1. grameendarpan@gmail.com : admi2017 :
  2. taife.nur14@gmail.com : taifur nur : taifur nur
বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০৫:৫৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ড. মুহম্মদ শহিদুল্লাহ পদক পেলেন হোমিও চিকিৎসক মাও: আ: ওয়াদুদ নরসিংদী ইনডিপেনডেন্ট কলেজে দোয়া ও অভিভাবক সমাবেশ জীবনে সৎ ও নিষ্ঠাবান হবে- উপাচার্য ড. মো: গিয়াস উদ্দিন তোমরা মানবিক হবে -মেয়র আমজাদ হোসেন বাচ্চু নরসিংদী সিভিল সার্জন অফিসে মাধ্যমিক শিক্ষকদের শিশু স্বাস্থ্য বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত বেলাব উপজেলা আ.লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত নরসিংদীতে আইডিইবি’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন মাধবদীতে কওমি মাদ্রাসার ছাত্রী নিয়ে শিক্ষিকা উধাও মনোহরদীতে ৯ ইউনিয়নে ৪৫১ চেয়ারম্যান প্রার্থীতা চুড়ান্ত, ১ জনের বাতিল আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবস উদযাপনের লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা সুন্দর সমাজ গঠনে খেলাধুলার বিকল্প নেই -সামসুল আলম ভূঞা রাখিল রায়পুরার নির্বাচনী মাঠে শিবপুর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সামসুল আলম ভূঞা রাখিল
শিরোনাম :
ড. মুহম্মদ শহিদুল্লাহ পদক পেলেন হোমিও চিকিৎসক মাও: আ: ওয়াদুদ নরসিংদী ইনডিপেনডেন্ট কলেজে দোয়া ও অভিভাবক সমাবেশ জীবনে সৎ ও নিষ্ঠাবান হবে- উপাচার্য ড. মো: গিয়াস উদ্দিন তোমরা মানবিক হবে -মেয়র আমজাদ হোসেন বাচ্চু নরসিংদী সিভিল সার্জন অফিসে মাধ্যমিক শিক্ষকদের শিশু স্বাস্থ্য বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত বেলাব উপজেলা আ.লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত নরসিংদীতে আইডিইবি’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন মাধবদীতে কওমি মাদ্রাসার ছাত্রী নিয়ে শিক্ষিকা উধাও মনোহরদীতে ৯ ইউনিয়নে ৪৫১ চেয়ারম্যান প্রার্থীতা চুড়ান্ত, ১ জনের বাতিল আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবস উদযাপনের লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা সুন্দর সমাজ গঠনে খেলাধুলার বিকল্প নেই -সামসুল আলম ভূঞা রাখিল রায়পুরার নির্বাচনী মাঠে শিবপুর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সামসুল আলম ভূঞা রাখিল

