিশিষ্ট সংগঠক এবং সমাজ সেবক ও এবি ব্যাংকের সাবেক কর্মকর্তা আব্দুল খালেক ভূঁইয়া মনোহরদী পাইলট হাই স্কুল এর স্মৃতিচারণ ও মনোহরদী পাইলট হাই স্কুল প্রাক্তন ছাত্র সমিতি’র প্রতিষ্ঠা নিয়ে কথা বলতে গিয়ে দৈনিক গ্রামীণ দর্পণ এ সারগর্ভ অভিব্যক্তি ব্যক্ত করেছেন। উল্লেখ, আব্দুল খালেক ভূঁইয়া ১৯৭৩ সনে ৪ বিষয়ে লেটার মার্কসহ স্টার মার্ক পেয়ে মনোহরদী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করেন। তিনি মনোহরদী পাইলট হাই স্কুল প্রাক্তন ছাত্র সমিতি’র কথা বলতে গিয়ে প্রথমেই শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন এবং কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ভিক্টোরী এন্টারপ্রাইজের কর্ণধার সমিতি গঠনের প্রধান উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আমাদের সিনিয়র ভাই ফয়েজ ভাই এর কথা এবং প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক বিশিষ্ট সংগঠক এম এ আসাদ ভূঞা এবং প্রতিটি প্রতিষ্ঠাতা সদস্যের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। তিনি বলেন সমিতির বর্তমান সভাপতি রাখাল চন্দ্র বর্মণ এর বলিষ্ঠ নেতৃত্ব ও সটিক দিকনির্দেশনায় সমিতির কার্যক্রম যথাযথ প্রক্রিয়ায় চলছে বলে সদস্যবৃন্দ মনে করেন।
তিনি শ্রদ্ধার সাথে আরও স্মরণ করেন প্রয়াত শ্রদ্ধাভাজন প্রধান শিক্ষক যথাক্রমে হাফিজ উদ্দিন স্যার, সুরেন্দ্র স্যার, সিরাজ উদ্দিন স্যার এবং অন্যান্য স্যারদের মধ্যে মরহুম ছাত্তার স্যার, ইব্রাহীম স্যার, মৌলভী রাজ্জাক স্যার, মৌলভী ইমাম উদ্দিন স্যার, অজিত স্যার, সুবেদ আলী স্যার, মান্নান স্যার এবং হাফিজ উদ্দিন স্যার প্রমুখ।
আরও শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন স্কুল প্রতিষ্ঠায় প্রাথমিক ভাবে অগ্রণী ভূমিকা রাখেন ডা. মনসুরুর রহমান, নুরুল ইসলাম দারগা, জমিদাতা জমসের আলী প্রধান, মরহুম গফুর ভূইয়ার পিতা চেরাগ আলী প্রধান, মরহুম সূরুজ আলী আকন্দ, চন্দ্র কুমার রায়, নিত্য গোপাল রায়, ডা. মোশারফ হোসেন, চেরাগ আলী দফেদার এবং আরও অনেকে। পর পর নির্বাচিত সমিতির সভাপতি, শ্রী রাখাল চন্দ্র বর্মনকে এবং তার সহযোগী সাধারন সম্পাদক এ. কে. এম মোতাকাব্বের জাহাঙ্গীর চেঙ্গিস, কনক, সোহেলসহ আরও অনেককে সমিতির উত্তরোত্তর উন্নতির ভূমিকা রাখার জন্য প্রত্যেককে কৃতজ্ঞতা জানান।
তিনি বলেন মনোহরদী পাইলট হাই স্কুল দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় আজ স্বমহিমায় উদ্ভাসিত। স্কুলটির ক্রমবর্ধমান উন্নতিতে সকলেই আশাবাদী। নতুন নতুন ভবন ও শিক্ষা কার্যক্রমে বিভিন্নমূখী পদক্ষেপ গ্রহন স্কুলটিকে অত্র উপজেলায় মহিমান্বিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। আমরা এই স্কুলের ছাত্র হিসেবে গর্বিত।

752 total views, 12 views today