1. grameendarpan@gmail.com : admi2017 :
শনিবার, ২১ নভেম্বর ২০২০, ০১:০৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
নরসিংদী জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে শারদীয় শুভেচ্ছা প্রদান মাধবদীতে পূজামন্ডপ পরিদর্শন করেছেন নরসিংদীর জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন নরসিংদীতে দূর্গা পুজা পরিদর্শন করেছেন এমপি বুবলী মেহেরপাড়া ইউপি চেয়ারম্যানের উদ্যোগে দুর্গোৎসব উপলক্ষে বিভিন্ন অনুদান প্রদান চ্যানেল এস টেলিভিশনের মাধবদী প্রতিনিধি সুমন পালের পিতার ইন্তেকাল শিবপুরে ইটাখোলা হাইওয়ে পুলিশের নিরাপদ সড়ক শীর্ষক সচেতনতা দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে পুলিশের নিরাপত্তা পরামর্শ শিবপুরে বঙ্গবন্ধু স্মরণে ম্যুরাল ‘চিরঞ্জীব মুজিব’ ও ভুমি অফিসের ছাদবাগান ‘নির্মল কাব্য’ এর উদ্বোধন করলেন ডিসি জেলা প্রশাসক শিবপুর সফর রমা ও একটি আমগাছ
শিরোনাম :
নরসিংদী জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে শারদীয় শুভেচ্ছা প্রদান মাধবদীতে পূজামন্ডপ পরিদর্শন করেছেন নরসিংদীর জেলা প্রশাসক সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন নরসিংদীতে দূর্গা পুজা পরিদর্শন করেছেন এমপি বুবলী মেহেরপাড়া ইউপি চেয়ারম্যানের উদ্যোগে দুর্গোৎসব উপলক্ষে বিভিন্ন অনুদান প্রদান চ্যানেল এস টেলিভিশনের মাধবদী প্রতিনিধি সুমন পালের পিতার ইন্তেকাল শিবপুরে ইটাখোলা হাইওয়ে পুলিশের নিরাপদ সড়ক শীর্ষক সচেতনতা দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে পুলিশের নিরাপত্তা পরামর্শ শিবপুরে বঙ্গবন্ধু স্মরণে ম্যুরাল ‘চিরঞ্জীব মুজিব’ ও ভুমি অফিসের ছাদবাগান ‘নির্মল কাব্য’ এর উদ্বোধন করলেন ডিসি জেলা প্রশাসক শিবপুর সফর রমা ও একটি আমগাছ

প্রসঙ্গ: ধর্ম ও উৎসব

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর, ২০২০
  • ১০ বার

॥ মোঃ মাজহারুল পারভেজ ॥

উৎসবের আভিধানিক অর্থ আনন্দানুষ্ঠান, ধুমধাম। অর্থাৎ যে সব আনন্দ আয়োজন ধুমধাম করে করা হয় তাকে আমরা উৎসব বলতে পারি।
উৎসবই প্রকৃতপক্ষে মানুষের মধ্য বন্ধন সৃষ্টি, মহান সৃষ্টিকর্তার প্রতি বিশ্বাস ও উদার হতে শিক্ষা দেয়।
ব্যক্তি থেকে সমষ্টিতে পৌঁছানোর পথ রচনা করে উৎসব। উৎসব সবসময় একটা মিলনের জায়গা তৈরি করে। একা একা উৎসব করা যায় না। উৎসব করতে হলে একত্রিত হতে হয়, মিলিত হতে হয়।
উৎসব বিভিন্ন রকম হয় বা হতে পারে। রাজনৈতিক, সামাজিক, ধর্মীয়, ঐতিহ্যগত ইত্যাদি ধরনের উৎসবের সঙ্গে আমাদের মোটামুটি পরিচয় আছে।
মেলা, খেলাধুলা, নৌকাবাইচ, গান-নাচ, যাত্রা- এসব একইসঙ্গে উৎসব এবং সংস্কৃতি। উৎসব তো আসলে সংস্কৃতিরই অংশ।
অন্যদিকে রাজনৈতিকভাবে কিছু দিবস আছে যেগুলোর সঙ্গে ধর্মের সম্পর্ক নেই। বিজয় দিবস, একুশে ফেব্রুয়ারি, স্বাধীনতা দিবস- উৎসবমুখর পরিবেশে এগুলো পালনের সঙ্গে ধর্মবিশ্বাসের সম্পর্ক নেই।
আমাদের দেশে ধর্মীয় বিশ্বাসজনিত উৎসবই ব্যাপকতা লাভ করেছে। ঈদ, পূজা, বড়দিন ইত্যাদি উৎসবের ভিত্তি হল ধর্মাচার বা ধর্ম।
ধর্মীয় উৎসব আয়োজনগুলোর মুল লক্ষ্য থাকে সৃষ্টিকর্তার কাছ থেকে জাতিগতভাবে কিভাবে ভালোবাসা সুখ শান্তি সমৃদ্ধি ও নৈকট্য লাভ করা যায়।
এবং একই ধর্মের অধিক সংখ্যক মানুষ এক সাথে হয়ে মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে কিভাবে বেশী বেশী প্রার্থণা করা যায়। আর মানুষ যত কাছাকাছি আসে তত তার মধ্যে শুভবোধের উন্মেষ হয়, মুক্তচিন্তার প্রসার ঘটানো যায়।
ইতিহাস কি বলে এবং আমারা কি শিখেছি?
