1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : news post : news post
  3. [email protected] : taifur nur : taifur nur
April 12, 2024, 12:25 pm

করোনা আক্রান্ত নার্সের পরিবারকে হয়রানির অভিযোগ

প্রতিবেদকের নাম
  • পোস্টের সময় Friday, March 6, 2020
  • 502 বার দেখা হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টারঃ মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত খুলনা মেডিকেল কলেজের সিনিয়র নার্স ও নার্সিং সুপারভাইজার শিলা রানী দাসের পরিবার স্থানীয় লোকদের হয়রানির শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) এক ফেসবুক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে ভুক্তভোগী নিজেই এ কথা জানান। মুহূর্তের মধ্যে সেটি ভাইরাল হয়ে যায়।
ওই নার্স খুলনা করোনা হাসপাতালে (ডায়াবেটিক হাসপাতাল) কর্তব্যরত ছিলেন। পরে অনেকেই তার পাশে দাঁড়ানোর কথা জানিয়েছেন।
জানা গেছে, খুলনা মেডিকেল কলেজের পিসিআর মেশিনে নমুনা পরীক্ষার পর গত মঙ্গলবার সিনিয়র নার্স শিলা রানী দাসের করোনা ধরা পড়ে। যিনি গত ৪ এপ্রিল থেকে খুলনা করোনা হাসপাতালে (ডায়াবেটিক হাসপাতাল) কর্তব্যরত ছিলেন। আক্রান্ত হওয়ার পর তাকে ওই হাসপাতালেই রাখা হয়েছে। তিনি নগরীর ১৮নং ওয়ার্ডের এমএ বারী সড়ক, সিএসএস রেভা পলস স্কুলের পশ্চিম পাশের বাসিন্দা।
বৃহস্পতিবার ফেসবুক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে তিনি জানান, আমার খুব কষ্ট লাগছে আমাদের এলাকার কিছু লোকের কর্মকাণ্ড শুনে। আমি যখন করোনা হাসপাতালে ভর্তি হই তখন তারা আমার বাসার কাজের লোকের বাসা লকডাউন করছে, ঠিক আছে! কিন্তু আমি একজন নিরামিষভোজী, আমার বাড়ির মানুষজন বলেছে আমার খাবারের ব্যবস্থা করতে, আমি নিজেও বলেছি.. কিন্তু তারা মোবাইল ফোন বন্ধ করে দিয়েছে! আমার সমাজের কাছে প্রশ্ন আমি রোগীদের সেবা দিতে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছি এখানে আমার অপরাধটা কোথায়? আমি কি কোনো অপরাধী যে আমাকে খাবারটা পর্যন্ত দেয়া যাবে না! আমি কি না খেয়ে মারা যাবো? এ কেমন বিচার? কারা এদেরকে এলাকার মানুষের দেখা শোনার ভার দিয়েছে?

এ বিষয়ে শিলা রানী দাসের সাথে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, জেলা প্রশাসন থেকে আমার বাড়ি বা কাজের লোকের বাড়ি লকডাউন করা হয়নি। ওয়াহিদ ও তৌফিক নামে দুইজন কাউন্সিলরের নাম ভাঙিয়ে বাসায় খাবার দিতে দিচ্ছে না। বাসায় আমার মেডিকেল পড়ুয়া মেয়ে না খেয়ে আছে।
১৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হাফিজুর রহমান মনি জানান, এ রকম কোনো ঘটনা আসলে ঘটেনি। তিনি করোনা আক্রান্ত হওয়ায় তার বাড়ির কাজের লোকটিকে ১৪ দিন সবার সঙ্গে সামাজিক দূরত্ব রাখতে বলা হয়েছে। খাবার দিতে যেতে বাধা দেয়া হয়নি।
এ বিষয়ে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ (কেএমপি) কমিশনার খন্দকার লুৎফুল কবীর বলেন, ওই নার্সের পরিবারকে হয়রানির বিষয়টি আমি জানতাম না। সত্যতা পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো দেখুন