1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : news post : news post
  3. [email protected] : taifur nur : taifur nur
March 3, 2024, 11:35 pm
সর্বশেষ সংবাদ
রিয়েলিটি শো’র বিচারকের আসনে রাজীব মণি দাস নরসিংদীর আঞ্চলিক শব্দকোষ’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন বেলাব উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী হতে চান মোঃ খোর্শেদ আলম নরসিংদী জেলা পর্যায়ে প্রাথমিক শিক্ষা পদক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত মল্লিকপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, সাংস্কৃতিক ও শিশুবরণ অনুষ্ঠিত নরসিংদীতে মাসব্যাপী গোল্ডকাপ ব্যাডমিন্টন টুর্ণামেন্টে নরসিংদী পৌরসভা চ্যাম্পিয়ন উপজেলা নির্বাচনে শিবপুরে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা সরব বিএনপি নীরব বেলাবতে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত এক আসামী গ্রেফতার পলাশে জব্দকৃত ভেজাল সার ধ্বংস করলেন কৃষি কর্মকর্তা মনোহরদী উপজেলা প্রেসক্লাবের যাত্রা শুরু সভাপতি কাজী শরিফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আজমিরী সুলতানা

আজ ক্রীড়া সাংবাদিকতা দিবস

গ্রামীণ দর্পণ ডেস্ক
  • পোস্টের সময় Thursday, July 2, 2020
  • 493 বার দেখা হয়েছে

গ্রামীণ দর্পণ ডেস্কঃ আধুনিক বিশ্বে ক্রীড়া সাংবাদিকতার ভূমিকা এবং গুরুত্ব কারো অজানা নয়। বর্তমান সময়ে খেলাধুলা হচ্ছে একটি বড় ধরনের সংবাদ যৌগ। ক্রীড়া সাংবাদিক এবং লেখকরা হলেন ক্রীড়াঙ্গনের চোখ, মানুষের শব্দ এবং কণ্ঠস্বর। খেলাধুলা এখন তো আলাদা একটা জগৎ। আর এই বর্ণময় জগতের গুরুত্ব এবং প্রয়োজনীয়তা অনেক বেশি। ক্রীড়া সাংবাদিকতা আর ক্রীড়াঙ্গন অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত। একটি বাদ দিয়ে অন্যটি ভাবা যায় না।

আধুনিক বিশ্বে ক্রীড়া সাংবাদিকতার ভূমিকা এবং গুরুত্ব কারো অজানা নয়। বর্তমান সময়ে খেলাধুলা হচ্ছে একটি বড় ধরনের সংবাদ যৌগ। ক্রীড়া সাংবাদিক এবং লেখকরা হলেন ক্রীড়াঙ্গনের চোখ, মানুষের শব্দ এবং কণ্ঠস্বর। খেলাধুলা এখন তো আলাদা একটা জগৎ। আর এই বর্ণময় জগতের গুরুত্ব এবং প্রয়োজনীয়তা অনেক বেশি। ক্রীড়া সাংবাদিকতা আর ক্রীড়াঙ্গন অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত। একটি বাদ দিয়ে অন্যটি ভাবা যায় না।

২ জুলাই বিশ্ব ক্রীড়া সাংবাদিক দিবস। ১৯২৪ সালের ২ জুলাই এআইপিএসের (ইন্টারন্যাশনাল স্পোর্টস প্রেস অ্যাসোসিয়েশন) জন্ম ফ্রান্সে। সেই হিসেবে ২ জুলাই ২০২০ বিশ্বের ক্রীড়া সাংবাদিক ও ক্রীড়া লেখকদের আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত একমাত্র সংস্থা এআইপিএসের ৯৬ তম জন্ম বার্ষিকী। ১৯৯৫ সন থেকে এআইপিএস এর বিশ্ব জুড়ে “অ্যাফিলিয়েটেড” সংস্থাগুলো দেশে বিশ্ব ক্রীড়া সাংবাদিক দিবস পালন করছে। বর্তমানে এআইপিএস সদস্য দেশের সংখ্যা ১৬৭। আর বাংলাদেশে এর স্বীকৃত সংস্থা হচ্ছে বাংলাদেশ ক্রীড়ালেখক সমিতি। বাংলাদেশে এআইপিএস’র একমাত্র স্বীকৃত ক্রীড়া সাংবাদিক ও ক্রীড়া লেখকদের প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ক্রীড়ালেখক সমিতি এবং তার আঞ্চলিক সংস্থাগুলোও গত ১৯৯৫ সাল থেকে বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে প্রতিবারই দিবসটি উদযাপন করেছে।

