বাঙলাসনের ইতিকথা

0
274

॥ প্রফেসর কালাম মাহমুদ ॥

বাঙলাভাষার জন্ম প্রাচীন ভারতীয় প্রাচ্যশাখার অপভ্রংশ ভাষা থেকে। বাঙলালিপি উদ্ভূত হয়েছে প্রাচীন ব্রাহ্মীলিপি থেকে। বাঙলাসন প্রাচীন বঙ্গাব্দ ও খ্রিস্টাব্দের সমন্বয়ে সম্রাট আকবরের শাসনকালে ১৫৫৬ খ্রিস্টাব্দের ১৪ এপ্রিল প্রবর্তিত হয়। বাদশাহ আকবর কৃষকচক্রের সঙ্গে মিল রেখে এই সন চালু করার তাগিদ অনুভব করেন। ১৫৫৬ সন থেকেই বাদশা আকবর চান্দ্রবর্ষনির্ভর বাঙলাসালকে সৌরবর্ষ রূপে প্রচলন করেন। ১৫৭৬ সালে বাংলাদেশ মোঘল সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত হয়। তখন সন প্রবর্তনের দিনটিকে বলা হতো ‘তারিখ-ই-ইলাহি’। রামগোপাল দাস বাঙলা সনকে ‘যাবনী সাল’ বলে উল্লেখ করেছেন। নবরতœ সদস্য পন্ডিত আবুল ফজল রচিত ‘আইন-ই-আকবরী’ বা ‘আকবরনামা’ গ্রন্থে বাঙলা সন বিষয়ে বিবরণ আছে।
সুলতানী আমলের ইতিহাসবিদ সুখময় মুখোপাধ্যায় মনে করেন গৌড়রাজ শশাঙ্ক বাঙলাসনের প্রবর্তক। ইতিহাসবেত্তা যতীন্দ্রমোহন ভট্টাচার্য বলেন, বাঙলাসনের প্রবর্তক সুলতান হুসাইন শাহ। ‘বঙ্গাব্দের উৎসকথা’ গ্রন্থে ড. সুনীলকুমার বন্দ্যোপধ্যায় বলেন রাজা শশাঙ্ক ৫৯৪ সনের ১২ এপ্রিল বাঙলাসন প্রচলন করেন। কিন্তু বিজ্ঞানী মেঘনাদ সাহা, নেবেলবিজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন বলেন, বাঙলাসনের প্রবর্তক সম্রাট আকবর (১৫৫৬-১৬৩০)। বাদশা আকবর ১৫৫৬ খ্রিস্টাব্দের ১১ এপ্রিল (মতান্তরে ১২ এপ্রিল ) সিংহাসনে আরোহণ করেন বলে মত প্রকাশ করেন ‘বাংলাসনের জন্মকথা’ গ্রন্থের লেখক মো. আবু তালিব।
ভারতীয় বর্ষ গণনা ছিল সৌররীতির। মুসলিম সনগুলো ছিল চান্দ্রবর্ষ। বঙ্গাব্দ হিন্দু শাসক দ্বারা প্রবর্তিত ও অনুসৃত হয়। মুসলিম শাসকেরা সময় গণনায় হিজরি সনকে বরাবরই প্রাধান্য দিয়েছেন। বাদশাহ আকবরের পৌত্র সম্রাট শাহজাহান রোববার দিয়ে সপ্তাহ গণনার রীতি চালু করেন। ছ’শো বছর ব্যাপী মুসলিম শাসনামলে বছর গণনায় ইসলামী সনকে প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। কিন্তু প্রাচীনকাল থেকে ভারতে সৌরবর্ষ গণনার রীতি চালু ছিল। বাঙলাসন প্রচলনে খ্রিস্টীয় সৌররীতি ও ইসলামী চান্দ্ররীতি সমন্বিত হয়েছে।