গ্রামীণ ঐতিহ্যের মাটির ঘরে আরাম থাকলেও কদর নেই

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২১
  • ১২ বার

আতাউর রহমান ফারুক: গ্রাম বাংলার প্রাচীন ঐতিহ্যের মাটির ঘরে শীতে উম, গরমে আরাম। চোর ছ্যাচোড় প্রতিরোধক। নির্মাণ ব্যয় সাধ্য সীমায়, টেকসই ও মজবুত। এতো সব সুযোগ সুবিধে সত্বেও গ্রাম বাংলার প্রাচীন ঐতিহ্যের মাটির ঘরের এখন আর কদর নেই। ফলে বিলুপ্তির পথে আবহমান বাংলার প্রাচীন ঐতিহ্যের মাটির ঘর।
আবহমান গ্রাম বাংলার প্রাচীন ঐতিহ্যের মাটির ঘর এখন বিলুপ্তির পথে। গ্রামের বৃক্ষ লতায় ঘেরা এ সব ঘরের জায়গা দখল করছে এখন আধা পাকা ভবন কিংবা সৌখিন ডুপ্লেক্স বাড়ী। অথচ বাঙ্গালীর মাটির ঘরের প্রাচীন ঐতিহ্য অনস্বীকার্য। কতো সৌখিন নান্দনিক সুসজ্জিত ছিলো সে মাটির ঘর। যেনো শিল্পীর তুলিতে আঁকা ছবি একেকটি। ছবির মতোই ঝকঝকে তকতকে ঘর। ঘরের দেয়াল জুড়ে আবার নানান রকমের ফুলেল নক্সা কোন কোনটার। লতাপাতার কারুকার্যও বিদ্যমান কোনটাতে। চালার নীচে কবুতরের খোঁপ। দিনরাত বাকুম বাকুম তাতে। ঝকঝকে তকতকে আঙ্গিনায় ছানা সমেত মুরগী কতেক। শীতের প্রত্যুষে – সন্ধ্যেয় কুয়াশার চাদরে ঢাকা।
দেখে মনে হয়, একেকটি সুখী গেরস্থ পরিবার যেনো। উদাত্তু আহবান যেনো সেখানে, ‘আমার বাড়ী আইসো ভোমর বসতে দেবো পিঁড়ে / জল পান যে করতে দেবো শালি ধানের চিড়ে/ শালি ধানের চিঁড়ে দেবো বিন্নি ধানের খই।” আজ সেসব হারাতে বসেছে। মাটির ঘরের আরামের আর কোন কদর নেই। তার জায়গা দখল করেছে ইটের তৈরি সুউচ্চ পাকা ভবন। গ্রামের বৃক্ষলতার মাথা ডিঙ্গিয়ে বেয়াদবের মতোন আকাশে মাথা তুলে দাঁড়িয়ে পড়ছে দিনদিন। এ যেনো রবি ঠাকুরের’ ইটের পরে ইট, তার মাঝে মানুষ কীট। নেইকো প্রেম নেইকো ভালোবাসা। গত রোববার মনোহরদী থেকে মোটর বাইকে কাপাসিয়ার আড়ালিয়া, ঘোষের কান্দী, টোক, উলুসারা, উজুলী, দুর্লভপুর, দামোয়ারচালাসহ ৭/৮ টি গ্রাম ঘুরে এ রকম নিরন্তর আয়োজন চোখে পড়েছে।
রাঙ্গা মাটির পথে ঘুরে ঘুরে দেখা গেলো, মাটির মানুষ যেনো প্রাচীন ঐতিহ্যের মাটির ঘরগুলো ভাঙ্গতে উম্মাদ হয়ে লেগেছে। তার জায়গায় ইটের আধাপাকা কিংবা পাকা ভবন গড়তে আদাজল খেয়ে লেগেছে যেনো সবাই। সর্বত্র নগরায়নের ছোঁয়া লাভে মানুষ যেনো পাগল পারা হয়ে উঠেছে। ব্যতিক্রমও মিলেছে কিছু। কাপাসিয়ার নরসিমপুর গ্রামের ইসলাম উদ্দীন-মমতা দম্পতি স্বপরিবারে আমেরিকায় থাকেন। তারা পৈত্রিক মাটির ঘরটিকে সংস্কার করে নিচ্ছেন। ঘরটির খোল নলচে সব ঠিক রেখে বারান্দায় গ্রীল লাগাচ্ছেন, মেঝেতে বসাচ্ছেন টাইলস, আরো কিছু। দোতলা মাটির ঘর। মাটির কাঠামো। সব ঠিক আছে। আধুনিক সুযোগ সুবিধের সংযোজন হচ্ছে সাথে, মন্দ কি তাতে? এ রকম কিছু ব্যতিক্রম চোখে পড়ে শতকরা ৯০টি মাটির ঘর ভাঙচুরের বিপরীতে। দুর্লভপুর গ্রামের মসজিদের সামনে আলাপ হলো কয়েক বয়স্ক গ্রামবাসীর সাথে। মাটির ঘর নিয়ে কথা হয় সেখানে।
তাদের বক্তব্য, মানুষ হুজুগে মেতেছে। মাটির ঘরের সুবিধে নেই। ভিকারটেক গ্রামের স্কুল শিক্ষক মন্জুরুল হক খান স্বপরিবারে মাটির ঘরের বাসিন্দা। তিনি জানান, যতেœ থাকলে একশ’ বছরেও এ ঘরের কিছুই হয় না। ঘরগুলোকে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বলা যায়। তবে মাটির ঘরের কারিগর পাওয়া এখন কঠিন।
একই চিত্র মনোহরদীর রাঙ্গামাটির এলাকাখ্যাত চুলা, বাঘিবাড়ী, আকানগর, ডুয়াইগাঁও, মান্দারটেক, মাধুশাল, খারাব, কাঁটাবাড়ীয়া এলাকায়। এলাকাগুলোতে সুন্দর ছবির মতো মাটির ঘরের আধিক্যে চোখ জুড়োত। এখন সেসব বিলুপ্তির পথে।
বাঘিবাড়ী গ্রামের সৈয়দ হামিদুর রহমান জানান, পিতার আমল থেকেই মাটির ঘরে বসবাস তার। এখনো তাই আছেন। মাটির ঘরে নানা দিক তুলে ধরে তিনি জানান, বিদেশ গিয়ে নব্য বড়লোক বনে যাওয়া লোকজনের হাতেই মাটির ঘরের বিনাশ বেশী ঘটছে। তিনি জানান, মাটির ঘরে থাকতেই পছন্দ তার। আর তাই থাকছেনও তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..