১৯৭১ সালে দেশ স্বাধীন হবার পর ক্রীড়াঙ্গনের প্রেক্ষাপট পাল্টে যায়। স্বাভাবিকভাবেই ক্রীড়া সাংবাদিকতা ও লেখনির গুরুত্ব অনুভূত হয়। সবকিছুই শূন্য থেকে শুরু করা নতুন দৃষ্টিভঙ্গি এবং স্বপ্ন নিয়ে। ১৯৭২ সালের ৪ আগস্ট জাতীয় প্রেসক্লাবের দোতালায় তদানীন্তন “মর্নিং নিউজের ক্রীড়া সাংবাদিক মি. ডেভিটসনের সভাপতিত্বে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। এই সভায় সর্বসম্মতিক্রমে ১৯৬২ সালে প্রতিষ্ঠিত পূর্ব পাকিস্তান ক্রীড়ালেখক সমিতিকে বাংলাদেশ ক্রীড়ালেখক সমিতি নামে নতুন করে তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়ে সদস্য বিশিষ্ট কার্যনির্বাহী পরিষদ গঠিত হয়। সভাপতি করা হয় আবদুল হামিদকে, সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান। সেই পূর্ব পাকিস্তান ক্রীড়া লেখক সমিতি কর্তৃক শুরু করা বছরের সেরা খেলোয়াড় পুরস্কৃত করার রেওয়াজ অনুযায়ী বাংলাদেশ ক্রীড়া লেখক সমিতি ১৯৭৩ সালের সেরা খেলোয়াড়দের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের প্রথম আয়োজন করে ১৯৭৪ সালে। ঢাকা স্টেডিয়ামে তিনতলায় পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা ও ক্রীড়ামন্ত্রী অধ্যাপক ইউসুফ আলী। ক্রীড়াঙ্গনে সবচে মর্যাদাপূর্ণ এবং বিতর্কের উর্ধ্বে এই পুরস্কার এখনো নিয়মিতভাবে দেয়া হচ্ছে বিভিন্ন খেলার “ডিসিপ্লিনে”। প্রসঙ্গত, জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার শুরুর আগে থেকেই ক্রীড়ালেখক সমিতির পুরস্কারের শুরু এবং সে হিসাবে এটা বাংলাদেশের প্রথম ক্রীড়ার জাতীয় পুরষ্কার।

১৯৯২ সালের ২৪ মে নভেম্বর বাংলাদেশ ক্রীড়া লেখক সমিতি সিউলে অনুষ্ঠিত আসপুর কংগ্রেসে (এশিয়ান স্পোটর্স প্রেস ইউনিয়ন) সদস্যপদ লাভ করে। এশিয়ান স্পোর্টস প্রেস ইউনিয়নের সদস্য পদ লাভ করে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে ক্রীড়া লেখক সমিতি একধাপ এগিয়ে যাবার পর লক্ষ্য হয়ে দাঁড়ায় এআইপিএসের সদস্য পদ লাভ। ৭ই মে, ১৯৯৩ পূরণ হয় সেই প্রত্যাশা। বাংলাদেশ ক্রীড়া লেখক সমিতি এএসইপিএস-এর সদস্য পদ লাভ করে। আন্তর্জাতিক সংস্থার সদস্য হওয়ার কারণে দক্ষিণ এশীয় স্পোর্টস প্রেস কমিশন গঠনের দায়িত্ব দেওয়া হয় বাংলাদেশ ক্রীড়ালেখক সমিতিকে। আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলের দরজা খোলার পর সমিতির সদস্যরা বিশ্বমঞ্চেও নিজেদের জায়গা করে নিতে থাকেন। রকিবুল হাসান ১৯৯৪ সালে আসপুতে নির্বাহী সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০২ সালে ইকরাম উজ্জামানও নির্বাচিত হন সদস্য। এরপর ২০০৬ সালে নির্বাচনে তিনি সহসভাপতি পদে নির্বাচিত হন চার বছরের জন্য।

অর্থাৎ বাংলাদেশ ক্রীড়ালেখক সমিতি সূত্রে বাংলাদেশের ক্রীড়া সাংবাদিকরা এখন দেশের গন্ডি ছাড়িয়ে বিচরণ করছেন বাইরেও। এবং দিচ্ছেন নেতৃত্বও। আর সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে তাদের অগ্রগতি যে হয়েছে তাঁর প্রমাণ তো এখনকার পত্রিকার পাতা এবং টিভির খেলার খবর। অভিজ্ঞ ক্রীড়া সাংবাদিকদের পথ ধরে এসে উদ্যমী তরুণ প্রজন্ম দিচ্ছে তাতে নতুন নতুন মাত্রা। সেটা আরও এগিয়ে যাক, ক্রীড়া সাংবাদিকতার মাধ্যমে বাংলাদেশের সাংবাদিকরা খেলাকে নিয়ে যাবেন আরও উঁচুতে আজকের বিশ্ব ক্রীড়া সাংবাদিক দিবসে এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো দেখুন