1. grameendarpan@gmail.com : admi2017 :
  2. taife.nur14@gmail.com : taifur nur : taifur nur
মঙ্গলবার, ১২ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৪০ অপরাহ্ন

শিবপুরের কুইড়ার কিসসা -নূরুদ্দীন দরজী

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৭ বার

শিবপুরের কুইড়ার কিসসা লোকজ সংস্কৃতির একটি ঐতিহ্যের ধারা। এ ধারা সম্পর্কে আমরা অনেকেই জানিনা। আমাদের শিবপুরের, কুইড়ার কিসসা’র কাহিনী এক সময় ছিল লোকের মুখে মুখে। ‘কুইড়া, কথাটি শোনার সাথে সাথে অনেকের লম্বা হাসি না এলেও মুচকি হাসি এসেছে নিশ্চয়ই? অনেকেই বলবেন, এটা আবার কি? কুইড়ার বলতেতো বুঝি কোনো অকর্মণ্য, অপদার্থ বা অলস ব্যক্তি- যারা আলস্যে দিন কাটায়, পেট ভরে খেয়ে ধেয়ে নিশ্চিন্তে ঘুমায়। পেট মোটা, চিকন চোখ, মাথার চুলে দেইরা সিতা, কিছুটা মায়াবি দৃষ্টির চেহারা। কাউকে কুইড়া বললে রাগ লাগে- আবার অন্যকে কুইড়া বলে উপহাস করে টিপ্পনী কিন্তু দেওয়া হয়ে থাকে। শিবপুরের মানুষের কাছে কুইড়া শব্দটি ততটা অপরিচিত নয়। এ এলাকার মানুষ দীর্ঘদিন থেকেই কুইড়া বা কুইড়ার কিসসা শুনে আসছে। গরম থেকে গরামান্তরে, পাড়ায় পাড়ায় চাঁদনী রাতে বাড়ির খোলা উঠানে অথবা কোন না কোন আসরে কুইড়ার কিসসা শুনা যেতো এক সময়। ছোট ছোট সোনামণি শিশুরা মা-চাচি, দাদী-নানীর কোলে বসে এ কিসসা শুনতে শুনতে ঘুমিয়ে পড়তো।
কুইড়ার কিসসা’র মূল মূল কথা: চারদিকে চারটি সাগর এবং এ চার সাগরের মধ্যে একটি বালুচর। বালুচরে রয়েছে একটি শহর- যার নাম মেরছির শহর। শহরে বাস করতেন একজন বাদশাহ- যাকে বলা হতো মেরছির বাদশাহ। এ বাদশাহ বার বার বিয়া করে কিন্তু কোন সন্তান লাভ করতে পারেনা। কেন সন্তান হয়না কারণ জানতে জতিশ (জ্যোতিষী) এনে গণনা করানো হয়। জতিশ এসে উপদেশ দিয়ে বলে, আর বিয়া করার দরকার নেই। তাঁর ভাগ্যে কোন সন্তানাদী নেই। রাজ্যের উজির নাজিরসহ সকলে একত্র সভায় মিলিত হয়ে বাদশাকে আটখুড়া বাদশাহ ঘোষনা করে। কেউ আর বাদশাহর মুখ দর্শন করবে বলে সিদ্ধান্ত নেয়। কোন উপায় না দেখে বাদশাহ সাত বিবির নিকট থেকে বিদায় নিয়ে করুনভাবে কাদতেঁ কাদতেঁ আল্লাহর পথে বের হয়। এদিকে আল্লাহপাক দয়ার ভান্ডার সদযয় হয়ে এ আটখুড়া বাদশাহর পুত্র হওয়ার জন্য আবদুল বাদশাহকে পাঠানোর কথা বলেন। কিন্তু আবদুল বাদশাহ জন্মের পূর্বেই আটখুড়ার পুত্র হ্ওয়ার বিনিময়ে আল্লাহর দরবারে তিনটি