1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : news post : news post
  3. [email protected] : taifur nur : taifur nur
April 18, 2024, 8:43 pm
সর্বশেষ সংবাদ
আগে ঘরের ছেলেরা নিরাপদে ঘরে ফিরুক উপজেলা নির্বাচনে শুধু প্রার্থী নয়, যে কেউ প্রভাব বিস্তার করবে তার বিরুদ্ধেও পদক্ষেপ নেয়া হবে: ইসি মো. আলমগীর নরসিংদী জেলা পুলিশের নিয়মিত অভিযানে ১১ কেজি গাঁজা ও ১০৫ পিস ইয়াবা উদ্ধার গ্রেফতার ০৩ নরসিংদীতে ইউপি সদস্য খুন ‘ইসমাইলকে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই জড়িত সবার নাম-পরিচয় জানা যাবে’ অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনারে বিরুদ্ধে অপপ্রচারের প্রতিবাদে ৯৮ ব্যাচ বন্ধুদের সংবাদ সম্মেলন মাধবদীর নুরালাপুরে ভূমি দস্যু ও মামলাবাজ আনজত আলীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ জনসাধারণ রায়পুরায় বজ্রপাতে একজন নিহত নরসিংদী পৌর মেয়র আমজাদ হোসেন বাচ্চুর সফলতার ৩ বছর উৎযাপন শিবপুরে সৎ মায়ের নির্যাতনে শিকার ৩ ভাই ঘর ছাড়া মেলায় দৌলতপুর ইউপি সদস্যের জুয়ার আসর!!

রোজায় গরুর মাংসের দাম অনির্ধারিত, বিপাকে ক্রেতারা

প্রতিবেদকের নাম
  • পোস্টের সময় Monday, April 27, 2020
  • 526 বার দেখা হয়েছে

গ্রামীণ দর্পণ ডেস্ক: ঢাকায় গত মাসের শুরুর দিকেও গরুর মাংসের কেজি ৫৫০ টাকার মধ্যে ছিল। দাম নতুন করে বেড়েছে করোনাভাইরাসের কারণে সাধারণ ছুটি শুরু হওয়ার আগে। সেটি আর কমার নাম নেই। অন্যদিকে পবিত্র রজমান মাসে ভোক্তাদের সুবিধার্থে সিটি করপোরেশন ও ব্যবসায়িরা বৈঠক করে গরুর মাংসের দাম নির্ধারণ করে দিতেন। এবার তাঁরা তা করেননি। বাজারে গরুর মাংসের দাম এখন লাগামছাড়া। বেশির ভাগ বাজারে প্রতি কেজি মাংস ৬০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। কোথাও কোথাও দেশি ছোট গরু দাবি করে বিক্রেতারা মাংসের কেজি ৬৫০ টাকাও চাইছেন।
বাজারে গরুর মাংসের দাম বাড়তে থাকে ২০১৪ সাল থেকে। ওই বছর ভারতে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকার ক্ষমতায় আসার পর বাংলাদেশে ভারতের গরু আনা সীমিত হয়ে যায়। এরপর দেশে গরু পালনে ঋণ দেওয়া, জাত উন্নত করাসহ বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হয়। অনেক তরুণ গরুর খামার করতে এগিয়ে আসেন। ফলে দেশে মাংসের উৎপাদন বাড়ে।
প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের হিসাবে, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে দেশে ৭৫ লাখ ১৪ হাজার টন মাংস উৎপাদিত হয়েছে, যা মোট চাহিদার চেয়েও বেশি। খামার মালিকদের সমিতি দাবি করে, দেশে এখন চাহিদা অনুযায়ী গরুর মাংস উৎপাদিত হচ্ছে। এ কারণ দেখিয়ে হিমায়িত মাংস আমদানির উদ্যোগের বিরোধিতা করেছে তারা। সরকারও আমদানিতে আগ্রহ দেখায়নি। কিন্তু গরুর মাংসের দাম আর কমছে না।
প্রতিবছর রোজা শুরুর আগে সিটি করপোরেশন ও ব্যবসায়িদের মধ্যে বৈঠকে গরুর মাংসের দাম ঠিক করে দেওয়া হয়। গত বছর প্রতি কেজি মাংসের দাম ঠিক হয়েছিল ৫২৫ টাকা। ব্যবসায়িরা জানিয়েছেন, এবারও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের সঙ্গে বৈঠক হয়েছিল। তবে দাম নির্ধারণ হয়নি।
ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোমিনুর রহমান বলেন, ‘গরুর মাংসের দাম নির্ধারণ প্রক্রিয়াধীন আছে। কারণ এখন যে অবস্থা তাতে মাংস ব্যবসায়ী ও সংবাদকর্মীদের সঙ্গে উন্মুক্ত আলোচনা করা সম্ভব হচ্ছে না। এ কারণে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া যায়নি। এসব বিষয়ে ২২ এপ্রিল বাণিজ্য মন্ত্রণালয় বরাবর একটি চিঠি পাঠিয়েছি। মন্ত্রণালয় থেকে যেভাবে সিদ্ধান্ত দেওয়া হবে তা মানা হবে।’
মোমিনুর রহমান জানান, সোমবার পর্যন্ত মন্ত্রণালয় থেকে কোনো উত্তর পাননি। তিনি বলেন, ‘প্রতিবছর দাম নির্ধারণের বিষয়টি দক্ষিণ সিটি করপোরেশন থেকে করা হতো। উত্তরেও আমরা সেভাবে কাজ করতাম। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে তা সম্ভব হয়নি।’
ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র জামাল মোস্তফা ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে মাংসের দাম নিয়ে বৈঠক হয়েছে বলে জানান মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব রবিউল আলম। তিনি বলেন, ‘আমরা চেয়েছি গাবতলী গরুর হাটে সরকার নির্ধারিত খাজনা আদায় হোক। সঙ্গে আমাদের কার্যালয়টি দখলমুক্ত করা হোক। তাঁরা সেটা করতে না পারবেন না। এরপর আমরা চলে আসছি।’
ভোক্তা অধিকার সংগঠন কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমান বলেন, ‘গরুর মাংস উৎপাদনে আমরা স্বাবলম্বী হয়েছি ঠিকই, তবে এজন্য মূল্য দিতে হয়েছে। মাংস নাগালে আনতে উৎপাদন খরচ কমিয়ে আনতে হবে।’ তিনি বলেন, রোজায় গরুর মাংসের দাম নির্ধারণ করা উচিত ছিল। তাহলে মানুষ একটু স্বস্তি পেত।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো দেখুন