1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : news post : news post
  3. [email protected] : taifur nur : taifur nur
April 18, 2024, 9:43 pm
সর্বশেষ সংবাদ
আগে ঘরের ছেলেরা নিরাপদে ঘরে ফিরুক উপজেলা নির্বাচনে শুধু প্রার্থী নয়, যে কেউ প্রভাব বিস্তার করবে তার বিরুদ্ধেও পদক্ষেপ নেয়া হবে: ইসি মো. আলমগীর নরসিংদী জেলা পুলিশের নিয়মিত অভিযানে ১১ কেজি গাঁজা ও ১০৫ পিস ইয়াবা উদ্ধার গ্রেফতার ০৩ নরসিংদীতে ইউপি সদস্য খুন ‘ইসমাইলকে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই জড়িত সবার নাম-পরিচয় জানা যাবে’ অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনারে বিরুদ্ধে অপপ্রচারের প্রতিবাদে ৯৮ ব্যাচ বন্ধুদের সংবাদ সম্মেলন মাধবদীর নুরালাপুরে ভূমি দস্যু ও মামলাবাজ আনজত আলীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ জনসাধারণ রায়পুরায় বজ্রপাতে একজন নিহত নরসিংদী পৌর মেয়র আমজাদ হোসেন বাচ্চুর সফলতার ৩ বছর উৎযাপন শিবপুরে সৎ মায়ের নির্যাতনে শিকার ৩ ভাই ঘর ছাড়া মেলায় দৌলতপুর ইউপি সদস্যের জুয়ার আসর!!

তাপস নিঃশ্বাস বায়ে, মুমূর্ষুরে দাও উড়ায়ে

প্রতিবেদকের নাম
  • পোস্টের সময় Thursday, April 13, 2023
  • 546 বার দেখা হয়েছে

