1. grameendarpan@gmail.com : admi2017 :
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ০১:০৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
বজলুর রহমান ও শাহনারা বেগম ফাউন্ডেশনের পক্ষে নরসিংদী জেলা হাসপাতালে ১০০ অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান নরসিংদীতে কঠিন লকডাউনের ২য় দিনে ৩৭,২০০ টাকা জরিমানা আদায় করেছে মোবাইল কোর্ট নরসিংদীতে আবাবীল ফাউন্ডেশন দুইশত মানুষের মাঝে গোশত ও ঈদ সামগ্রী বিতরণ নরসিংদীতে একদিনে দুইজনের মৃত্যু ॥ ১৪২ জনের করোনা শনাক্ত র‌্যাব-১১ নরসিংদী’র অভিযানে চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলার পলাতক আসামী আবু সিদ্দিক গ্রেফতার ব্যাপারটি আমাদের জাতীয় পন্ডিতরা একটু ভেবে দেখবেন কি? ঘোমটার নিচে খেমটা নাচের সাংবাদিকতা ময়মনসিংহরে ত্রিশালে জমে উঠছে কোরবানি পশুর হাট চামড়া শিল্প রক্ষার দাবীতে নরসিংদী ইশা ছাত্র আন্দোলনের মানববন্ধন অসহায় মানুষের মাঝে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ করলো ভেলানগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়
শিরোনাম :
বজলুর রহমান ও শাহনারা বেগম ফাউন্ডেশনের পক্ষে নরসিংদী জেলা হাসপাতালে ১০০ অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান নরসিংদীতে কঠিন লকডাউনের ২য় দিনে ৩৭,২০০ টাকা জরিমানা আদায় করেছে মোবাইল কোর্ট নরসিংদীতে আবাবীল ফাউন্ডেশন দুইশত মানুষের মাঝে গোশত ও ঈদ সামগ্রী বিতরণ নরসিংদীতে একদিনে দুইজনের মৃত্যু ॥ ১৪২ জনের করোনা শনাক্ত র‌্যাব-১১ নরসিংদী’র অভিযানে চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলার পলাতক আসামী আবু সিদ্দিক গ্রেফতার ব্যাপারটি আমাদের জাতীয় পন্ডিতরা একটু ভেবে দেখবেন কি? ঘোমটার নিচে খেমটা নাচের সাংবাদিকতা ময়মনসিংহরে ত্রিশালে জমে উঠছে কোরবানি পশুর হাট চামড়া শিল্প রক্ষার দাবীতে নরসিংদী ইশা ছাত্র আন্দোলনের মানববন্ধন অসহায় মানুষের মাঝে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ করলো ভেলানগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়

ব্যাপারটি আমাদের জাতীয় পন্ডিতরা একটু ভেবে দেখবেন কি?

