1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : news post : news post
  3. [email protected] : taifur nur : taifur nur
April 18, 2024, 8:36 pm
সর্বশেষ সংবাদ
আগে ঘরের ছেলেরা নিরাপদে ঘরে ফিরুক উপজেলা নির্বাচনে শুধু প্রার্থী নয়, যে কেউ প্রভাব বিস্তার করবে তার বিরুদ্ধেও পদক্ষেপ নেয়া হবে: ইসি মো. আলমগীর নরসিংদী জেলা পুলিশের নিয়মিত অভিযানে ১১ কেজি গাঁজা ও ১০৫ পিস ইয়াবা উদ্ধার গ্রেফতার ০৩ নরসিংদীতে ইউপি সদস্য খুন ‘ইসমাইলকে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই জড়িত সবার নাম-পরিচয় জানা যাবে’ অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনারে বিরুদ্ধে অপপ্রচারের প্রতিবাদে ৯৮ ব্যাচ বন্ধুদের সংবাদ সম্মেলন মাধবদীর নুরালাপুরে ভূমি দস্যু ও মামলাবাজ আনজত আলীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ জনসাধারণ রায়পুরায় বজ্রপাতে একজন নিহত নরসিংদী পৌর মেয়র আমজাদ হোসেন বাচ্চুর সফলতার ৩ বছর উৎযাপন শিবপুরে সৎ মায়ের নির্যাতনে শিকার ৩ ভাই ঘর ছাড়া মেলায় দৌলতপুর ইউপি সদস্যের জুয়ার আসর!!

কাদির মোল্লার বিরুদ্ধে শ্রম আদালতে মামলা

প্রতিবেদকের নাম
  • পোস্টের সময় Wednesday, April 5, 2023
  • 301 বার দেখা হয়েছে

ডেস্ক রিপোর্ট: থার্মেক্স গ্রুপের এমডি আব্দুল কাদির মোল্লার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা হয়েছে শ্রম আদালতে। শ্রমিকের মজুরি পরিশোধ না করে নির্যাতনের পর বিনা নোটিশে চাকরি থেকে বের করে দেওয়ার অপরাধে শ্রম আদালতে শতাধিক মামলা করা হয়। মজুরি ভাতা না পাওয়ায় আরও সহস্রাধিক চাকরিচ্যুত শ্রমিক মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলেও জানা গেছে। গত এক বছরে নানা অজুহাত দেখিয়ে এ গ্রুপ প্রায় দেড় হাজার শ্রমিককে চাকরিচ্যুত করেছে বলে জানা গেছে। তাদের সবার চাকরির বয়স দশ বছরের অধিক। ছাঁটাইয়ের এই তালিকায় শ্রমিকদের পাশাপাশি কর্মকর্তারাও রয়েছেন। অনৈতিকভাবে চাকরিচ্যুত হওয়ার পর অনেকেই মানবেতর জীবনযাপন করে মারাও গেছেন। এ বিষয়ে জানতে বারবার ফোন করেও আব্দুল কাদির মোল্লার সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

অসহায় ভুক্তভোগী শ্রমিকদের একজন নরসিংদীর রায়পুরার রামনগরের জজ মিয়ার ছেলে জয়নাল মিয়া বলেন, দশ বছর সুপারভাইজার পদে থার্মেক্স ওভেন ডায়িং ফেব্রিক্সে কাজ করতেন তিনি। কোনো নোটিশ ছাড়াই তাকেসহ এ প্রতিষ্ঠান থেকে এক সঙ্গে ৭০ জনকে চাকরিচ্যুত করা হয়। দশ বছরাধিক চাকরি করার পর তাকে মাত্র ৯২ হাজার ৪১৭ টাকা দিয়ে বিদায় করেছে কোম্পানি। তার হিসাব মতে, তিন মাসের বেতন-ভাতা বোনাসসহ কমপক্ষে ৫-৭ লাখ টাকা পাওয়ার কথা।

