রায়পুরায় ফুল চাষে ভাগ্যবদল করলেন আবু সাঈদ

0
149

রায়পুরা প্রতিনিধি: একটি পত্রিকায় ফুলচাষে ভাগ্যবদল প্রতিবেদন দেখে এখন নিজের ভাগ্যবদল করলেন নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার করিমগঞ্জ নয়াহাটি গ্রামের আবদুল কাদির মিয়ার ছেলে মাস্টার্স ফাইনাল এর ছাত্র আবু সাঈদ। মাত্র ১০ শতক জমিতে ২০১৪ সালে গোলাপ ফুলের চাষ করেন পাঁচ বন্ধু আবু সাঈদ, ইমাম হোসেন, রুমান ভূইয়া, সাদ্দাম হোসেন ও মুজাহিদুল ইসলাম মামুন। নরসিংদী সরকারি কলেজ পড়–য়া আবু সাঈদ লেখাপড়ার পাশাপাশি যৌথভাবে সম্ভাবনাময় এ ফুল চাষ শুরু করেন। একসময় অন্য বন্ধুরা বিভিন্ন পেশায় জড়িয়ে পড়েন কিন্তু আবুসাঈদ লেখাপড়ার পাশাপাশি ফুলচাষ করে এখন“ফুলঘর”নামে হাসনাবাদ বাজারে ২টি ফুলের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন। নিজের দোকান সহ জেলা শহরের দোকানগুলোতে তার ফুলের খুব চাহিদা রয়েছে। দেশের বিভিন্ন জেলায় তার ফুল বাণিজ্যিকভাবে বিক্রির ব্যাপক সাড়া পড়েছে। নিজের বা পৈত্রিক কোন জমি নেই জমিভাড়া করে ফুলের চাষ করে মাত্র ৩/৪ বছরে লাখপতি বনে গেছেন আবু সাঈদ।
ফুলচাষী আবুসাঈদ ও ইমাম হোসেন জানান, ২০০৯ সালে পত্রিকায় ফুলচাষের প্রতিবেদন পড়ে ফুলচাষে আগ্রহী হয়ে পড়েন। পত্রিকার ঠিকানায় ২০১৪ সালের শুরুতে চট্টগ্রামের পুটিয়া আনোয়ারায় আঃমোতালিব এর ফুলবাগান দেখতে যান ৫ বন্ধু। বাগানের মালিককে না পেলেও তাদের কথা হয় তার বাগানের কর্মচারী আজিমনূর এর সাথে ঠিকানা ও পরামর্শ নিয়ে ঢাকার সাভার সাদুল্লাহপুর বিরুলিয়া থেকে প্রথম গোলাপ ফুলের চারা নিয়ে গোলাপ ফুলের চাষ করেন তারা। একসময় ফূলচাষ সবায় ছেড়ে দিলেও পরিশ্রম আর ভাগ্যবদলের নেশায় মাতুয়ারা আবুসাঈদ এর জীবন শুরু হয় ফুলচাষে ভাগ্যবদল। পাঁচ ভাই দুই বোন এর মধ্যে আবুসাঈদ সবার বড়। নিজের ও অভাবের সংসারে নিজের খরচ সহ ভাই বোনের লেখাপড়ার খরচ চালাতে শুরু করেন। পিতার পাশে দাড়ালেন আর্থিক সহায়তার হাত বাড়িয়ে সংসারকে আলোকিত করেছেন। পাশাপাশি হাসনাবাদ বাজারে ফুলের বৃহত্তর দোকান রয়েছে। এতে কলেজ পড়–য়া ভাই ইয়ামিন এর কর্মসংস্থান সহ অনেক মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে। সবজি ও কৃষি চাষ এলাকায় এখন ফুলের বাগান গড়ে উঠেছে। প্রতিদিন দূর-দূরান্ত থেকে সাধারণ মানুষ আবুসাঈদ এর ফুল বাগান দেখতে আসেন।

450 total views, 3 views today

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here