1. grameendarpan@gmail.com : admi2017 :
সোমবার, ১০ অগাস্ট ২০২০, ১২:১৭ অপরাহ্ন

করোনাকালের নির্ভীক যোদ্ধা জেলা প্রশাসক দেশপ্রেম আর মানবপ্রেমে উদ্বুদ্ধ নরসিংদী জেলা প্রশাসন

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৩০ জুলাই, ২০২০
  • ৬ বার

গ্রামীণ দর্পণ ডেস্ক: প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস সংক্রমণের শুরু থেকেই এর বিস্তার রোধে নির্ভীক যোদ্ধা হিসেবে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সরকার ও স্বাস্থ্য বিভাগের নির্দেশনা মাঠপর্যায়ে বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে মাঠপ্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ প্রশাসনিক প্রতিষ্ঠান জেলা প্রশাসন, যার নেতৃত্বে রয়েছেন জেলা প্রশাসক।
করোনা সংকটের শুরু থেকেই সম্মুখযোদ্ধা হিসেবে নাগরিকদের পাশে থেকে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন দেশের সকল জেলা প্রশাসক। ত্রাণ সহায়তা থেকে শুরু করে সার্বিক কার্যক্রমে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সর্বসাধারণের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে করোনা মোকাবিলায় কাজ করে যাচ্ছেন তারা।
সরকারি নির্দেশনার সঙ্গে সমন্বয় রেখে সুনির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের পাশাপাশি বৈশ্বিক করোনা সংকট মোকাবিলায় জেলা প্রশাসকদের নানাবিধ উদ্যোগ দেশের মানুষকে যেমন আশান্বিত করছে, তেমনি দিয়েছে স্বস্তি। করোনাকালে জেলা প্রশাসকদের জনকল্যাণকর ভূমিকা দেশের মানুষের প্রশংসা পাচ্ছে। করোনা দুর্যোগে বাংলাদেশে সামনের সারির যোদ্ধা হিসেবে জেলা প্রশাসকদের ভূমিকা ইতোমধ্যে সকলের নজর কাঁড়তে সক্ষম হয়েছে।
এদিকে, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় জনগণের কল্যাণে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। তিনি বলেন, বর্তমান করোনা সংকটকালে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় দক্ষতা ও সতর্কতার সাথে কাজ করছে। এ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অক্লান্ত পরিশ্রমের মধ্যে দিয়ে দুর্যোগ মোকাবিলা করে চলেছেন। তারা সাহসিকতার সঙ্গে জনগণের কল্যাণে নিবেদিতপ্রাণ কর্মী হিসেবে কাজ করে যাচ্ছেন।
গত মঙ্গলবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অধীন দফতর ও সংস্থার বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
ফরহাদ হোসেন বলেন, প্রধানমন্ত্রী অত্যন্ত ধৈর্য ও বিচক্ষণতার সাথে বিভিন্ন দুর্যোগ পরিস্থিতি মোকাবিলা করে চলেছেন। তার নেতৃত্বের কারণেই এত প্রতিকূলতার মাঝেও দেশ সফলভাবে এগিয়ে চলেছে। এই প্রতিকূল পরিস্থিতির মাঝে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অনেক দায়বদ্ধতা রয়েছে। তাই মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ সবাইকে জনগণের জীবনমান উন্নয়নে নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সাথে কাজ করতে হবে।
প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, আমরা যদি সবাই আমাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব যথাযথভাবে সময়ে পালন করতে পারি, তাহলে যেকোনো সংকট পরিস্থিতি মোকাবিলা করে দেশকে আরও সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলতে সক্ষম হবো। জনগণের কাছে আমরা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে একটি সফল মন্ত্রণালয় হিসেবে তুলে ধরতে পেরেছি। এই সফলতা ধরে রাখতে হলে প্রতিটি দফতর ও সংস্থাকে আরও দ্রুততা, কর্মদক্ষতা ও আন্তরিকতার সাথে কাজ করতে হবে।
ফরহাদ হোসেন বলেন, আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে জনগণকে দ্রুত, মানসম্মত সেবা প্রদান করা। এজন্য আমাদেরকে সুশৃঙ্খলভাবে কাজ করতে হবে। তিনি এ সময় জনগণকে উন্নত সেবা প্রদানের জন্য ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার আরও বৃদ্ধি করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।
জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব শেখ ইউসুফ হারুনের সভাপতিত্বে বাংলাদেশ লোকপ্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের রেক্টর, বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস প্রশাসন একাডেমির রেক্টর, বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যাণ বোর্ডের মহাপরিচালক, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অ্যান্ড ম্যানেজম্যান্টের (বিয়াম) মহাপরিচালক, মুদ্রণ ও প্রকাশনা অধিদফতরের মহাপরিচালক, সরকারি যানবাহন অধিদফতরের পরিবহন কমিশনার, সরকারি কর্মচারী হাসপাতালের পরিচালক, মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন অনুবিভাগের প্রধানগণসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।
দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরুর পর থেকেই জেলা প্রশাসকদের যাবতীয় কার্যক্রম বিষয়ে খোঁজ-খবর নিয়েছেন জেলা প্রতিনিধিরা। জেলা প্রশাসকদের করোনাকালীন সার্বিক কার্যক্রম কীভাবে পরিচালিত হচ্ছে, সে বিষয়ে সম্প্রতি দেশের সকল জেলা প্রশাসকের সঙ্গে কথা বলেছেন সাংবাদিকগণ। তাদের বক্তব্যের ভিত্তিতে দৈনিক বাংলাদেশ বুলেটিন বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে- তার কিছু অংশ তুলে ধরা হলো:
নরসিংদী : ‘প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী হিসেবে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ আর মানুষ হিসেবে মানবপ্রেমে উদ্বুদ্ধ নরসিংদী জেলা প্রশাসন। জীবনের ঝুঁকি উপেক্ষা করেই এই দুই মূলমন্ত্রকে কাজে লাগিয়ে অনুপ্রেরণার উৎস প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় করোনাকালে মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছে নরসিংদী জেলা প্রশাসন। করোনা সংকটের শুরু থেকেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সময়োপযোগী দিকনির্দেশনায় নরসিংদী জেলা প্রশাসন সরকারি-বেসরকারি সব কর্মকর্তাদের নিয়ে যথাসময়ে বহুমুখী পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে এখনো করোনা নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন। মেধাবী, বিচক্ষণ ও দায়িত্ব পালনে দৃঢ়চেতা এই জেলা প্রশাসক বলেন, ‘আসন্ন ঈদুল আজহা ঘিরে পশুরহাটকে কেন্দ্র করে প্রথমেই আমরা অনলাইন বিকিকিনি নরসিংদী কুরবানির হাট নামে একটি অ্যাপস তৈরি করেছি। গতবছর এই জেলায় অস্থায়ী গরুর হাট ছিলো ৬২টি। এ বছর মাত্র ২১টি হাটের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। তিনি আরো জানান, হাটে স্বাস্থ্যবিধিসহ অন্যান্য বিষয়গুলো যাতে ভালোভাবে প্রতিপালন করা হয়, সেজন্য ২৬ ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে জেলা প্রশাসন। এছাড়া আরেকটি অনন্য পদক্ষেপ রয়েছে: নরসিংদী জেলা প্রশাসনের আওতায় জেলার ইমাম ও কসাই যারা রয়েছেন (যারা পশু জবাই ও মাংস প্রস্তুতে কাজ করেন), তাদের কোভিড-১৯ টেস্টের ব্যবস্থা করা হয়েছে, যাতে সংক্রমণ কম হয়।
পাশাপাশি পার্শ্ববর্তী জেলার বর্ডারগুলোকে সিলগালা করা হয়েছে, যাতে অতিরিক্ত পশু নরসিংদীতে ঢুকতে না পারে। কারণ নরসিংদী জেলা প্রশাসন পশুর চাহিদা ও মজুদ আগে থেকেই নির্ধারণ করে রেখেছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। এদিকে সার্বিক বিষয়ে তদারকির জন্য জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, এসিল্যান্ড, পুলিশ, সেনাবাহিনীসহ টিম থাকছে এবং কমিটিনির্ভর সহযোগিতাকে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে নরসিংদী জেলা প্রশাসন। ইতোমধ্যেই ভ্রাম্যমাণ আদালতের কার্যক্রম শুরু হয়েছে এ জেলায়। একটি কন্ট্রোল রুমও খোলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। এছাড়া অনলাইন কার্যক্রম জোরদারের জন্য লিফলেটের মাধ্যমে মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে প্রচারণা চালানো হচ্ছে। অনলাইন হাট থেকে জেলার কোন উপজেলায় সবচেয়ে বেশি বিকিকিনি হয়েছে সে বিষয়ে প্রতিযোগিতার ব্যবস্থা করেছেন জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন। করেছেন চামড়া পাচার রোধে ব্যবস্থা গ্রহণসহ চামড়া নষ্ট যাতে না হয় সেজন্য যুব উন্নয়নের মাধ্যমে ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থাও। নরসিংদী জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ছয়টি উপজেলাকে ভাগ করে তিন এডিসিকে জেলা প্রশাসকের অনুকূলে মনিটর করার দায়িত্বও দিয়েছেন তিনি। জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘নরসিংদী জেলায় করোনা আক্রান্তের চেয়ে বর্তমানে সুস্থতার হারই বেশি, যা শতকরা হিসাবে প্রায় ৮৫-৮৬ শতাংশ। পিকে থাকাবস্থায় সংক্রমণের হার ছিল ২১ শতাংশ, বর্তমানে তা ১৪ শতাংশে নেমে এসেছে। নরসিংদী জেলা প্রশাসনের সফল পদক্ষেপের একটি জোনিং কার্যক্রম।
মাধবদী পৌরসভার দুটি ওয়ার্ডকে রেড জোন ঘোষণা করে অনন্য সফলতা অর্জন করেছে নরসিংদী জেলা প্রশাসন, এমনটাই বলেছেন সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন। এছাড়া করোনা সংকটের শুরু থেকেই তার নেতৃত্বে নরসিংদী জেলা প্রশাসন একটি এসওপি প্রণয়ন করে। সেই এসওপি’র আলোকেই মূলত তারা করোনা মোকাবিলায় এখনো দৃঢ় মনোবল নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। উল্লেখ্য, সম্প্রতি ভারতে আয়োজিত করোনা সংক্রান্ত একটি আন্তর্জাতিক অনলাইন ওয়ার্কশপে অংশ নেন নরসিংদীর জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন। ১৮টি দেশের সিভিল সার্জন যুক্ত ছিলেন সেই ওয়ার্কশপে। যেখানে উপস্থিত ছিলেন ভারতের মুখ্যমন্ত্রী ও সাবেক কেবিনেট সচিব। করোনাকালে নরসিংদী জেলা প্রশাসনের গৃহীত বহুমুখী পদক্ষেপ গ্রহণ ও বাস্তবায়নে সফলতার বিষয় তুলে ধরে ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছেন তিনি। সুত্র: অনলাইন, বাংলাদেশ বুলেটিন
ঢাকা: করোনা সংক্রমণের শুরু থেকেই দেশের অন্যান্য জেলার তুলনায় ঝুঁকিপূর্ণ ঢাকা জেলা। পক্ষান্তরে এ ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সদা তৎপর জেলা প্রশাসনের প্রতিটি কর্মকর্তা-কর্মচারী। ঝুঁকি থাকলেও শুরু থেকেই দৃঢ়চিত্তে সরকারের প্রতিটি নির্দেশনা বাস্তবায়নের মধ্য দিয়েই করোনা মোকাবিলায় কাজ করে যাচ্ছে ঢাকা জেলা প্রশাসন। এ জেলায় করোনাযুদ্ধের নেতৃত্ব দিচ্ছেন জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম। এদিকে চলমান এ পরিস্থিতির মধ্যেই ঈদুল আজহা আসন্ন। বিভিন্ন স্থানে বসছে পশুরহাট এবং হাটে হতে পারে জনসমাগম (যা সংক্রমণ বৃদ্ধির কারণ হতে পারে)। পশুর হাট ও জনসমাগম নিয়ন্ত্রণে রেখে করোনা সংক্রমণ হ্রাসে গৃহীত পদক্ষেপের বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা জেলা প্রশাসক শহীদুল ইসলাম বলেন, ‘মন্ত্রণালয় থেকে যেসব নির্দেশনা আমাদের দেওয়া হয়েছে, সেগুলোই আমাদের গৃহীত পদক্ষেপ। আমরা অন্যান্য জেলার মতো করেই সরকারের নির্দেশনাগুলো বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি। গৃহীত পদক্ষেপগুলোর মধ্যে রয়েছে- হাটের সংখ্যা সীমিতকরণ, হাটে একমুখী চলাচলের ব্যবস্থা নিশ্চিতকরণ, প্রতিটি পয়েন্টে হাত ধোয়ার জন্য সাবান-পানির ব্যবস্থা, একই পরিবার থেকে দুই জনের বেশি কেউ যাতে হাটে আসতে না পারে, অসুস্থ, বৃদ্ধ ও শিশুদের হাটে আসার বিষয়ে নিরুৎসাহিত করাসহ বহুমুখী পদক্ষেপ। সবচেয়ে অধিক গুরুত্বের সঙ্গে যেটি বিচবেচনায় নেওয়া হয়েছে সেটি হচ্ছে- মাস্ক ছাড়া কেউ হাটে প্রবেশ করতে পারবে না।’ এসব তদারকির জন্যও জেলা প্রশাসন থেকে আনসার, পুলিশসহ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের মাধ্যমে মােবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে বলে জানান তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..