ভারতবর্ষ থেকে ব্রিটিশ তাড়ানোর আন্দোলন পরিণতি পেয়েছিল দেশভাগের মধ্য দিয়ে।
হিন্দু সম্প্রদায়ের জন্য আলাদা রাষ্ট্র, মুসলমানের জন্য আলাদা রাষ্ট্র। এই চরম সাম্প্রদায়িক ব্যবস্থাটি তখনকার রাজনীতির কারবারিরা মেনে নিয়েছিলেন।
ভাবা হয়েছিল, এভাবে ধর্মভিত্তিক দুটি রাষ্ট্রের উদ্ভব হলে শান্তি আসবে, স্বস্তি আসবে, আসবে দুই ধর্মবিশ্বাসী মানুষের জীবনে সমৃদ্ধি। হিন্দুর জন্য ভারত, মুসলমানের জন্য পাকিস্তান।
দেশভাগের পর দেখা গেল চিত্র ভিন্ন হয়েছে। পাকিস্তানে হিন্দু থাকল, ভারতেও থাকল মুসলমান। দাঙ্গা-হাঙ্গামা করে, রক্ত, অশ্রু, বেদনা-বিচ্ছেদের সকরুণ অসংখ্য কাহিনি তৈরি করেও ভারতকে যেমন মুসলমানমুক্ত করা যায়নি, ঠিক তেমনি পাকিস্তানকেও হিন্দুমুক্ত করা যায়নি।
সাম্প্রদায়িকতার ভিত্তিতে দেশ ভাগ হল এবং দুই দেশের রাজনীতিতেই সাম্প্রদায়িকতা স্থায়ীভাবে ঠাই পেয়ে গেল।
‘সম্প্রীতি’ নামে মাসুদ খানের একটি সুন্দর ছড়া আছে। এখানে ছড়াটি উদ্ধৃত করছি :
পাঁচটি আঙ্গুল পাঁচ রকমের
পাঁচ প্রকারের কৃতি
পাঁচ ধরনের ধর্ম তাদের
পাঁচটি সংস্কৃতি।
মিলেমিশে ফুটে থাকে
হাতের পাঞ্জাদেশে
কাজের সময় ঐক্যবদ্ধ
ধর্ম নির্বিশেষে।
একটি আঙ্গুল আঘাত পেলে
অন্য আঙ্গুল এগিয়ে যায়
সমদুঃখে সমব্যথায়
দরদভরা হাত বোলায়।
হোক না আঙ্গুল নানা রকম
কেউ পিছে কেউ আগে
ভাতটা খেতে গেলে কিন্তু
পাঁচ আঙ্গুলই লাগে।
সকল ধর্ম ও বর্ণের মানুষকে অবশ্যই একসাথে মিলে মিশে থাকতে হবে। কিন্তু এর মানে এই নয় যে ধর্ম কর্মও এক সাথে হবে।
সুতরাং ধর্ম যার উৎসব শুধুই তার। ধর্মীয় অনুষ্ঠান ব্যতীত সকল উৎসবে একসাথে পালন করতে কোন বাধা নেই।
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাঁর ‘ব্যাধি ও প্রতিকার’ শীর্ষক প্রবন্ধে লিখেছেন:
“আমরা জানি, বাংলাদেশের অনেক স্থানে এক ফরাশে হিন্দু–মুসলমানে বসে না– ঘরে মুসলমান আসিলে জাজিমের এক অংশ তুলিয়া দেওয়া হয়, হুঁকার জল ফেলিয়া দেওয়া হয়।” কিন্তু সেই দিন এখন আর নেই, আর না আসুক সেটাই চাই।
একটু পরিস্কার করে যদি বলি,
একজন মুসলমানের জন্য মূর্তির সামনে দাঁড়িয়ে আরাধনায় অংশ নেয়া এবং প্রসাদ খাওয়া ইসলাম ধর্মে অনুমোদিত নয়। ধর্ম যার যার, উৎসব সবার- এমন উক্তি ইসলাম স্বীকার করে না। হিন্দু ধর্মাবলম্বীরাও এ ধরনের উক্তি স্বীকার করে না। হিন্দুরা এ ধরনের উক্তি স্বীকার করলে তারা তাদের দেশে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব কোরবানির ঈদের সময় গরু জবাইয়ে বাধা দিত না।
হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা বিভিন্ন মূর্তিকে ঈশ্বর বা দেবতা গণ্যে প্রসাদ দেয়। এ প্রসাদ পরে আগত ভক্তদের খাওয়ার জন্য দেয়া হলেও ইসলাম ধর্মাবলম্বী কারো জন্য এ ধরনের প্রসাদ খাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। এ বিষয়ে পবিত্র কুরআনের সূরা বাকারা, সূরা মায়িদাহ, সূরা আনয়াম ও সূরা নাহলে উল্লেখ রয়েছে- ‘আল্লাহ তোমাদের জন্য হারাম করেছেন মৃত জন্তু, রক্ত, শূকরের মাংস খাওয়া।
আর যে পশু জবাই করার সময় আল্লাহ ছাড়া অন্য কারো নাম নেয়া হয়েছে।’ সুতরাং যে পশু জবাইকালে আল্লাহ ছাড়া অন্য কারও নাম নেয়া হয়, সেটা মুসলমানদের জন্য হারাম। আর এ কারণেই ইসলামে পূজার প্রসাদ খাওয়া হারাম। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ধর্মগ্রন্থ বেদ অবলোকনে দেখা যায়, তাতে উল্লেখ রয়েছে মহান ¯্রষ্টার কোনো প্রতিমূর্তি নেই। তাই বেদ অনুযায়ী ঈশ্বরকে প্রসাদ দেয়া নিষিদ্ধ।
গরু জবাই করা ও গরুর গোশত খাওয়া হিন্দুধর্মে নিষিদ্ধ হলেও ইসলাম ধর্মে নিষিদ্ধ নয়। ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র ভারতে মুসলমানদের এ ধর্মীয় অধিকারে বাধা দেয়া ধর্ম যার যার, উৎসব সবার- এ উক্তির সাংঘর্ষিক বহিঃপ্রকাশ। মূর্তিপূজা ইসলাম ধর্মে সম্পূর্ণ হারাম। অপর দিকে হিন্দুধর্মে এটা উপাসনা ও পুণ্যের কাজ। এ দেশে মুসলমানেরা ইসলামে নিষিদ্ধ হিন্দুদের মূর্তিপূজায় কখনো বাধা দেয়ার প্রয়াস নিলেও সরকারের তাৎক্ষণিক হস্তক্ষেপে প্রতিটি ক্ষেত্রেই তাদের নিবৃত্ত করা সম্ভব হয়েছে, কিন্তু ভারতের ক্ষেত্রে এটি পরিলক্ষিত হয়নি।
হিন্দুদের ধর্মীয় উপাসনা পূজা বা আরাধনায় যেকোনো রূপে অংশ নেয়া মুসলমানের জন্য অবশ্যই হারাম। একজন মুসলমানকে অবশ্যই অনুধাবন করতে হবে, নিজে পূজা করা যাবে না, প্রতিমা তৈরিতে ব্যক্তিগত অর্থ সাহায্য করা যাবে না এবং উপাসনায় দৈহিক, মানসিক ও আর্থিক কোনো ধরনের সহায়তা দেয়া যাবে না।
সুতরাং ধর্ম যার উৎসব শুধুই তার।
লেখক: মোঃ মাজহারুল পারভেজ, সাধারণ সম্পাদক, নরসিংদী প্রেস ক্লাব।
এই নিবন্ধে লেখা মতামত সম্পূর্ণ লেখকের।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..