1. grameendarpan@gmail.com : admi2017 :
সোমবার, ১৯ জুলাই ২০২১, ১১:৩৪ পূর্বাহ্ন

মনোহরদীর এ আহাজারির শেষ কোথায় জানেন না মহল্লাবাসী

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৫ জুলাই, ২০২১
  • ২৫ বার
ভ্রাম্যমান প্রতিনিধিঃ ড্রেন বন্ধ, ময়লা কালো দুর্গন্ধযুক্ত পানিতে রাস্তা সয়লাব। বাড়ীর আঙ্গিনায় ময়লা পানি। বাড়ীর প্রবেশ পথে ড্রেন উপচানো ময়লা পানি চলছে এক চরম অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে দুর্বিষহ দিন যাপন। চলাচল দায়, বাড়ী ঘরে তিষ্টানো কঠিন। আর এভাবেই চলছে মনোহরদীর একটি মহল্লাবাসীর মাসের পর মাস । এ নিয়ে আশ্বাস আশার বাণী কম শুনেননি ভুক্তভোগী এলাকাবাসী। কিন্তু প্রতিকার মিলছে না কোনই। মহল্লাবাসীর এ আহাজারির শেষ কোথায় জানেন না কেউ।
মনোহরদী পৌর এলাকার হিন্দু পাড়া খ্যাত পরিচিত একটি মহল্লার প্রধান ড্রেনটি বন্ধ হয়ে যায় মাস সাতেক আগে। ড্রেনের পানি নিষ্কাশনের বহির্মুখে একটি ব্যক্তি মালিকানাধীন একটি জমিতে মাটি ভরাটের কারনে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়। এতে মহল্লার এক বিস্তীর্ণ এলাকার প্রায় শতাধিক পরিবারের দৈনন্দিনের গার্হস্থ্য কাজে ব্যবহার করা পানি নিস্কাষন ব্যবস্থা পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়।  ফলে এলাকার নীচু জায়গা-জমি,বাড়ী -ঘর, যাতায়াতের  রাস্তা সব তলিয়ে যায় ড্রেনের ময়লা ও দুর্গন্ধযুক্ত পঁচা পানিতে। এ অবস্থা চলছে মাসের পর মাস ধরে। সরেজমিনে খোঁজ নিতে গিয়ে মহল্লার এ দূরবস্থার সীমাহীন  দুর্ভোগ ও দুর্গতির চিত্র চোখে পড়ে। প্রচন্ড দুর্গন্ধ যুক্ত ময়লা পানি মাড়িয়ে মহল্লাবাসী লোকজনের দৈনন্দিনের চলাফেরা এবং উঠাবসা চলছে। কোন কোন বাড়ীর আঙ্গিনায় ও প্রবেশ মুখে ড্রেন উপচানো থিকথিকে কালো ময়লা পানি দেখা গেছে।  কোন কোন স্থানে উঁচু করে বালির বস্তা ফেলে কষ্টেসৃষ্টে পা ফেলে ময়লা পঁচা পানি পার হয়ে কোনরকমে  চলাচলের ব্যবস্থা করে নিতে দেখা গেছে কয়েকটি পরিবার মিলে। এ সব নিয়ে মহল্লাবাসীর ক্ষোভ দুঃখ কষ্ট ও ভোগান্তির যেন সীমা পরিসীমা নেই। তবুও প্রতিকার নেই কোন। এ ব্যাপারে মহল্লাবাসীদের সাথে আলাপকালে তারা অভিযোগ করে বলেন, এর সমাধান নিয়ে অনেক আশ্বাস মিলেছে  কিন্তু আজ পর্যন্ত কার্য্যকর কোন সমাধান মেলেনি।  মহল্লার দর্জি দোকানী শামীমা(২৯) জানান, রাস্তায় চলাচল বন্ধ। ময়লা কালো পানি মাড়িয়ে কাষ্টমার আসে না।কয়েকমাস যাবৎ তার ব্যবসা চলছে না। এতে মস্ত লোকসানি গুনতে হচ্ছে তাকে। এভাবে কতো দিন আর পারবেন তিনি। তাই দোকান অন্যত্র গুটিয়ে নেয়ার কথা ভাবছেন শামীমা। মহল্লার নান্টু সাহার ছেলে সুৃৃমন সাহা (৩৫) বলেন, ভাড়ার দোকান তাই শামীমা না হয় তা অন্যত্র ব্যবসা গুটিয়ে নিতে পারবেন। কিন্তু পাকা দ্বিতল বাড়ী ফেলে সুমন সাহারা যাবেন কোথায়! মা, বৌ পরিবার নিয়ে তাদের অবর্ননীয় দুর্গতি চলছে বলে  জানান তিনি। মহল্লার আরেক বাসিন্দা গনেশ দাস(৬৫) বলেন, বাড়ীতে যাতায়াতের রাস্তা ড্রেনের ময়লা পানির নীচে। অনেক কষ্টে বাড়ী থেকে বাজারে দোকানে আসা যাওয়া করতে হয়। চারপাশে নোংরা পানিতে সয়লাব। ভীষন অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে পরিবার নিয়ে বসবাস তার। ভাড়ার বাড়ী হলে  নিশ্চিতই পরিবার- পরিজন নিয়ে এতোদিনে অন্যত্র সরে যেতেপারতেন। কিন্তু নিজের বাড়ী ফেলে যাবেন কোথায় আর!
কিছুদিন আগে ড্রেনের নির্গমনমুখে পৌরসভা পানি নিষ্কাশনের একটি সাময়িক বিকল্প ব্যবস্থা গ্রহন করে। কিন্তু তাতে পরিস্থিতির খুব বেশী উন্নতি মিলেছে বলে ভুক্তভোগীরা মনে করছেন না বলে জানিয়েছেন তারা। তাদের দাবী, এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরনের জন্য কোন কোটি টাকার প্রকল্প গ্রহনের প্রয়োজন নেই। দরকার কেবল কয়েক লাখ টাকা বাজেটের একটি সুদৃঢ় কার্যকরী পদক্ষেপ।

ছবিঃ সাজাহান আকন্দ

মনোহরদীতে ড্রেনের ময়লা পানি আটকে এলাকাবাসীর চরম দুর্ভোগের একটি চিত্র। রোববার দুপুরে সেন্ট্রাল প্রাইভেট স্কুলের সামনে থেকে তোলা ছবি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..