জিনিস প্রার্থনা করে। (এক) মিছা এ দুনিয়ায় তাকে নিতে হলে সুন্দরী পরী মকবুলা বিবির সাথে বিয়া লিখে দিতে হবে, (দুই) সে মুখে যা বলবে তাৎক্ষণিকভাবে তা হতে হবে এবং (তিন) আকাশ ও পাতালে কি আছে সে জানতে চাইলে জানতে পারার ক্ষমতা দিতে হবে। দয়াল আল্লাহ মহান আবদুল বাদশাহর সকল আরজি মন্জুর করেন। একই সাথে আশ্চর্য ঠাকুরকে আদেশ দেন আবদুল বাদশাকে মেরছির বাদশাহর কাছে পৌছে দিবার জন্য। কিন্তু আশ্চর্য ঠাকুর ও তিনটি শর্ত দিয়ে বসে। (শর্ত এক) মৃত্যুর জায়গা সে নিজে বানাবে (শর্ত দুই) মুখে যা বলবে তাৎক্ষণিক তা হতে হবে (শর্ত তিন) আকাশ ও পাতালের সব গণনা করতে ও শুনতে পারা। দয়ালু আল্লাহ আশ্চর্য ঠাকুরের প্রার্থনা ও কবুল করেন। তবে জতিশকে তার সঙ্গী করে দেন। আবদুল বাদশাহ, আশ্চর্য ঠাকুর, জতিশ এবং শ্রী আংটির নানা শক্তি ও কেরামতিতে উল্লেখিত কুইড়ার কিসসা’র উত্থান-পতন ঘটে থাকে। অনেক আজগুবী, আশ্চর্য ঘটনা ও তান্ডব কাহিনী চলে। এর সাথে বহু ক্যাটাগরির পাত্র-পাত্রীর নিশ্চিত সংযোগের মাধ্যমে কুইড়ার কিসসা এগিয়ে যায়। কুইড়ার কিসসা প্রথম রচিত হয়েছিল আমাদের পার্শ্ববতী রায়পুরা উপজেলার মাহমুদপুর গ্রামের আঃ গফুরের মাধ্যমে। আঃ গফুর কখন এ কিসসা রচনা করেছিলেন জানা যায়নি। শিবপুর উপজেলার ছুটাবন্দ গ্রামের অধিবাসী আবদুল হেকিম কিসসাটি রায়পুরা থেকে লিখে আনেন। এ কিসসা শিবপুরে আনতে গিয়ে আবদুল হেকিমকে অনেক মূল্য দিতে হয়েছে। চরম মূল্য হিসেবে আবদুল হেকিমকে গফুরের বাড়িতে চার মাস কামলা খাটতে হয়েছিল। আবদুল হেকিমের কাছ থেকে একই উপজেলার নৌকাঘাটার আঃ রহমান মোল্লা ও এ কিসসাটি শিখে নেন। তা শিখার জন্য আঃ রহমান মোল্লাকে অনেক সাধনা ও প্রচুর সময় ব্যয় করতে হয়েছে। পরিবেশন কৌশলঃ দলে মোট ৮-১০ জন থাকেন। মূল গায়ক দাঁড়িয়ে এবং অনেক সময় নেচে নেচে অভিনয়ের মাধ্যমে কিসসা বর্ণনা করেন। সহযোগী হিসেবে দোহার দল গোল হয়ে মঞ্চে বসে দোহার গায়। মূল গায়ক দর্শকদের উদ্দেশ্যে ঈশারা করেন। কখনো কখনো মূল গায়ক হাতের রোমাল উঁচিয়ে উঁচিয়ে দোহারগণের মধ্যে ছেড়ে দেন। তেমন কিছু বাদ্যযন্ত্রের দরকার হয়না। সামান্য বাদ্যযন্ত্রের মৃদু তালে হাতের মোহনীয় ভঙিতে দর্শকদের মাতিয়ে রাখেন। পোষাক আষাকে ও তেমন বাধাধরা নিয়ম নেই। সাধারনত ছোট আসরেই কিসসা চলে। জন সমাগম বেশি হলে বড় আকারের মঞ্চ তৈরি করা হয়। খোলা আকাশের নিচে বসেই দর্শকগন কিসসা উপভোগ করেন। শীতের