1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : news post : news post
  3. [email protected] : taifur nur : taifur nur
February 27, 2024, 12:27 am
সর্বশেষ সংবাদ
রোজার আগেই ভারত থেকে আসছে ৫০ হাজার টন পেঁয়াজ মার্কিন প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠকের পর হতাশ কেন বিএনপি? বিশ্ব অর্থনীতিতে সংকটের মধ্যেও ভালো অবস্থানে বাংলাদেশ: বিশ্বব্যাংকের এমডি রায়পুরায় ট্রাক্টরের চাপায় মোটরসাইকেল চালক নিহত বাংলাদেশ কাঙ্ক্ষিত হয়ে উঠছে বাংলাদেশের সমুদ্রসম্পদ: অর্থনীতি সমৃদ্ধে গুরুত্বারোপ চীনের উত্থান কি পাশ্চাত্যের ঔপনিবেশিক আধিপত্যের কফিনে শেষ পেরেক? রায়পুরায় জোরপূর্বক বাউন্ডারী ওয়াল নির্মাণের চেষ্টা ॥ ৯৯৯ এ কল রায়পুরায় আলহাজ্ব মো: আবুল কাশেম মাস্টার স্মৃতি ফুটবল টুর্ণামেন্ট এর ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত কক্সবাজার সদর উপজেলা প্রেসক্লাবের দ্বিবার্ষিক নির্বাচন সভাপতি আরিফুল্লাহ নূরী, সাধারণ সম্পাদক নুরুল আলম

বিশ্বে আক্রান্ত ৩১ লাখ ৮৮ হাজার : মৃত সোয়া ২ লাখ ভিয়েতনাম যুদ্ধের চেয়েও বেশি মৃত্যু যুক্তরাষ্ট্রে যুক্তরাষ্ট্রে প্রাণহানি ৬০ হাজার ৪৯৫

প্রতিবেদকের নাম
  • পোস্টের সময় Thursday, April 30, 2020
  • 362 বার দেখা হয়েছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: করোনাভাইরাস মহামারীতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রাণহানি ৬০ হাজার ছাড়িয়েছে। যা ভিয়েতনাম যুদ্ধে নিহত মার্কিন সেনাবাহিনীর সদস্যদের চেয়েও বেশি। ভিয়েতনাম যুদ্ধে ৫৮ হাজারের বেশি মার্কিন সেনা সদস্য নিহত হয়েছিলেন।
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যাও বিপুল। বিশ্বে মোট আক্রান্তের ৩ ভাগের ১ ভাগই এ দেশে। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ঘোষণার পর সেখানে শিগগিরই প্রতিদিন ৫০ লাখ মানুষকে পরীক্ষার আওতায় আনা হবে। করোনায় বিপর্যস্ত দক্ষিণ আমেরিকার তিন দেশ ব্রাজিল, ইকুয়েডর ও পেরু। ইকুয়েডরে হাসপাতালজুড়ে করোনা রোগীদের হাহাকার চলছে। চিকিৎসা না পেয়ে অনেকেই সেখানে মারা যাচ্ছেন।
দেশটির চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, হাসপাতালের মর্গ উপচে লাশের স্তূপ জমেছে বাথরুমে। মৃত্যুতে চীনকেও ছাড়িয়ে গেছে ব্রাজিল। পেরুতে একটি কারাগারে করোনা চিকিৎসা সেবার দাবিতে বিক্ষোভরত বন্দিদের সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সংঘর্ষে ৯ জন নিহত হয়েছেন।
এদিকে ভারতে করোনা সংক্রমণ বেড়েছে। আক্রান্তের সংখ্যার দিক থেকে এশিয়ায় দেশটির অবস্থান তিনে। খবর বিবিসি, এএফপি ও রয়টার্সসহ বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের।
বাংলাদেশ সময় বুধবার রাত সাড়ে ১২টা পর্যন্ত ওয়ার্ল্ডওমিটারসের তথ্য অনুযায়ী- বিশ্বে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৩১ লাখ ৮৮ হাজার ৫৯৬ জন। মারা গেছেন ২ লাখ ২৫ হাজার ৬১৫ জন। অবস্থা আশঙ্কাজনক ৬০ হাজার ৪১৯ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৯ লাখ ৮৬ হাজার ৬২২ জন। মঙ্গলবার আক্রান্ত হয়েছেন ৭৬ হাজার ৫৬২ জন। মারা গেছেন ৬ হাজার ৩৬৫ জন।
