1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : news post : news post
  3. [email protected] : taifur nur : taifur nur
April 24, 2024, 3:41 am

প্রফেসর কালাম মাহমুদ কলকাতা থেকে সাহিত্যিক দিলীপ রায় স্মৃতি পুরস্কার পেলেন

প্রতিবেদকের নাম
  • পোস্টের সময় Tuesday, May 2, 2023
  • 238 বার দেখা হয়েছে

ডেস্ক রিপোর্ট: পশ্চিমবঙ্গের বিখ্যাত প্রকাশনা সংস্থা শৈশব প্রকাশন বাঙলা সাহিত্য ও সংস্কৃতি ক্ষেত্রে পাঁচটি শাখায় প্রয়াত পাঁচজন স্বনামধন্য সাহিত্যিক-শিল্পীর নামে সম্মাননা পদক ও স্মৃতি পুরস্কার প্রদান করেছে। বিগত ২০.৪.২৩ তারিখ বৃহস্পতিবারে কলকাতার পশ্চিমবঙ্গ বাংলা আকাদেমি প্রাঙ্গণে জীবনানন্দ সভাঘরে এই পদক ও পুরস্কার প্রদানের জন্য এক বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আয়োজনে দুই বাংলার কবি, সাহিত্যিক, শিল্পীবৃন্দ, সাংবাদিক, শিক্ষকসহ সভ্যশ্রেণির গুণিব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান ভাবনায় ছিলেন ‘ঠা-া বারুদ’ আবৃত্তিদলের প্রধান কবি ফুল্লরা মুখোপাধ্যায়। মূল আয়োজক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন শৈশব প্রকাশনা সংস্থার কর্ণধার শ্রী স্বপন কুমার ঘোষ।


অনুষ্ঠানে যে পাঁচজন ব্যক্তির নামে স্মৃতি পুরস্কার দেয়া হয় তাঁদের নাম- কবি বিনয় মজুমদার, সাহিত্যিক রণেন ঘোষ, সাহিত্যিক ড. দিলীপকুমার রায়, শিল্পী কমলকুমার কু-ু ও চিত্রশিল্পী অমিত ঘোষ। স্মৃতি পদক ও পুরস্কার যারা অর্জন করেন তাঁদের নাম যথাক্রমে কবি- প্রফেসর কালাম মাহমুদ (বাংলাদেশ), সাহিত্যিক নরেশচন্দ্র মজুমদার, কবি ফুল্লরা মুখোপাধ্যায়, প্রচ্ছদশিল্পী শঙ্কর বসাক ও চিত্রশিল্পী সৌরভ দে। তাঁদের প্রত্যেককে সম্মাননা পুরস্কার, সনদপত্র ও সম্মানার্থে উত্তরীয় পরানো হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে ইউটিউব চ্যানেলে সাক্ষাৎকার প্রদান করেন প্রফেসর কালাম মাহমুদ, ফুল্লরা মুখোপাধ্যায় ও নরেশচন্দ্র মজুমদার। প্রফেসর কালাম মাহমুদ কলকাতা থেকে প্রকাশিত ‘বাঙলা উচ্চারণে নিয়ম-কানুন’ গ্রন্থের বিষয় সম্পর্কে বক্তব্য প্রদান করেন। প্রকাশনার পক্ষ থেকে পুরস্কার প্রদান করেন রবীন্দ্রভারতী বিশ^বিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও সুরসাধক শ্রী তাপস কুমার পাল, সাহিত্যিক তপন চট্টোপাধ্যায়, প্রকাশক শ্রী স্বপন কুমার ঘোষ।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির পদ অলঙ্কৃত করেন সুসাহিত্যিক শ্রী তপন চট্টোপাধ্যায়। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রবীন্দ্র ভারতী বিশ^বিদ্যালয়ের অধ্যাপক শ্রী তাপস কুমার পাল, সঙ্গীতশিল্পী ও অভিনয়শিল্পী শ্রী অনিন্দ্য বসু। ভারত সরকারের পূর্বাঞ্চলীয় সংস্কৃতিকেন্দ্রের অধিকর্তা আশিস গিরি কর্মব্যস্ততার কারণে অনুপস্থিত থাকায় সুসাহিত্যিক তপন চট্টোপাধ্যায় প্রধান অতিথির আসন অলঙ্কৃত করেন।
আলোচনা পর্বের সূচনায় স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন শৈশব প্রকাশনার স্বত্বাধিকারী শ্রী স্বপন কুমার ঘোষ। ভাষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতির
নানাবিষয়ে সারবান বক্তব্য রাখেন- নরেশ চন্দ্র মজুমদার, প্রফেসর কালাম মাহমুদ ও প্রধান অতিথি শ্রী তপন চট্টোপাধ্যায়। আলোচনা পর্বের শেষে উপস্থিত অতিথি ও পুরস্কারপ্র্প্তা ব্যক্তিদের ভারত ও বাংলাদেশের পতাকার রঙে উত্তরীয় পড়ানো হয়।
সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পর্বে ‘ঠা-া বারুদ ও ‘এক মুঠো কবিতা’ গ্রুপের কবি ও বাচিক শিল্পীবৃন্দ মনোজ্ঞ ও নান্দনিক উচ্চারণে নির্বাচিত ও স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করে দর্শক-শ্রোতাদের মন কেড়ে নেন। আবৃত্তি পর্বে অংশগ্রহণ করেন- ফুল্লরা মুখোপাধ্যায়, অঞ্জনা বসু, শুভদীপ চক্রবর্তী, ঝুমঝুম ব্যানার্জি, অর্পিতা ব্যানার্জি, অনুরাধা মজুমদার, কেয়া রা শ্রেয়সী, সৃজনী, কাকলী, মৌসুমী প্রমুখ। অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন অনিন্দ্য বসু। চিত্রধারণে ছিলেন স্বপন রায় ও রাজেশ সেন।
অনুষ্ঠান উপস্থাপন ও সঞ্চালনে শ্রী সুবীর হালদার বিশেষ চমৎকারিত্ব প্রদর্শন করে। সকলের সমন্বিত উদ্যোগে জীবনানন্দ সভাঘরে একটি সাড়ম্বর, সুশৃঙ্খল ও প্রাণময় অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। অনুষ্ঠানের শিল্পী-বক্তাগণ দুই বাংলার সাহিত্য-সংস্কৃতি ক্ষেত্রে একটি দৃঢ় সেতুবন্ধন বিনির্মাণের দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। অনুষ্ঠান শেষে সবাই ফটোসেশনে অংশ নেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো দেখুন