দিনে এবং বিশেষ বিশেষ দিনে সামিয়ানা টানানো হয়। মঞ্চের পিছন দিক কাপড় দিয়ে ঢেকে দেয়া হয়। মঞ্চের তিন দিকে খোলা জায়গায় দর্শকগণ বসেন। বন্দনার মাধ্যমে শুরু হয়ে কিসসা চলে প্রায় চার ঘন্টা। চার ঘন্টাই হাসি আনন্দের মাধ্যমে সাধারন মানুষের মনের খোরাক যোগানো হয়। পৃথিবীতে নানা দেশে অনেক লোকজ কাহিনী আছে। আছে লোকগীতি, লোকনাট্য, ছড়া, ধাঁধা, যন্ত্রমন্ত্র ও প্রবাদ। পূর্ব বাংলার ময়মনসিংহ গীতিকার মহুয়া, মলুয়া, বেহুলা, কমলা সুন্দরী, চাঁদ সওদাগরের মতো কাহিনীগুলোর মত আমাদের নরসিংদীর শিবপুরের আছে কুইড়ার কিসসা। পৃথিবীর সব লোকজ কাহিনীই স্বল্প বা অধিক মাত্রায় আজগুবী বা গাঁজাখুরীতে পরিপূর্ণ। আমাদের কুইড়ার কিসসাতে এমন থাকাই স্বাভাবিক। এ কিসসায় রয়েছে লোকজ সংস্কৃতির পূর্ণবৈশিষ্ট্য। মানুষের সহ সাথী হয়ে অনেক জীবজন্তুর বিশিষ্ট ভঙ্গীতে আছে রুপকথা, উপকথার রোমাঞ্চকর বর্ণিল সন্নিবেশ। আছে আপন বৈশিষ্ট্যের পরিপূর্ণতা। কিসসা’র ভাষা শিবপুরের আঞ্চলিক ভাষা। শিবপুরের মানুষ নিজেরা যে আঞ্চলিক ভাষা ব্যবহার করে বাংলাদেশের অন্য কোথায় ও এর ব্যবহার নেই। তবে ভাষাটির ব্যবহার বেশি হয় বাড়ি ঘরে একান্ত আপনজনদের সাথে। কুইয়ার কিসসা’র কথোপকথন ধরন: -(১) নরসিংদীতে জেলা ধরি শিবপুর হয় থানা, – পোস্ট অফিস নৌকাঘাটা ছুটাবন্দ ঠিকানা। (২) “এরে ধন দিছে বহুত বহুত জন দিছে না, -আটখুড়া বাদশার মুখ দেখলে আমডার খাওন অই জুডে না। -(৩) ঘুরিতে ঘুরিতে বাদশাহ করিল গমন, -কাবাঘরের দরজায় গিয়া দিল দরোশন। মোটকথা হচ্ছে কুইড়ার কিসসা -শিবপুর এলাকার নিজস্ব সম্পদ। দেশের আর কোথাও এর অস্থিত্ব নেই। এ কাহিনী নিয়ে আমরা গর্ব করি। কিন্তু অতি দুঃখজনক যে, কুইড়ার কিসসা’র মূল গায়ক আবদুল হেকিম ও দোহারের অনেক গায়ক ক্ষণস্থায়ী এ দুনিয়া ছেড়ে চলে গেছেন। এটি লালন করার মত কেউ নাই বললেই চলে। অবস্থা দৃষ্টে মনে হয় ভবিষ্যতে গর্ব করার মত আমাদের এ ঐতিহ্য আমরা হারিয়ে ফেলতে পারি। বাংলার ময়মনসিংহ গীতিকা সংগ্রহ ও লালন করতে সুদূর কলকাতা থেকে এগিয়ে এসেছিলেন ড. দীনেশ চন্দ্র সেন। শুধুই তাঁর জন্য ময়মনসিংহ গীতিকা আজ বিশ্ব দরবারে বিশ্ব গীতিকার মর্যাদা পেয়েছে। আমাদের নরসিংদীর শিবপুরের কুইড়ার কিসসা সংগ্রহ ও লালন করার জন্য কেউ এগিয়ে আসবেন কি? (ক্রমশঃ)
লেখকঃ সাবেক উপজেলা শিক্ষা অফিসার (টিইও)

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..