1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : news post : news post
  3. [email protected] : taifur nur : taifur nur
February 28, 2024, 11:58 am
সর্বশেষ সংবাদ
রায়পুরা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডাক্তারের অবহেলায় নবজাতকের মৃত্যু নরসিংদীতে ২ ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে জরিমানা নরসিংদীতে” শিক্ষার্থীদের মাঝে সততা চর্চা ও সততার অভ্যাস গড়ে তোলার লক্ষ্যে দুর্নীতি বিরোধী জনসচেতনতা সভা শর্ট বাউন্ডারি ক্রিকেট টুর্ণামেন্টে কান্দাইল বন্ধু মহল একাদশের বিজয় মনোহরদী পৌরসভা মেয়রের সাথে ইমাম মোয়াজ্জিনদের মতবিনিময় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ১০ নির্দেশনা বায়বায়নে বেসরকারি হাসপাতালে অভিযান মূল্যস্ফীতি কমবে মে-জুনে সাবধান, বাজারে আসছে ‘গণধোলাই’ নরসিংদীর মডেল ক্যাডেট কেয়ার থেকে ৯ শিক্ষার্থী ক্যাডেটে ভর্তির লিখিত পরীক্ষায় চান্স রায়পুরায় স্থানীয় সরকার দিবস পালিত

নরসিংদী জেলা হাসপাতাল করোনা মহামারিতে আল্লাহর রহমতে সাহসিকতার সাথে চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন ডা. মিজান

প্রতিবেদকের নাম
  • পোস্টের সময় Tuesday, July 7, 2020
  • 276 বার দেখা হয়েছে

মো. জসিম উদ্দিন: নরসিংদী জেলা হাসপাতালে দীর্ঘ অনেক বছর যাবৎ সুনামের সাথে কর্মরত আছেন ডা. এএনএম মিজানুর রহমান। তিনি নরসিংদী জেলা হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও)। ডা. মিজানুর রহমান মহামারি করোনা ভাইরাসের এ সময়ে আল্লাহর রহমতে অত্যন্ত সাহসিকতার সাথে নিরবে চিকিৎসা সেবাসহ ওনার উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। ইত্যিমধ্যে তার সেবায় সুস্থ হয়ে কোভিড জেলা হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন শতাধিক করোনা রোগী। করোনা রোগী বৃদ্ধি পাওয়ায় নরসিংদী ১০০ শয্যা জেলা হাসপাতালটিকে কোভিড ৮০ শয্যা হাসপাতাল ঘোষণার পর ডা. মিজানকে এর মুখপাত্র হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়। পরিবার পরিজন ছেড়ে রাতদিন করোনা রোগীদের সেবা দিয়ে নরসিংদীর সব মানুষের কাছে অত্যন্ত প্রশংসিত হয়েছেন ডা. মিজান। পাশাপাশি মানুষের ভালবাসা ও দোয়া পাচ্ছেন তিনি।
নরসিংদী কোভিড জেলা হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, করোনা উর্পসগ নিয়ে পরীক্ষা করাতে আসা রোগীদের দীর্ঘ লাইন। স্বাস্থ্যকর্মীরা তাদের নমুনা সংগ্রহ করছেন। আর সবাইকে তদারকি করছেন ডা. মিজান। এপ্রিলের ৬ তারিখে নরসিংদীতে প্রথম করোনা রোগী শণাক্ত হয়। তার ঠিক দুই দিন পর জেলা হাসপাতালের এক মালি করোনায় আক্রান্ত হন। তখন চিকিৎসকদের মধ্যেই করোনা আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। নরসিংদীর অনেক ডাক্তার করোনার ভয়ে পিছু হটেন। রোগী দেখা বন্ধ করে দেন। ব্যতিক্রম ছিলেন এই মানবিক গুণের অধিকারী চিকিৎসক ডা. মিজান।
ডা. মিজানুর রহমান সর্বশক্তিমান আল্লাহর উপর ভরসা করে বলেন, করোনা মোকাবিলা প্রথমে আমাদের জন্য অনেক বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়ায়। সংক্রমণের শুরুতে আমাদের হাসপাতালের মালি জুয়েল ও সিভিল সার্জন অফিসের কয়েকজন আক্রান্ত হলে সবাই ভয় পেয়ে যান। সবাই বলেছেন হাসপাতাল লকডাউন করে দিতে, আমি বলছি না। কারণ হাসপাতাল বন্ধ হয়ে গেলে এতগুলো রোগী যাবেন কোথায়? তবে কেউ মনোবল হারাইনি। আমাদের হাসপাতালে চারজন রোগী মারা গেছেন, সেটা আমি অনুভব করছিÑ যদি আমাদের আইসিইউ থাকতো তা হলে তাদের বাঁচানো যেত।
ডা. মিজানুর রহমান বলেন, আমাদের হাসপাতালে প্রতিদিন ১০০ থেকে ১৫০ জন রোগী আসেন করোনা পরীক্ষা করাতে। আমরা পরীক্ষা করাতে পারি ৩০-৪০ জনের মতো। আরেকটু বেশি পরীক্ষা করাতে পারলে রোগী শনাক্ত বেশি হতো। আমাদের এখন আইসিইউ, পিসি আর ল্যাব, সেন্ট্রাল অক্সিজেনের দরকার। তবে আশা করছি সব কিছুই হয়তো তারাতারি পাব।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো দেখুন