করোনায় সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যু হয়েছে ইউরোপ ও আমেরিকায়। শুধু যুক্তরাষ্ট্রেই আক্রান্তের সংখ্যা ১০ লাখের বেশি। দেশটিতে বুধবার রাত সাড়ে ১২টা পর্যন্ত মারা গেছেন ১ হাজার ২২৯ জন, মঙ্গলবার মারা গেছেন ২ হাজার ৪৭০ জন, সোমবার ১ হাজার ৩৮৪ জন। আক্রান্ত ১০ লাখ ৪৮ হাজার ৮৩৪, মৃত্যু হয়েছে ৬০ হাজার ৪৯৫ জনের। ১৯৫৯ থেকে ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত ভিয়েতনাম যুদ্ধে ৫৮ হাজারের বেশি মার্কিন সেনা সদস্য নিহত হন। এবার করোনা মহামারীতে তার চেয়েও বেশি মানুষের মৃত্যু হল দেশটিতে।
ওয়াশিংটন ডিসির ভিয়েতনাম ভেটেরান্স স্মৃতিসৌধে ৫৮ হাজারেরও বেশি নিহত সৈন্যের নাম লিপিবদ্ধ আছে। ভিয়েতনাম যুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি ১ লাখ মানুষে ৮ দশমিক ৫ শতাংশ হারে সেনা নিহত হয়েছিল। আর করোনাভাইরাসে প্রতি ১ লাখ মানুষে ১৭ দশমিক ৬ শতাংশ হারে মানুষ প্রাণ হারাচ্ছেন।
৯০ দিন আগে যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাসে প্রথম মৃত্যু ঘটে। দেশটির ৫০টি অঙ্গরাজ্য ও নিয়ন্ত্রণাধীন অঞ্চলগুলোতেও প্রাণঘাতী এ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের পর করোনায় মৃত্যুতে শীর্ষ দেশগুলোর মধ্যে বেশিরভাগই ইউরোপের। ইতালিতে ২৭ হাজার ৮৬২ জন মারা গেছেন, আক্রান্ত ২ লাখ ৩ হাজার ৫৯১ জন। স্পেনে আক্রান্ত ২ লাখ ৩৬ হাজার ৮৯৯, মৃত্যু হয়েছে ২৪ হাজার ২৭৫ জনের।
ফ্রান্সে আক্রান্ত ১ লাখ ৬৫ হাজার ৯১১, মৃত্যু হয়েছে ২৩ হাজার ৬৬০ জনের। যুক্তরাজ্যে আক্রান্ত ১ লাখ ৬৫ হাজার ২২১ জন, মৃত্যু হয়েছে ২৬ হাজার ৯৭ জনের। বুধবার (রাত সাড়ে ১২টা পর্যন্ত) মারা গেছেন ৪ হাজার ৪১৯ জন।
ইকুয়েডরে হাসপাতালে লাশের স্তূপ : ইকুয়েডর করোনার ভয়াবহ পরিস্থিতি আর সামাল দিতে পারছে না। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সেখানে মৃত্যুর মিছিল চলছে। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত মানুষের মৃতদেহ সরানোর কাজ করছে প্রশাসন। রাস্তায় রোজই মিলছে বেওয়ারিশ লাশ।
ইকুয়েডরের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তাদের দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। মর্গে উপচে পড়েছে লাশ। তাই মৃতদেহ রাখা হচ্ছে বাথরুমে। নার্সরা বলেছেন, বহু মানুষকে বেড দেয়া যায়নি। ফলে অনেকে বিনা চিকিৎসায় মারা গেছেন। হাসপাতালজুড়ে আক্রান্তদের হাহাকার।
বহু মানুষ হাসপাতালের বাইরেও মারা গেছেন। মৃতের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় মর্গের কর্মীরা আর লাশ নিতে চান না। তখন মৃতদেহের স্থান হয়েছে বাথরুমে। প্রতিদিন গড়ে ১৫-২০টি লাশ হাসপাতালের বাথরুমে রাখা হচ্ছে।
ইকুয়েডর সরকার জানিয়েছে, দেশটিতে ২৩ হাজার মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। প্রায় ৬০০ জন মারা গেছেন। যদিও চিকিৎসক থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ বলছেন, প্রকৃত সংখ্যা কয়েকগুণ বেশি।