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৯ জুলাই, ২০২১
  • ৫ বার
আমাদের জাতীয় শিক্ষা কার্যক্রম ভালো করে দেখলে যে কোনো সুস্হ মানুষই অসুস্হ হবেন।তখন বুঝবেন এই দেশে শিশুদেরকে শেখানোর জন্যে বা জানানোর জন্যে কোনো কারিকুলাম তৈরি করা হয় না। কারিকুলাম তৈরি করা হয় তাদেরকে ইচড়েপাকা ও তথাকথিত ভাবে গেলানো ফেলানো শিখানোর জন্যে।আরো বলতে গেলে পাঠের প্রতি অনাগ্রহী ও ভয়ভীতি সঞ্চার করার জন্যে।
সব বিষয় ঘেটে দেখার দরকার নেই শুধু ৬ষ্ঠ শ্রেণির ইংরেজি ২য় পত্রের Contents গুলো ভালো করে দেখলেই সবকিছু অনুধাবন করতে পারবেন।
যে শিশুরা পঞ্চম শ্রেণিতে ইংরেজি গ্রামার সম্পর্কে ছিটেফোঁটা কোনো ধারণা পেলনা তাদেরকেই ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে এসে পড়তে হবে এবং উত্তর দিতে হবে ভারী ভারী Grammar Items-এর।Question -1.এখানে বাচ্চাদেরকে সঠিক Article বসাতে বলা হয়েছে আর যেখানে Article বসবেনা সেখানে ক্রস দিতে বলা হয়েছে।এ পর্যায়ের বাচ্চাদের জন্যে A,An,The এগুলো বসানো পর্যস্ত ঠিক ছিল কিন্তু শিশুরা কোথায় Article বসবেনা এটা বুঝতে পারা খুবই কঠিন ও গোলমেলে।Question–2.Using correct prepositions.আমার বিশ্ববিদ্যালয়ের এক স্যার বলেছিলেন ইংরেজিতে এম.এ পাশ করেও অনেকে prepositions বসাতে ভুল করে।কথাটি নিরেট সত্য।আমিও প্রায় সময় Prepositions-এ ভুল করি আর তারাতো সবে শিশু। এই Grammar Itemটি তাদের জন্যে একদম অনুপযোগী।Question–3.Substitution Table, যদি ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিশুরা পূর্বের ক্লাশে Sentence, Subject,predicate,parts of Speech ও Tense না পড়ে থাকে তাহলে এই Table ও তাদের জন্যে জঘন্য কঠিন।Question–4.Changing Sentences.যে শিশুরা ভালো করে Sentence ই চিনল না তারা আবার তা পরিবর্তন করবে কী করে?এটি হলো হাঁটা না শিখিয়ে দৌড় শিখানোর প্রয়াস।এই Grammar Item টি তাদের জন্য একদম বেমানান।Question–5.Using right form of verbs.এটি তাদের জন্যে আরো কঠিন।এটি করার জন্য তাদেরকে নিখুঁত ভাবে জানতে হবে Tense,Conjugation of verb ও Subject,Object.তারপরও এসব জেনে তাদের দ্বারা সঠিক Verb বসানো কঠিন।
যে শিশুরা ইংরেজির Basic Grammar’ই জানলোনা তাদের কী অদ্ভুত উত্তরণ!আমাদের জাতীয় পন্ডিতরা যারা কারিকুলাম তৈরি করেন তারা পাঠের বা শিখানোর ক্রমবিকাশ,ক্রমান্বয় বা Coherence বুঝেন বলে মনে হয় না?পঞ্চম সিঁড়ি থেকে ৬ষ্ঠ সিঁড়ি যদি বেশি ব্যতিক্রম বা বেমানান হয় তাহলে শিশুরা ওঠতে গিয়ে হুচট খাবে,কোমর ভাঙ্গবে অথবা মাথা ঘুরে নিচে পড়ে যাবে।সব নিয়ে ধস্তাধস্তি করা যায় কিন্তু বিদ্যা নিয়ে নয়।আমাদের জাতীয় পন্ডিতরা বিদ্যার মান-মর্যাদা বাড়াতে সরকারি টাকায় ফি বছর অস্ট্রেলিয়া,কানাডা,আমেরিকা ঘুরে বেড়ান।ওখান থেকে ঘুরে এসে তাদের ব্যয়কৃত অর্থকে জায়েয করার জন্যে এক অদ্ভুত কারিকুলাম তৈরি করেন।তা আমাদের দেশের মাটি মানুষ ও পরিবেশের সাথে খাপ খেলো কী না তা আর দেখার প্রয়োজন মনে করেন না।এক ধরণের কৃত্রিম বাহবা পাওয়ার জন্যে ও নিজের পান্ডিত্য জাহির করার জন্যে এক কঠিন উদ্ভট শিক্ষা কার্যক্রম প্রণয়ন করেন তারা।অতি কষ্ট করে কানাডিয়ান,অস্ট্রেলিয়ান ও আমেরিকান ফ্লেভারের কারিকুলাম তৈরি করে বিশাল আত্ম তৃপ্তিতে ভাসেন আর মনে মনে বলেন,”দেখুন কী এনেছি,এসব আগে কেউ দেখেনি”! তারা বেমালুম ভুলে যান যে তারা বাংলার বাচ্চাদের কারিকুলাম লিখছেন,মনে করেন আমাদের বাচ্চারাও কানাডিয়ান,অস্ট্রেলিয়ান,আমেরিকান।তখন আমাদের পন্ডিতরা এক অলীক ভালোবাসায় মোহাবিষ্ট হয়ে আমাদের অবোধ বাচ্চাদেরকে এক ধাক্কায় জমিন থেকে চাঁদের দেশে পাঠাবার স্বপ্ন দেখেন আর রাতারাতি আমাদের শিশুদেরকে নীল আর্মস্ট্রং বা আইনস্টাইন বানিয়ে ফেলার ভাবনায় বুদ হয়ে থাকেন।আর মনে করেন শিক্ষার ধূম্রজালের ভেতর ঘুরালেই শিক্ষার্থীরা ভীষণ সৃজনশীল হয়ে যাবে তাই জাতীয় পন্ডিতরা আমাদের বাচ্চাদের চোখের সামনে চাঁদের ছবি ঘুরান তারা যাতে নীল আর্মস্ট্রং হতে পারে,চোখের সামনে বিরাট তলোয়ার ঘুরান তারা যাতে নবাব সিরাজউদ্দৌলা হতে পারে বা সাহসী খালিদ বিন ওয়ালিদ হতে পারে।সৃজনশীল তৈরি করা বা জন্ম দেওয়ার বিষয় না বা ওটা ওষুধের কোনো ডোজ না জোর করে গিলিয়ে দিলাম।বই পড়ে কেউ প্রকৃত সৃজনশীল হতে পারেনা,বাচ্চারা সৃজনশীল হয় পরিবেশ,পরিস্হিতি ও আশেপাশের ঘটনাবলী দেখে শুনে বোঝে ও উপলব্দি করে।অতএব এসব কঠিন মানসিক পীড়ন থেকে শিশুদেরকে মুক্তি দিন।অযথা
আলুথালু ভেবে ভেবে ইংরেজি বিষয়টিকে একটি জটিল যন্ত্রণার জাল বানাবেন না।পান্ডিত্য দেখাতে গিয়ে বিষয়টি যতোনা কঠিন তারচেয়ে বিশগুণ কঠিন হয়ে যাচ্ছে।আমাদের জাতীয় পন্ডিতরা এই বিষয় গুলো একটু ভেবে দেখবেন!
মহসিন খোন্দকার:ইংরেজি বিষয়ের সাবেক মাস্টার ট্রেইনার,মাউশি।একটি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ইংরেজি সাহিত্যের প্রভাষক।ফোন:01817536022

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..