পৃথিবীতে বর্ষ গণনায় দুটো পঞ্জিকার গুরুত্ব সমধিক। গ্রেগরীয় পঞ্জিকা ও জুলীয় পঞ্জিকা। জুলীয় পঞ্জিকা প্রবর্তন করেন রোম সম্রাট জুলিয়াস সিজার। রাজা সিজার ৪৬ খ্রিস্ট পূর্বাব্দে এই পঞ্জিকা চালু করেন। রোমান বর্ষপঞ্জি জুলীয় পঞ্জির ওপর ভিত্তি করে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। খ্রিস্টপূর্ব ৪৫ অব্দে মিশর রোমান জয় করে। ১৫৮২ সালে পোপ গ্রেগরি গ্রেগরীয় পঞ্জিকা প্রবর্তন করেন। দুটোই সৌর পঞ্জিকা। পৃথিবীর নানাদেশে নানা নামের বর্ষপঞ্জি চালু আছে। যেমন, আব উবে কন্দিতা, আর্মেনীয়, অ্যাসিরীয়, বাহাই, বেরবের, বাইজেন্টাইন, চীনা, হলোসিন, ইরানি, ইসলামী, কোরীয়, সিঙ্গু ইত্যাদি।
প্রাচীন ভারতে নানারকম সন বা সাল চালু ছিল। যেমন, খ্রিস্টাব্দ,বঙ্গাব্দ, হিজরি সন, শকাব্দ, বিক্রমাব্দ, জালালী সন, মল্লাব্দ, শালিবাহন সন, লক্ষ্মণাব্দ, গুপ্তাব্দ, চৈতনাব্দ, পালাব্দ ইত্যাদি। যীশু খ্রিস্টের জন্মের তিন বছর পর খিস্টাব্দ চালু হয়। মূলত গ্রেগরি পঞ্জিকা অনুসরণে এই সন গণনা করা হয়। বঙ্গাব্দ প্রবর্তন করেন প্রাচীন অখন্ড বাংলার স্বাধীন রাজা গৌড়পতি শশাঙ্ক। তিনি বাংলাদেশের বিভক্ত জনপদকে একীভূত করে অখন্ড বাংলার শাসক হন। শশাঙ্কের শাসনামলে জুলীয় পঞ্জিকা অনুসারে ৫৯৫ সনের ১৮ মার্চ আর গ্রেগরীয় পঞ্জিকা অনুসরণে ৫৯৪ সনের ২০ মার্চ বঙ্গাব্দ চালু হয় বলে তথ্য পাওয়া যায়। বাংলার সুলতান আলউদ্দিন হুসাইন শাহ বাংলাসন চালু করেছিলেন বলেও তথ্য পাওয়া যায়। মুঘল গভর্নর মুর্শিদ কুলি খাঁ ‘পুন্যাহ’ নামে খাজনা আদায়ের জন্য বাংলা দিন প্রবর্তন করেন। খ্রিস্টপূর্ব ৫৭ অব্দে রাজা বিক্রমাদিত্য বিক্রমী বর্ষপঞ্জি প্রচলন করেন। নানা সময় মন্দিরের গায়ে বঙ্গাব্দ শব্দটি উৎকীর্ণ হয়।
হজরত মুহাম্মদ সঃ ৬২২ খিস্টাব্দে মক্কা থেকে মদিনা হিজরত করেন। এই দিন থেকে হিজরি সাল গণনা করা হয়। বাঙলা সনের ৬২২ খ্রিস্টাব্দে হিজরত করলেও ৬৩৮ খ্রিস্টাব্দে হিজরি সন প্রবর্তন করেন ইসলামের ইতিহাসের দ্বিতীয় খলিফা হজরত ওমর (রঃ)। তিনি ৬২২ খ্রিস্টাব্দের ১ মোহররম থেকে হিজরি সাল গণনা শুরু করেন। বাঙলাসনের সঙ্গে হিজরি সনের পার্থক্য ১৪ বছর। মধ্যযুগের বাঙলা কবিদের অনেকেই হিজরি সন দিয়ে কাব্যের রচনাকাল নির্দেশ করেছেন।