মৃত্যুতে চীনকে ছাড়াল ব্রাজিল : প্রাণহানির সংখ্যায় চীনকেও ছাড়িয়ে গেছে দক্ষিণ আমেরিকার দেশ ব্রাজিল। এ নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে দুঃখ প্রকাশ করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জেইর বোলসোনারো। বুধবার ব্রাজিলে রেকর্ড ৪৭৪ জনের মৃত্যুর তথ্য জানিয়েছে ব্রাজিলের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।
এদিন রেকর্ডসংখ্যক মৃত্যুর বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে বোলসোনারো বলেন, তাতে কী হয়েছে? আমি দুঃখিত। তিনি পাল্টা প্রশ্ন করে বলেন, আমাকে আপনারা কী করতে বলেন? অভিযোগ রয়েছে, শুরু থেকেই করোনা মহামারীকে খুব একটা গুরুত্ব দেননি ব্রাজিলিয়ান প্রেসিডেন্ট।
বরং একে ‘সামান্য ফ্লু’ মন্তব্য করে মহামারী নিয়ন্ত্রণে লকডাউনেরও বিরোধিতা করেছেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের জনস হপকিন্স ইউনিভার্সিটির তথ্যমতে, ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৭৩ হাজার ২৩৫। মারা গেছেন অন্তত ৫ হাজার ৮৩ জন।
পেরুর কারাগারে বিক্ষোভ-সংঘর্ষে নিহত ৯ : দক্ষিণ আমেরিকার দেশ পেরুর একটি কারাগারে উন্নত স্যানিটারি ব্যবস্থা এবং করোনা চিকিৎসা সেবার দাবিতে বিক্ষোভরত বন্দিদের সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সংঘর্ষ হয়েছে। দেশটির কারা কর্তৃপক্ষ বলছে, বুধবার কারাগারের ভেতরের এ সংঘর্ষে অন্তত ৯ জন বন্দি নিহত হয়েছেন।
দেশটির কারাগারসংশ্লিষ্ট সরকারি প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল পেনিটেনশিয়ারি ইন্সটিটিউট জানায়, স্যান জুয়ান দে লুরিগ্যানচো জেলার মিগুয়েল ক্যাস্ত্রো কারাগারে সোমবার সকাল থেকেই মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ শুরু করেন বন্দিরা। এ সময় বিক্ষোভে বাধা দেয়ার চেষ্টা করলে বন্দিরা কারাগারের প্রাচীরে উঠে পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথর এবং অন্যান্য ভারি বস্তু নিক্ষেপ করে।
কয়েকদিন আগে এ কারাগারের দুই বন্দি করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যান। পেরুর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলছে, দেশে এখন পর্যন্ত ২৮ হাজার ৬৯৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন; যা ল্যাটিন আমেরিকার দেশগুলোর মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। দেশটিতে করোনায় মারা গেছেন ৭৮২ জন।
সংক্রমণে এশিয়ায় তৃতীয় ভারত : এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে করোনা সংক্রমণে উৎপত্তিস্থল চীনের পরেই অবস্থান ভারতের। বুধবার পর্যন্ত ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩১ হাজার ৩৩২ জন। যা এশিয়ায় তৃতীয় অবস্থান। মৃত্যু হয়েছে প্রায় এক হাজার।
আক্রান্তের সংখ্যায় এশিয়ায় শীর্ষে আছে ইরান। দেশটিতে আক্রান্ত ৯৩ হাজার ৬৫৭ জন, মৃত্যু হয়েছে ৫ হাজার ৯৫৭ জনের। দ্বিতীয় অবস্থানে আছে উৎপত্তিস্থল চীন। দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ৮২ হাজার ৮৫৮ জন, মৃত্যু হয়েছে ৪ হাজার ৬৩৩ জনের।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো দেখুন