1. grameendarpan@gmail.com : admi2017 :
  2. taife.nur14@gmail.com : taifur nur : taifur nur
August 16, 2022, 9:46 pm

নরসিংদীতে প্রায় তিনশো বছর ধরে চলছে মাছের মেলা

Reporter Name
  • Update Time : Thursday, December 30, 2021
  • 42 Time View

শরীফ ইকবাল রাসেল: অতিথি ও আত্মীয়-স্বজনদের আপ্যায়নে এক ব্যতিক্রম ধর্মী আয়োজন করা হয় নরসিংদীর পলাশে। আর আ্যপায়নের অংশ হিসেবে প্রায় তিনশো বছর ধরে চলে আসছে মাছের মেলা। এই মেলা থেকে মাছ কিনে আত্মীয়-স্বজনকে দাওয়াত করে খাওয়ান অত্র অঞ্চলের সনাতন ধর্মের লোকজন। এর ফলে এলাকায় এক উৎসবের আমেজ পরিলক্ষিত হয়।
নরসিংদীর পলাশ উপজেলার বরাবো এলাকা। এখানে প্রায় তিনশো বছর পূর্বে প্রতিষ্ঠিত হয় কানাই লাল জিউর মন্দির। আর এই মন্দির প্রতিষ্ঠার পর কার্তিক মাসের শেষ রোববার থেকে ৪০ দিনব্যাপী চলে কীর্তন অনুষ্ঠান। পৌষ মাসের দ্বিতীয় সোমবার রাধা কৃষ্ণের যুগল মিলনের মাধ্যমে কীর্তন শেষ হয়। পরদিন মঙ্গলবার বসানো হয় ব্যতিক্রমধর্মী মাছের মেলা। মেলায় দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে বড় বড় মাছ নিয়ে পাইকারগণ ছুটে আসেন। ভোর ৫টা থেকে সকাল ১০টা পর্যন্ত মাত্র ৫ ঘন্টা চলে এই মাছের মেলা। এতেই প্রায় বেচা বিক্রি হয় কয়েক লক্ষ লক্ষ টাকার মাছ। মেলায় ৫ কেজি থেকে শুরু করে ১০, ১৫ কেজি পর্যন্ত ওজনের রুই, কাতলা, বোয়াল মাছ নিয়ে বসেন ব্যবসায়িরা। এছাড়াও মেলায় চিংড়ি, ইলিশ, চিতলসহ বড় বড় মাছ উঠে। আর এই মেলাকে ঘিরে অত্র অঞ্চলের সনাতন ধর্মের লোকজন তাদের সাধ্য মতো মাছ কিনে নেয়। আর বছরের এই দিনে আত্মীয়-স্বজনদের দাওয়াত করে মাছ দিয়ে আপ্যায়ন করে থাকেন। সব মিলিয়ে এ অঞ্চলের সকল বয়সের মানুষ এ মেলাকে ঘিরে এক অনাবিল আনন্দে মেতে ওঠেন। আর তাই প্রাণের টানে মেলার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় থাকেন। অপরদিকে আত্মীয়-স্বজনরা এই মাছের মেলা উপলক্ষে পরিবার পরিজন নিয়ে এখানে বেড়াতে আসেন।
সকাল থেকেই মন্দিরে সনাতন ধর্মালম্বীগনের বহু পুরানো রাধা কৃষ্ণের নামজজ্ঞ শুরু হয়। মানব শান্তি ও কল্যাণের আরাধনায় নানা বয়সের হরিভক্তগণ তাদের মানত ও প্রসাদ বিতরণ করে মনের আরতি দান করে থাকে। মঙ্গলবার মেলা প্রাঙ্গন ঘুরে দেখা যায়, বহুসংখ্যক মাছ ব্যবসায়ী মেলায় বেচাবিক্রির জন্য নানান জাতের মাছ ডালায় সাজিয়ে বসে আছেন।
এই মেলা আশপাশের গ্রাম-গঞ্জের সকলের কাছে একটি বাৎসরিক প্রাণের উৎসব। এ সময় বিশেষ করে দীর্ঘদিন পর মেয়ে এবং মেয়ে জামাই’র আগমন ঘটে প্রায় বাড়িতেই। দূর দুরান্ত থেকে অতিথিদের ভীড়ে বাড়িতে আনন্দ মুখর পরিবেশ তৈরী হয়। নিমন্ত্রিত আত্মীয়-স্বজনকে মেলা উপলক্ষে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়।
তাছাড়াতো সনাতন বাঙালী রীতিতে নাড়– মুড়ি-মুরকির আয়োজনতো আছেই। সব মিলে অত্র অঞ্চলের মানুষ এই মেলা ঘিরে সপ্তাহ ধরে সব বয়সের মানুষজন এক অন্যরকম অনাবিল আনন্দে মেতে ওঠেন। আর তাইতো প্রাণের টানে মেলার জন্য অধীর আগ্রহে দীর্ঘ সময় অপেক্ষায় থাকে।
রাধা কৃষ্ণের যুগল মিলন উপলক্ষে কীর্তন শেষে মাছের মেলা বসে। মেলায় দুর দুরান্ত থেকে বড় বড় মাছ নিয়ে ব্যবসায়ীরা আসেন। ফলে মেলাকে ঘিরে আশপাশের এলাকায় এক উৎসবের আমেজ তৈরী হয়। এমনই কথা জানালেন মন্দির কমিটির সাধারন সম্পাদক নৃপেন্দ্র রায়।
মন্দির কমিটির সভাপতি হীরা লাল কর জানান এই মাছের মেলাটি ৩শ বছর ধরে চলছে। মেলাকে উপলক্ষ করে স্থানীয় সনাতন ধর্মের লোকজনের দুর দুরান্তের আত্মীয়-স্বজন বেড়াতে আসেন। তাদেরকে মাছ দিয়ে আপ্যায়িত করা হয়।
মেলাকে ঘিরে প্রায় তিনশ বছর ধরে এই এলাকার মানুষ এক সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির মেলবন্ধনে আবদ্ধ হয়ে বসবাস করে আসছেন। আর এই দিনে ভাগাভাগি করে নেন একে অপরের আনন্দ আর উৎসবকে। ভবিষ্যতেও এভাবে থাকতে চান এ অঞ্চলের সকল ধর্মের লোকজন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category