বাঙলাসনের সঙ্গে খ্রিস্টাব্দের তফাত ৫৯৩ বছর। বাঙলাসনের সঙ্গে ৫৯৩ বছর যোগ করলে খিস্টাব্দ পাওয়া যায়। রাজা আদিমল্ল ৬৯৬ খিস্টাব্দে মল্লাব্দ প্রবর্তন করেন। কবি ফকির রাম কবিভূষণ তাঁর কাব্যের রচনাকাল মল্লাব্দে প্রকাশ করেন। শক রাজা শালিবাহন শকাব্দ প্রবর্তন করেন। বঙ্গাব্দ প্রচলনের অন্তত ৫১৫ বছর আগে শকাব্দ চালু হয় বলে ধারণা করা যায়। রাজা বিক্রমাদিত্য প্রবর্তন করেন বিক্রমাব্দ। লক্ষ্মণাব্দের প্রবর্তক বল্লাল সেনের পুত্র বাংলার শাসক লক্ষ্মণ সেন (১১১৮ সন থেকে)। পাল রাজারা পালাব্দ এবং শ্রী চৈতন্যের জন্ম সাল ১৪৮৫ অনুসরণে চৈতন্যাব্দ প্রচলিত হয়। আরাকান চন্দ্রবংশীয় শাসকেরা মঘী সনের প্রবর্তন করলে তা বাংলাদেশেও কিছু সময়ের জন্য চালু থাকে। মঘী সনের সঙ্গে ৬৩৮ বছর যোগ করলে খিস্টাব্দ পাওয়া যায়।
‘সন’ শব্দটি আরবি আর ‘সাল’ শব্দটি ফার্সি। সন বা সাল গণনায় তিনটি পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়- সৌর, চান্দ্র ও নাক্ষত্র পদ্ধতি। তিনটি পদ্ধতির মধ্যে সৌরবর্ষ গণনা পদ্ধতি অধিক নির্ভরযোগ্য ও বিজ্ঞানসম্মত। সূর্যের বার্ষিক গতি অনুসরণে সৌরবর্ষ গণনা করা হয়। সূর্য ৩৬৫ দিন ৫ ঘণ্টা ৪৮ মিনিট ৪৭ সেকেন্ড সময়ে একবার নিজ কক্ষপথ পরিক্রমণ করে। ৩৬৫ দিন হিসেবে বর্ষ গণনায় প্রায় ৬ ঘণ্টা সময় কম পড়ে বলে ৪ বছর পর পর একদিন যোগ করে হিসেব ঠিক রাখা হয়। এই বছরকে অধিবর্ষ বা লিপ ইয়ার বলে। চান্দ্রবর্ষ গণ্য হয় ৩৫৪ বা ৩৫৫ দিনে। সৌরবর্ষ গণনারীতির সঙ্গে চান্দ্রবর্ষে ১০/১১ কম পড়ে। তাই চান্দ্ররীতি বিজ্ঞাননির্ভর নয়। নাক্ষত্ররীতি তেমন প্রচলিত নয়। নাক্ষত্রবর্ষ গণনা করা হয় ৩৬০ দিনে।কোনো কোনো পন্ডিত মনে করেন বাঙলাসনের প্রকৃত প্রবর্তক রাজা শশাঙ্ক (৫৯০-৬২৫ খ্রি.)। বাদশা আকবর শাসনকার্যের সুবিধার জন্য ফসল ও খাজনা আদায় করার জন্য খ্রিস্টাব্দের সঙ্গে সমন¦য় করে এই সন নতুনভাবে চালু করেন। বসন্তের পর ফসল তোলা এবং খাজনা আদায়ের জন্য হিজরি ও খ্রিস্টাব্দ অনুসরণ করলে হিসেবে সমস্যা দেখা দিত বলে বঙ্গাব্দ ও খ্রিস্টাব্দের সমন্বয় করে বাংলাসন প্রবর্তন করেন। ইরানি জ্যোতির্বিদ ও পন্ডিত আমির ফতুল্লাহ শিরাজি সমন্বয়কারী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। বাংলাসনের সমন্বয় করতে গিয়ে তিনি ফার্সি পঞ্জিকা অনুসরণ করেন। তিনি ১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দে অর্থাৎ ৯৬২ হিজরি সনে বাংলাসন প্রবর্তন করেন। তখন ছিল হিজরি মোহররম মাস আর বাংলা ১ বৈশাখ। আমির ফতেহ উল্লাহ সিরাজি হিজরি সন অনুসারেই বাঙলাসন প্রবর্তন করেন। হিজরি সনের প্রথম মাস মোহররম। ১৯৫৬ সনে মোহররম ১ তারিখে ১৪ এপ্রিল ছিল বলে জানা যায়। এই হিসেবে ১৫৫৬ সনের ১৪ এপ্রিল তারিখে বাঙলাসনের ১ বৈশাখ ছিল বলে প্রতীয়মান হয়। ফতেহ উল্লাহ সিরাজি বাঙলামাসের নাম গ্রহণ করেন মহরাষ্ট্র শকাব্দ থেকে।
