ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জনপ্রিয় হয়ে উঠছে মাল্টার চাষ

0
97

ইউএনবি:- ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে মাল্টার চাষ। পুষ্টির চাহিদা মিটাতে এতদিন শুধুমাত্র আমদানীকৃত মাল্টার উপর নির্ভর করা হলেও এ জেলায় গত কয়েক বছর মানসম্পন্ন মাল্টার চাষ হওয়ায় আশাবাদী হয়ে উঠেছে কৃষক।

কৃষকরা জানায়, সাইট্রাস ডেভলপমেন্ট প্রকল্পের আওতায় ২০১৩-১৪ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রথম মাল্টার চাষ শুরু হয়। প্রথমে সীমিত আকারে চাষ হলেও এখন বাড়ছে বাগানের সংখ্যা।
এ বছর জেলার বিজয়নগর, কসবা ও আখাউড়া উপজেলার প্রায় ৭০০ বিঘা জমিতে মাল্টার চাষ করা হয়েছে।
জেলার কৃষি বিভাগ সূত্র জানায়, চলতি বছর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১২৫ মেট্রিক টন মাল্টা উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।
তবে লক্ষ্যমাত্রার চেয়েও উৎপাদন বেশি হবে বলে জানিয়েছেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ আবু নাছের।
তিনি বলেন, ২ শতাধিক বড় বাগান ছাড়াও পারিবারিক ভাবে গড়ে উঠেছে আরো ২ হাজার বাগান। ফলে মাল্টা উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রাকে অতিক্রম করবে।
১২৫ মেট্রিক টন মাল্টা উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হলে সরকারের প্রায় ১৫ কোটি টাকা রাজস্ব সাশ্রয় হবে বলে জানিয়েছে কৃষি বিভাগ।
কৃষি বিভাগ আরো জানায়, উৎপাদিত মাল্টা সংরক্ষণ, বাজারজাত করা ও সরবরাহ বিষয়ে কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে কৃষকসহ সংশ্লিষ্টদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে।
মাল্টা চাষীরা জানায়, বারি মাল্টা-১ নামে খ্যাত এখানকার মাল্টা খুবই সুস্বাদু। আমদানীকৃত মাল্টার চেয়েও গুণ-মান ভালো। চারা রোপনের ২/৩ বছরের মধ্যেই ফল আসায় এবং লাভজনক হওয়ায় বাড়ছে চাষীর সংখ্যা।
বেশ কয়েকজন চাষীর সাথে কথা হলে তারা ইউএনবিকে জানায়, প্রয়োজনীয় সরকারি সহযোগিতা পেলে উৎপাদিত মাল্টা স্থানীয়ভাবে চাহিদা মিটিয়েও বিদেশে রপ্তানি করা সম্ভব।
তারা জানায়, ইতিমধ্যে মাল্টা আমদানিকারক আড়ৎদাররা দেশিয় মাল্টা ক্রয় করতে চাষীদের সাথে যোগযোগ করছে।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ আবু নাছের বলেন, মাঠ পর্যায়ে কৃষকদের বিভিন্ন পরামর্শ দেয়ায় চাষীরা মাল্টা চাষে উদ্বুদ্ধ হচ্ছে। সেই সাথে ফলন ভাল হওয়ায় তারা লাভবান হবে।

117 total views, 3 views today

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here