1. grameendarpan@gmail.com : admi2017 :
শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২০, ০৪:৩০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
নরসিংদী জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে শারদীয় শুভেচ্ছা প্রদান মাধবদীতে পূজামন্ডপ পরিদর্শন করেছেন নরসিংদীর জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন নরসিংদীতে দূর্গা পুজা পরিদর্শন করেছেন এমপি বুবলী মেহেরপাড়া ইউপি চেয়ারম্যানের উদ্যোগে দুর্গোৎসব উপলক্ষে বিভিন্ন অনুদান প্রদান চ্যানেল এস টেলিভিশনের মাধবদী প্রতিনিধি সুমন পালের পিতার ইন্তেকাল শিবপুরে ইটাখোলা হাইওয়ে পুলিশের নিরাপদ সড়ক শীর্ষক সচেতনতা দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে পুলিশের নিরাপত্তা পরামর্শ শিবপুরে বঙ্গবন্ধু স্মরণে ম্যুরাল ‘চিরঞ্জীব মুজিব’ ও ভুমি অফিসের ছাদবাগান ‘নির্মল কাব্য’ এর উদ্বোধন করলেন ডিসি জেলা প্রশাসক শিবপুর সফর রমা ও একটি আমগাছ
শিরোনাম :
নরসিংদী জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে শারদীয় শুভেচ্ছা প্রদান মাধবদীতে পূজামন্ডপ পরিদর্শন করেছেন নরসিংদীর জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন নরসিংদীতে দূর্গা পুজা পরিদর্শন করেছেন এমপি বুবলী মেহেরপাড়া ইউপি চেয়ারম্যানের উদ্যোগে দুর্গোৎসব উপলক্ষে বিভিন্ন অনুদান প্রদান চ্যানেল এস টেলিভিশনের মাধবদী প্রতিনিধি সুমন পালের পিতার ইন্তেকাল শিবপুরে ইটাখোলা হাইওয়ে পুলিশের নিরাপদ সড়ক শীর্ষক সচেতনতা দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে পুলিশের নিরাপত্তা পরামর্শ শিবপুরে বঙ্গবন্ধু স্মরণে ম্যুরাল ‘চিরঞ্জীব মুজিব’ ও ভুমি অফিসের ছাদবাগান ‘নির্মল কাব্য’ এর উদ্বোধন করলেন ডিসি জেলা প্রশাসক শিবপুর সফর রমা ও একটি আমগাছ

দেশের প্রথম নারী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন সাহারা খাতুন

স্টাফ রিপোর্টার
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১১ জুলাই, ২০২০
  • ৩৯ বার

স্টাফ রিপোর্টারঃ চলে গেলেন সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন। গতকাল (বৃহস্পতিবার) রাত পৌনে ১২টার দিকে তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৭ বছর। থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে মৃত্যু হয় তার।

অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে শোক জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক হিসেবে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা ও মানুষের অধিকার আদায়ের সংগ্রামে আজীবন কাজ করে গেছেন তিনি।

১৯৪৩ সালে পহেলা মার্চ ঢাকার কুর্মিটোলায় জন্ম নেন সাহারা খাতুন। বাবা আবদুল আজিজ ছিলেন একজন শিক্ষানুরাগী ও রাজনীতি সচেতন মানুষ। তাই বলা যায় বাবার কাছেই সাহারা খাতুনের রাজনীতির হাতেখড়ি।

১৯৬০ সালে তিনি ম্যাট্রিকুলেশন পাশ করেন। পাকিস্তানের করাচি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বি.এ পাস করেন তিনি। সাহারা খাতুন সরাসরি রাজনীতে জড়ান ছাত্রলীগের মাধ্যমে ১৯৬৭ সালে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইনে ভর্তি হলেও তা রাজনৈতিক ব্যস্ততায় শেষ করা হয়নি।

এর পরে সেন্ট্রাল ল কলেজ থেকে এলএলবি ডিগ্রি নেন তিনি। আর ১৯৮১ সালে আইন পেশায় যুক্ত হন প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের জুনিয়র হিসেবে।

১৯৬৯ সালে আওয়ামী লীগের মহিলা শাখা গঠিত হলে সক্রিয় হন সাহারা খাতুন। একাত্তুরে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ভাষণের দিন মহিলা লীগের কর্মীদের সাথে নিয়ে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের জনসভায় যোগ দেন তিনি। বঙ্গবন্ধুর ডাকে অনুপ্রাণিত হয়ে মুক্তিযুদ্ধে নারীদের সংগঠিত করেন।

আইনজীবীদের বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উদ্বুদ্ধ করে গঠন করেন আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ। ছিলেন বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদকও। আন্তর্জাতিক মহিলা আইনজীবী সমিতি ও মহিলা জোটের সদস্য ছিলেন অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন।

মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন সাহারা খাতুন। ২০০২ সালে আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক হন তিনি। ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপি-জামায়াত সরকারের বিরুদ্ধে রাজপথে সোচ্চার ছিলেন তিনি।

আর ২০০৭ সালে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার মুক্তির আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন এই আইনজীবী নেতা। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য হন তিনি।

তিনি ২০০৮ সালে ঢাকা-১৮ আসনে প্রথমবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। সেবারই দেশের প্রথম নারী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পান সাহারা খাতুন। আর সে সময় বিডিআর বিদ্রোহ দমনে স্বরাষ্টমন্ত্রী হিসেবে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকাও পালন করেন। এর পরে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেন তিনি। আর এরপর আরো দুবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..