বাঙলাসন প্রথম দাক্ষিণাত্য ও আর্যাবর্তে চালু করা হয়। পরবর্তীতে বাঙলাসন বাঙলায় চালু হয়। বাঙলাসন চান্দ্রবর্ষ বলে সংস্কারের প্রয়োজন দেখা দেয়। ৯৬৩ হিজরি সনে সম্রাট আকবর বাঙলাসন চালু করেন (১৫৫৬ খ্রিস্টাব্দ)। হিসেব অনুসারে খিস্টাব্দ থেকে ৬২২ বছর বাদ দিলে হিজরি সন পাওয় যায়। বর্তমান হিসেবে খ্রিস্টসনের সঙ্গে বাঙলাসনের তফাত ৫৭৯ বছর। হিসেব মোতাবেক বাঙলাসন প্রবর্তনের বছর হবার কথা ১৫৮৫ খিস্টাব্দ (৯৬৩+৬২২= ১৫৮৫)। সম্রাট আকবর তাঁর সিংহাসন আরোহণের বছরের সঙ্গে মিল রেখে নির্ধারিত বছরের ৩০ বছর আগে বাঙলাসনের বছর নিধারণ করেন (১৫৫৬ খ্রিস্টাব্দে অর্থাৎ হিজরি ৯৬৩ সনে কোনো কোনো পন্ডিত মনে করেন বাঙলাসনের প্রকৃত প্রবর্তক রাজা শশাঙ্ক (৫৯০-৬২৫ খ্রি.))। বাদশা আকবর শাসনকার্যের সুবিধার জন্য ফসল ও খাজনা আদায় করার জন্য খ্রিস্টাব্দের সঙ্গে সমন¦য় করে এই সন নতুনভাবে চালু করেন। বসন্তের পর ফসল তোলা এবং খাজনা আদায়ের জন্য হিজরি ও খ্রিস্টাব্দ অনুসরণ করলে হিসেবে সমস্যা দেখা দিত বলে বঙ্গাব্দ ও খ্রিস্টাব্দের সমন্বয় করে বাঙলাসন প্রবর্তন করেন। ইরানি জ্যোতির্বিদ ও পণ্ডিত আমির ফতুল্লাহ শিরাজি সমন্বয়কারী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। বাঙলাসনের সমন্বয় করতে গিয়ে তিনি ফার্সি পঞ্জিকা অনুসরণ করেন। তিনি ১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দে অর্থাৎ ৯৬২ হিজরি সনে বাঙলাসন প্রবর্তন করেন। তখন ছিল হিজরি মোহররম মাস আর বাংলা ১ বৈশাখ। আমির ফতেহ উল্লাহ সিরাজি হিজরি সন অনুসারেই বাঙলাসন প্রবর্তন করেন। হিজরি সনের প্রথম মাস মোহররম। ১৯৫৬ সনে মোহররম ১ তারিখে ১৪ এপ্রিল ছিল বলে জানা যায়। এই হিসেবে ১৫৫৬ সনের ১৪ এপ্রিল তারিখে বাঙলাসনের ১ বৈশাখ ছিল বলে প্রতীয়মান হয়। ফতেহ উল্লাহ সিরাজি বাঙলামাসের নাম গ্রহণ করেন মহরাষ্ট্র শকাব্দ থেকে।
বাঙলাসন প্রথম দাক্ষিণাত্য ও আর্যাবর্তে চালু করা হয়। পরবর্তীতে বাঙলাসন বাঙলায় চালু হয়। বাঙলাসন চান্দ্রবর্ষ বলে সংস্কারের প্রয়োজন দেখা দেয়। ৯৬৩ হিজরি সনে সম্রাট আকবর বাঙলাসন চালু করেন (১৫৫৬ খ্রিস্টাব্দ)। হিসেব অনুসারে খিস্টাব্দ থেকে ৬২২ বছর বাদ দিলে হিজরি সন পাওয় যায়। এ হিসেবে বাঙলাসন প্রবর্তনের বছর হবার কথা ১৫৮৫ খিস্টাব্দ (৯৬৩+৬২২= ১৫৮৫)। সম্রাট আকবর তাঁর সিংহাসন আরোহণের বছরের সঙ্গে মিল রেখে নিধারিত বছরের ৩০ বছর আগে বাঙলাসনের বছর নির্ধারণ করেন (১৫৫৬ খ্রিস্টাব্দে অর্থাৎ হিজরি ৯৬৩ সনে আকবর দিল্লির সিংহাসনে আরোহণ করেন।)।