॥ মহসিন খোন্দকার ॥
নতুন বছর মানে নতুন উচ্ছ্বাস, নতুন প্রণোদনা, নতুন কর্মতৎপরতা। বৈশাখ মানে নতুন নিশ্বাস, বৈশাখ মানে ঝরা পাতার প্রবল উচ্ছ্বাস। শাশ্বতকাল থেকে আমাদের মন-মননে বৈশাখ নিয়ে আসে লোকজ ঐতিহ্যের বিচিত্র বিস্তার, নিয়ে আসে অস্তিত্বের সুখ-সংস্কৃতির নিবিড় অনুশীলন। বৈশাখ হলো পরিবর্তনের প্রতীক। ঈষাণ কোণের কাল- বৈশাখী ঝড় ভেঙ্গে-চুরে, ধুয়ে-মুছে, ঝেরে-ঝেটিয়ে বিদায় করে পুরনো ধূলো-বালি, কালিক আঁধার-বাদাড়, নষ্ট ও নিষ্ফলা চিন্তার হলুদ পাতা। পরিবর্তনের প্রবল প্রণোদনায়, মনন-বৃক্ষের বাকল ফেঁড়ে উঁকি দেয় নতুন কুঁড়ি, নতুন পাতা, নতুন বোধ-ভাবনা।
বিষু-বৈশাখে আম্মার বোরো ভাতের ফেন আর তিতা গিমা শাকের তর্জমা পড়ে বড় হয়েছি। বৈশাখকে পেয়েছি নানান ভাব-ব্যঞ্জনায়। কখনো রুদ্রমূর্তিতে তেড়ে এসেছে ঈষাণকোণ থেকে। তছনছ করেছে বন-বীথি, ফসলমাঠ, লোকালয়। আবার কখনো হেলেদুলে ভাবলেশহীন ভাবে এসেছে বয়সী রবিঠাকুরের মতো। কখনো তার মাথায় ছিল মেঘের ঝাঁকরা চুল আবার কখনো নিয়ে এসেছে অপার শুচি স্নিগ্ধতা। বৈশাখ পরিবর্তনের মাস, রূপান্তরের মাস, নতুনত্বের মাস। বৈশাখে শুধু প্রকৃতিতেই পরিবর্তন হয়না, পরিবর্তন হয় মনোজাগতিক। জীবজগতে প্রাণচাঞ্চল্য আসে, নতুন চেতনা আসে, নতুন উদ্দীপনা আসে। নিবিড় রিফরমেশন চলে। অনেকটা পি বি শেলির ঙফব ঃড় ঃযব ডবংঃ ডরহফ কবিতার মতো পুরাতন ভেঙ্গে নতুন রূপে আর্বিভাব হওয়ার জোর আহবান নিয়েই আসে বৈশাখ।
ঘুড়ির গোত্তার ভেতর লুকিয়ে যাওয়া কিশোরের চোখে আজ চারফর্মার আকাশ। উচ্ছ্বাসের দুরন্ত ঈগল তাকে ক্রমশ টেনে নিয়ে যায় রথমেলার দিকে। বাঁশির সুর, শাঁখধ্বনি, নাগরদোলার সুখচক্কর আর পায় বহু বিচিত্র ম-া-মিঠাইয়ের আকুল ব্যাকুল করা ঘ্রাণ।
বৈশাখী মেলা থেকে ফিরতে ফিরতে সে বাজায় তার বাঁশের বাঁশি। খুব আনন্দে চেয়ে দেখে সহযাত্রী কিশোরির হাতের মাটির পুতুল, হাতি, ঘোড়া, খেলনাপাতিল আর দেখবে তার উচ্ছল চোখের এককোণে অদ্ভুত আনন্দ অনুভূতি।
আবহমান কাল থেকে ঋদ্ধ বাঙালি নববর্ষকে পালন করে আসছে নানা ঐতিহ্যে, উৎসবে ও রেওয়াজে। বাংলা নব বর্ষের প্রথম দিনে বটতলায়, নদীর তীরে অথবা গ্রামের শেষ প্রান্তে বসে গ্রাম্য মেলা। গ্রামীণ বাহারি পণ্যের পসরায় ভরে উঠে মেলাঙ্গন। মাটির পতুল, বিচিত্র খেলনা, হাঁড়ি-পাতিল, দেশীয় খাবার-দাবার, মন্ডা-মিঠাই, মুড়কি-মোয়া, কাঠের আসবাবপত্র, বাঁশের শৌখিন জিনিসপত্র, ঢোল-ঢাক ও হরেক রকম বাঁশি ভেঁপুর নিñিদ্র নিনাদে নতুন বছরের নতুন বাতাস মুখরিত হয় প্রবল ভাবে। স্থানে স্থানে চলে ষাঁড়ের লড়াই, মোরগের লড়াই, গরু দৌড়, ঘোড়া দৌড়, লাঠি খেলা, কুস্তি খেলা, ঘুড়ি উড়ানো ও পুঁথি পাঠ। সবকিছু ঝেওে মুছে ব্যবসায়িরা হিসাবের নতুন খাতা খুলেন, চৈত্র সংক্রান্তিতে তিতা বক্ষণ করেন অনেকে, ফসলী জমিতে মঙ্গলজল ছিটান কৃষকরা, বিষু পালন করেন কেউ কেউ। গ্রামীণ এ সব মেলা উৎসবের নিদিষ্ট কোন আয়োজক-আহবায়ক নেই। তাই এসব হলো বাঙালির প্রাণের উৎসব, শেকড়ের উৎসব, শাশ্বত কালের উৎসব। বাংলা বর্ষবরণ অনুষ্ঠানই আমাদের একমাত্র অসাম্প্রদায়িক উৎসব। বাংলা নববর্ষকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন অনুষ্ঠান, গ্রাম্য মেলা, ষাড়ের লড়াই, লাঠিখেলা, পান্তা উৎসব সবই সকল বাঙালির ঐক্যবদ্ধ আনন্দ উচ্ছ্বাস। যারা এর সাথে সাম্প্রদায়িকতা যুক্ত করে তারা ধর্মান্ধ, চালবাজ ও সুবিধাবাদী। তাদের উদ্দেশ্য আমাদের শাশ্বত সুন্দর আনন্দ অবগাহন ধ্বংস করা, বাঙালিত্বে ফাঁটল ধরানো, আমাদের ভেতর ধর্মান্ধতার ধুম্রজাল ছড়ানো।
আসুন বাংলা নববর্ষকে পালন করি আমাদের লোকজ অস্তিত্বের অফুরন্ত চেতনায়। ভালোবাসি যা কিছু আমাদের, যা কিছু ছুঁয়ে-ছেনে থাকে আমাদেরকে।
মহসিন খোন্দকার: কবি ও লেখক, লোকসাহিত্যে শিল্পকলা একাডেমি পুরস্কারপ্রাপ্ত।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো দেখুন