থার্মেক্স গ্রুপে প্রায় ১৭ বছর ধরে এজিএম (নির্মাণ) পদে কর্মরত ছিলেন পঙ্কজ ঘোষ। গত বছরের ২১ জুন আকস্মিকভাবে কোম্পানির এমডি আব্দুল কাদির মোল্লার কক্ষে ডাকা হয় তাকে। কোম্পানির অবস্থা ভালো নয়, এমন নানা সমস্যা দেখিয়ে তাকে আগামীকাল থেকে আসতে বারণ করেন মোল্লা। এ কথা শুনে তখন তার মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ে। এক সপ্তাহ পড়েই ছিল ঈদুল আজহা। নানা কাকুতি-মিনতি করার পর কোনো কথাই রাখেননি কাদির মোল্লা। তার আমলের কোনো কর্মকর্তারই বর্তমানে চাকরি নেই বলে জানিয়েছেন এ ভুক্তভোগী কর্মকর্তা। ২০০৫ সালে ৮ হাজার টাকা বেতনে চাকরিতে যোগদান করা এই প্রকৌশলী ২০২২ সালে মে মাসে সর্বশেষ বেতন পেয়েছেন ১ লাখ ৫ হাজার টাকা। প্রায় এক বছর হয়ে গেলেও এই কর্মকর্তাকে একটি টাকা না দিয়ে বিদায় করে দেওয়া হয়। তিনি জানান, এই কোম্পানিতে তার কমপক্ষে ১২ লাখ টাকা পাওনা রয়েছে। দিচ্ছি দিব করে প্রায় এক বছর হতে চলেছে।

থার্মেক্স-এর সাবেক এক জিএম বর্তমানে আমানতশায় চাকরি করেন। তার হাত ধরেই এই কোম্পানির ভিত মজবুত হয়। সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত টানা ডিউটি করে বাসায় ফেরার পথে কাদির মোল্লার ফোন পান। ফোনে আগামীকাল থেকে তাকে আসতে বারণ করে দেন তিনি। চাকরিচ্যুত হওয়ার ৭ বছর অতিক্রান্ত হলেও প্রাপ্য সুবিধাদি পাননি তিনি। সাবেক এই কর্মকর্তারা আরও জানান, শ্রমিকের ন্যায্য পাওনা না দিয়ে এই কষ্টের টাকা মেরে খাওয়া যেন এখন কাদির মোল্লার নেশায় পরিণত হয়েছে।

তবে অল্প কিছু ভুক্তভোগী বাংলাদেশ শ্রম আইন, ২০০৬ এর ১৩২ (১) ধারার বিধানমতে ঢাকার শ্রম আদালতে এই শিল্পপতির বিরুদ্ধে মামলা রুজু করেছেন। তারা হলেন, বাগেরহাট জেলার চিতলমারী থানার বড়বাড়িয়া গ্রামের মোল্লা নুরুল ইসলাম, মামলা নং ১২০৩/২০১৮, নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার কাশিমনগর গ্রামের খাদিজা আক্তার, মামলা নং ১২৭৩/২০১৮, একই উপজেলার দুকুন্দী গ্রামের মজিবুর রহমান মামলা নং ১৫০/২০১৮, শিবপুর উপজেলার উত্তর কারারদী গ্রামের ফাতেমা আক্তার, মামলা নং ১২৭৪/২০১৮, বাড়ই আলগী গ্রামের রামিজা, মামলা নং ১৪৯/২০১৮, কামারগাঁও গ্রামের শ্যামলী আক্তার মামলা নং ১৫৪/২০১৮, মানিকগঞ্জ জেলার সাটুরিয়া থানার বাগমারী গ্রামের একরামুল হক, মামলা নং ১৪২৮/২০১৭, কুড়িগ্রাম জেলার ওলিপুর নাড়িকেলবাড়িয়া গ্রামের আব্দুল মান্নান মামলা নং ১২৩৩/২০১৭, রাজবাড়ী জেলার সদর উপজেলার শিবরামপুর গ্রামের জাহাঙ্গির হোসেন মামলা নং ১২১২/২০১৭, টাঙ্গাইল জেলার সদর থানার বালিশ গ্রামের ইসলাম মামলা নং ১২৩২/২০১৭। ১২১২/২০১৭ নং মামলার বাদী রাজবাড়ী জেলার জাহাঙ্গির হোসেন বলেন, কোনো নোটিশ ছাড়াই বেতন-ভাতা বকেয়া রেখে তার মতো এমন ২০০ জনকে চাকরিচ্যুত করে এই প্রতিষ্ঠান। মামলা করেও এখন এই ক্ষমতাশালীর কাছ থেকে বকেয়া আদায় করা যাচ্ছে না। সূত্র: দৈনিক কালবেলা অনলাইন

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো দেখুন