১৫৫৬ খিস্টাব্দ অর্থাৎ ৯৬৩ হিজরি থেকেই সনাতন চান্দ্ররীতি ভেঙে সৌররীতিতে বাঙলাসন গণনা শুরু হয়। এ বছর থেকে গ্রেগরি সনের মতো ৩৬৫ দিনের হিসেবে বাঙলাসনের বছর গণনা করা হয়। বাংলা একাডেমি বাঙলাপঞ্জিকা চালু করেছে ১৯৬৬ সন থেকে। বাংলা একাডেমি ১৯৬৬ সনের ১৭ ফেব্রুয়ারি পঞ্জিকা সমন্বয়ের লক্ষ্যে ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহকে প্রধান করে একটি কমিটি গঠন করে। এই কমিটি বাংলা, হিজরি সন ও খ্রিস্টাব্দ বিচার করে একটি পঞ্জিকা প্রণয়ন করে এবং চালু করে। সংশোধিত পঞ্জিকা চালু করা হয় ১৯৮৭ সন থেকে। বাংলা একাডেমি পঞ্জিকা প্রবর্তন করলেও হিন্দু সমাজের বিশেষ শ্রেণি ১ দিন হেরফের করে সনাতন পদ্ধতি অবলম্বন করে এক দিন পরে পয়লা নববর্ষ পালন করে থাকে। এবারও তারা আগামিকাল পয়লা বৈশাখ বা হালখাতা পালন করবে।
প্রাচীনকালে বৈদিকযুগে সন্ন্যাসী-সাধকগণ জ্যোতির্বিদ্যা তথা গ্রহ-নক্ষত্র নিয়ে গবেষণা করতো। বৈদিক জ্যোতির্বিদগণ বাংলা বর্ষপঞ্জিকার মূল নির্ধারক। বাঙলামাস ও দিনের নামকরণ তারাই করেছে। বাঙলামাস ও দিনের নাম ‘সূর্যসিদ্ধান্ত’ গ্রন্থ থেকে নেয়া। ৫৫০ সনে বরাহমিহির রাশি ও জ্যোতির্বিদ্যা বিষয়ক পুস্তক ‘পঞ্চসিদ্ধান্তিকা’ রচনা করেন। গ্রহ-নক্ষত্র বিষয়ে ধারণা দেন জ্যোতির্বিদ ব্রহ্মগুপ্ত। ‘পঞ্চসিদ্ধান্তিকা’ গ্রন্থে রাশিচক্র ও রাশিগুণ নিয়ে বিস্তারিত বর্ণনা দেয়া হয়েছে। রাশি পরিবর্তনকে সংক্রান্তি বলে। ১২ মাসের শেষদিনও সংক্রান্তি। গ্রহ-উপগ্রহ-নক্ষত্র অনুসারে বাঙলামাস ও বারের নাম: শনি (গ্রহ), রবি (নক্ষত্র-সূর্য), সোম (উপগ্রহ-চন্দ্র), মঙ্গল, (গ্রহ) বুধ (গ্রহ), বৃহস্পতি (গ্রহ), শুক্র (গ্রহ)। মাসের নাম- বৈশাখ (বিশাখা নক্ষত্র, রাধার সখি), জ্যৈষ্ঠ (জ্যেষ্ঠা নক্ষত্র), আষাঢ় (নক্ষত্র উত্তরাষাঢ়া), শ্রাবণ (নক্ষত্র শ্রবণা), ভাদ্র (নক্ষত্র পূর্ব ভাদ্রপদ), আশ্বিন (নক্ষত্র অশ্বিনী), কার্তিক (নক্ষত্র কৃািত্তকা) , অগ্রহায়ণ (নক্ষত্র মৃগশিরা), পৌষ নক্ষত্র (পুষ্যা), মাঘ নক্ষত্র (মঘা), ফাল্গুন (নক্ষত্র উত্তর ফাল্গুন), চৈত্র (নক্ষত্র চিত্রা)। বাংলাবছরে জলবায়ু অনুসারে ঋতু ছয়টি- গ্রীষ্ম, বর্ষা, শরৎ, হেমন্ত, শীত, বসন্ত; প্রতি দুমাসে একটি ঋতু।
ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ মুঘল আমল থেকে বাংলা পঞ্জিকাকে জাতীয় পঞ্জিকা করার প্রস্তাব দেন এবং বছরের হিসাব হিজরি সন অনুসারে গণনা করতে বলেন। তাঁর প্রস্তাব অনুসারে বৈশাখ থেকে ভাদ্র ৩১ দিন হিসেবে গণনা করতে হবে বাকি মাস হবে ৩০ দিনের। চার বছর পরপর চৈত্রমাসে ১ দিন যোগ করে অধিবর্ষ হিসেবে গণনা করতে হবে।
বর্তমানে বাঙলাপঞ্জিকা একটি সৌর পঞ্জিকা। বাংলাদেশে বাঙলাসন প্রবর্তনে বাংলা একাডেমির সক্রিয় ভূমিকা রয়েছে। ১৯৯৬ সনে বাংলা একাডেমি চূড়ান্ত সংস্কার শেষে বাঙলাসনের পঞ্জিকা প্রকাশ করে। অদ্যাবধি দেশের সর্বক্ষেত্রে ইংরেজি সনের পাশাপাশি বাঙলাসন চালু রয়েছে।
তথ্যসূত্র :
১. ভাষার ইতিবৃত্ত- ড. সুকুমার সেন
২. বৃহৎ বঙ্গ-ড. দীনেশচন্দ্র সেন
৩. বাংলাসন- শামসুজ্জামান খান
৪. বঙ্গাব্দের উৎসকথা- ড. সুনীলকুমার বন্দ্যোপাধ্যায়
৫. বাঙলাসন : বঙ্গ, বাঙালা ও ভারত- ব্রতীন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়
৬. পাণ্ডলিপি পাঠ ও পাঠ সমালোচনা- মুহম্মদ আবদুল কাইয়ুম
৭. তালিকা সমন্বয়- যতীন্দ্রমোহন ভট্টাচার্য
৮. বাংলাসনের জন্মকথা- মো. আবু তালিব
৯. বর্ষ গণনার ইতিহাস- আবুল হাসান মাহমুদ সনাতন চান্দ্ররীতি ভেঙে সৌররীতিতে বাংলাসন গণনা শুরু হয়। এ বছর থেকে গ্রেগরি সনের মতো ৩৬৫ দিনের হিসেবে বাংলাসনের বছর গণনা করা হয়। বাংলা একাডেমি বাংলা পঞ্জিকা চালু করেছে ১৯৬৬ সন থেকে। বাংলা একাডেমি ১৯৬৬ সনের ১৭ ফেব্রুয়ারি পঞ্জিকা সমন্বয়ের লক্ষ্যে ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহকে প্রধান করে একটি কমিটি গঠন করে। এই কমিটি বাংলা, হিজরি সন ও খ্রিস্টাব্দ বিচার করে একটি পঞ্জিকা প্রণয়ন করে এবং চালু করে। সংশোধিত পঞ্জিকা চালু করা হয় ১৯৮৭ সন থেকে। বাংলা একাডেমি পঞ্জিকা প্রবর্তন করলেও হিন্দু সমাজের বিশেষ শ্রেণি ১ দিন হেরফের করে সনাতন পদ্ধতি অবলম্বন করে এক দিন পরে পয়লা নববর্ষ পালন করে থাকে। এবারও তারা আগামিকাল পয়লা বৈশাখ বা হালখাতা পালন করবে।
