1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : news post : news post
  3. [email protected] : taifur nur : taifur nur
March 3, 2024, 9:33 pm
সর্বশেষ সংবাদ
রিয়েলিটি শো’র বিচারকের আসনে রাজীব মণি দাস নরসিংদীর আঞ্চলিক শব্দকোষ’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন বেলাব উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী হতে চান মোঃ খোর্শেদ আলম নরসিংদী জেলা পর্যায়ে প্রাথমিক শিক্ষা পদক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত মল্লিকপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, সাংস্কৃতিক ও শিশুবরণ অনুষ্ঠিত নরসিংদীতে মাসব্যাপী গোল্ডকাপ ব্যাডমিন্টন টুর্ণামেন্টে নরসিংদী পৌরসভা চ্যাম্পিয়ন উপজেলা নির্বাচনে শিবপুরে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা সরব বিএনপি নীরব বেলাবতে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত এক আসামী গ্রেফতার পলাশে জব্দকৃত ভেজাল সার ধ্বংস করলেন কৃষি কর্মকর্তা মনোহরদী উপজেলা প্রেসক্লাবের যাত্রা শুরু সভাপতি কাজী শরিফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আজমিরী সুলতানা

প্রথম করোনার ভ্যাকসিন পরীক্ষা চালালো যুক্তরাজ্য

প্রতিবেদকের নাম
  • পোস্টের সময় Sunday, April 26, 2020
  • 363 বার দেখা হয়েছে

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ইউরোপে মানবদেহে করোনাভাইরাস ভ্যাকসিনের প্রয়োগের প্রথম পরীক্ষা যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটিতে শুরু হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার গবেষক দলের উদ্ভাবিত টিকা প্রথমে দুজন স্বেচ্ছাসেবীর শরীরে দেওয়া হয়েছে। এ পরীক্ষায় ৮০০ জনের শরীরে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। তাঁদের মধ্যে অর্ধেক ব্যক্তির শরীরে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন ও বাকি অর্ধেকের শরীরে নিয়ন্ত্রিত মেনিনজাইটিস প্রতিরোধী ভ্যাকসিন দেওয়া হবে।
বিবিসি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, অক্সফোর্ডের পরীক্ষা এমনভাবে নকশা করা হয়েছে, যাতে স্বেচ্ছাসেবীরা কোন ভ্যাকসিন পেয়েছেন, তা জানবেন না, তবে চিকিৎসকেরা জানবেন।
অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির তিন মাসের প্রচেষ্টায় এ ভ্যাকসিন তৈরি করা হয়েছে। জেনার ইনস্টিটিউটের ভ্যাকসিনোলজির অধ্যাপক সারাহ গিলবার্ট প্রি-ক্লিনিক্যাল গবেষণার নেতৃত্ব ছিলেন। তিনি বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে এ ভ্যাকসিনটি নিয়ে আমার আত্মবিশ্বাস অনেক বেশি। অবশ্যই আমাদের এটি পরীক্ষা করতে হবে এবং মানুষের কাছ থেকে তথ্য নিতে হবে। আমাদের এটি দেখাতে হবে যে এটি প্রকৃতপক্ষে কাজ করে। ব্যাপক হারে ভ্যাকসিন ব্যবহারের আগে লোকেরা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়া ঠেকাচ্ছে কি না, তাও দেখতে হবে।’
এর আগে অধ্যাপক গিলবার্ট বলেছিলেন, এ ভ্যাকসিনটি কাজ করবে বলে তিনি ৮০ শতাংশ আত্মবিশ্বাসী। এর সম্ভাবনা বিষয়ে তাঁর প্রত্যাশা অনেক বেশি।
ভ্যাকসিনটি তৈরিতে শিম্পাঞ্জি থেকে সাধারণ সর্দির ভাইরাসের দুর্বল সংস্করণ (অ্যাডেনোভাইরাস) ব্যবহার করা হয়েছে। এটি এমনভাবে রূপান্তর করা হয়েছে, যাতে মানুষের মধ্যে জন্মাতে না পারে।
এর আগে করোনাভাইরাসের আরেক রোগ মার্সের ভ্যাকসিন তৈরি করেছেন অক্সফোর্ডের গবেষকেরা। এ ক্ষেত্রেও একই প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হয়েছিল। ক্লিনিক্যাল পরীক্ষায় এটি সম্ভাবনাময় ফল দেখিয়েছিল।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো দেখুন