প্রাচীনকালে বৈদিকযুগে সন্ন্যাসী-সাধকগণ জ্যোতির্বিদ্যা তথা গ্রহ-নক্ষত্র নিয়ে গবেষণা করতো। বৈদিক জ্যোতির্বিদগণ বাংলা র্বর্ষপঞ্জিকার মূল নির্ধারক। বাংলা মাস ও দিনের নামকরণ তারাই করেছে। বাংলামাস ও দিনের নাম ‘সূর্যসিদ্ধান্ত’ গ্রন্থ থেকে নেয়া। ৫৫০ সনে বরাহমিহির রাশি ও জ্যোতির্বিদ্যা বিষয়ক পুস্তক ‘পঞ্চসিদ্ধান্তিকা’ রচনা করেন। গ্রহ-নক্ষত্র বিষয়ে ধারণা দেন জ্যোতির্বিদ ব্রহ্মগুপ্ত। ‘পঞ্চসিদ্ধান্তিকা’ গ্রন্থে রাশিচক্র ও রাশিগুণ নিয়ে বিস্তারিত বর্ণনা দেয়া হয়েছে। রাশি পরিবর্তনকে সংক্রান্তি বলে। ১২ মাসের শেষদিনও সংক্রান্তি। গ্রহ-উপগ্রহ-নক্ষত্র অনুসারে বাংলা মাস ও বারের নাম: শনি (গ্রহ), রবি (নক্ষত্র-সূর্য), সোম (উপগ্রহ-চন্দ্র), মঙ্গল, (গ্রহ) বুধ (গ্রহ), বৃহস্পতি (গ্রহ), শুক্র (গ্রহ)। মাসের নাম- বৈশাখ (বিশাখা নক্ষত্র, রাধার সখি), জ্যৈষ্ঠ (জ্যেষ্ঠা নক্ষত্র), আষাঢ় (নক্ষত্র উত্তরাষাঢ়া), শ্রাবণ (নক্ষত্র শ্রবণা), ভাদ্র (নক্ষত্র পূর্ব ভাদ্রপদ), আশ্বিন (নক্ষত্র অশ্বিনী), কার্তিক (নক্ষত্র কৃািত্তকা) , অগ্রহায়ণ (নক্ষত্র মৃগশিরা), পৌষ নক্ষত্র (পুষ্যা), মাঘ নক্ষত্র (মঘা), ফাল্গুন (নক্ষত্র উত্তর ফাল্গুন), চৈত্র (নক্ষত্র চিত্রা)। বাংলাবছরে জলবায়ু অনুসারে ঋতু ছয়টি- গ্রীষ্ম, বর্ষা, শরৎ, হেমন্ত, শীত, বসন্ত; প্রতি দুমাসে একটি ঋতু।
ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ মুঘল আমল থেকে বাংলা পঞ্জিকাকে জাতীয় পঞ্জিকা করার প্রস্তাব দেন এবং বছরের হিসাব হিজরি সন অনুসারে গণনা করতে বলেন। তাঁর প্রস্তাব অনুসারে বৈশাখ থেকে ভাদ্র ৩১ দিন হিসেবে গণনা করতে হবে বাকি মাস হবে ৩০ দিনের। চার বছর পরপর চৈত্রমাসে ১ দিন যোগ করে অধিবর্ষ হিসেবে গণনা করতে হবে।
বর্তমানে বাংলা পঞ্জিকা একটি সৌর পঞ্জিকা। বাংলাদেশে বাংলাসন প্রবর্তনে বাংলা একাডেমির সক্রিয় ভূমিকা রয়েছে। ১৯৯৬ সনে বাংলা একাডেমি চূড়ান্ত সংস্কার শেষে বাংলাসনের পঞ্জিকা প্রকাশ করে। অধ্যাবধি দেশের সর্বক্ষেত্রে ইংরেজি সনের পাশাপাশি বাংলাসন চালু রয়েছে।
তথ্যসূত্র :
১. ভাষার ইতিবৃত্ত- ড. সুকুমার সেন
২. বৃহৎ বঙ্গ-ড. দীনেশচন্দ্র সেন
৩. বাংলাসন- শামসুজ্জামান খান
৪. বঙ্গাব্দের উৎসকথা- ড. সুনীলকুমার বন্দ্যোপাধ্যায়
৫. বাঙলাসন : বঙ্গ, বাঙালা ও ভারত- ব্রতীন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়
৬. পাণ্ডলিপি পাঠ ও পাঠ সমালোচনা- মুহম্মদ আবদুল কাইয়ুম
৭. তালিকা সমন্বয়- যতীন্দ্রমোহন ভট্টাচার্য
৮. বাংলাসনের জন্মকথা- মো. আবু তালিব
৯. বর্ষ গণনার ইতিহাস- আবুল হাসান মাহমুদ

396 total views, 3 views today

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here